বিচিত্রতা

৩ হাজার কিলোমিটার পথ পাড়ি দিলো পেঙ্গুইন

তিন হাজার কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়েছে একটি পেঙ্গুইন। অ্যাডিলি প্রজাতির এই পেঙ্গুইনের মূলত অ্যান্টার্কটিকার উপকূলীয় অঞ্চলে বসবাস। দীর্ঘপথ পাড়ি দিয়ে এটি নিউজিল্যান্ডের উপকূলে পৌঁছেছে। উপকূলীয় বাসিন্দাদের কাছে সে এখন পিঙ্গু নামে পরিচিত।

হ্যারি সিং নামে এক স্থানীয় ব্যক্তি অ্যাডিলি পেঙ্গুিইনটিকে খুঁজে পান। তিনি বলেন, প্রথমে আমি ভেবেছিলাম, এটি একটি ‘নরম পুতুল’।

অ্যাডিলি পেঙ্গুইনকে নিউজিল্যান্ডের উপকূলে পাওয়ার এটি তৃতীয় ঘটনা বলে জানা গেছে। ক্রাইস্টচার্চের বাসিন্দা হ্যারি সিং ও তার স্ত্রী হাঁটতে গিয়ে খুঁজে পান তাকে। তার ফেসবুক পোস্টে দেওয়া ভিডিওতে দেখা যায়, পেঙ্গুইনটি একা হয়ে পড়েছে। এক ঘণ্টা ধরে সে স্থির দাঁড়িয়ে ছিল। পরে তিনি উদ্ধারকারীদের খবর দেন।

তিনি বলেন, আমরা চাইনি এটি কুকুর বা বিড়ালের পেটে যাক। থমাস স্ট্র্যাক নামে একজনকে খুঁজে পান তারা যিনি ১০ বছর ধরে নিউজিল্যান্ডের দক্ষিণে পেঙ্গুইনদের পুনর্বাসনের কাজ করছেন।

থমাস অবাক হয়েছেন যে, অ্যান্টার্কটিক পেনিনসুলায় বসবাস করে এই পেঙ্গুইনগুলো। এটি কিভাবে এলো। খাওয়ানোর পর একে নিরাপদ স্থানে ছেড়ে দেওয়া হয় পিঙ্গুকে।

এর আগে, নিউজিল্যান্ডের উপকূলে ১৯৯৩ ও ১৯৬২ সালে এই অ্যাডিলি প্রজাতির পেঙ্গুইনকে খুঁজে পাওয়া গিয়েছিল।

ওটাগো বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ফিলিপ সেডন বলেন, আমরা যদি অ্যাডিলি পেঙ্গুইনের এভাবে চলে আসা দেখি তাহলে বুঝতে হবে নিশ্চয়ই কিছু পরিবর্তন ঘটেছে যা আমাদের বুঝতে হবে। এটি নিয়ে আমাদের আরও গবেষণা, অধ্যায়ন দরকার যে পেঙ্গুইনরা কোথায় যায়, কিভাবে যায়, তারা আসলে কি বার্তা দিতে চায় মেরিন ইকোসিস্টেমের অবস্থা নিয়ে।

এম ইউ

Back to top button