ক্রিকেট

২১ বছরেও টেস্টে ‘নতুন’ বাংলাদেশ!

ঢাকা, ১০ নভেম্বর – ১০ নভেম্বর ২০০০, বাংলাদেশ ক্রিকেট ইতিহাসের জন্য সবচেয়ে স্মরণীয় দিন। এদিন বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে প্রতিবেশী দেশ ভারতের বিপক্ষে টেস্ট অভিষেক হয় বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের। শুরু হয় নতুন এক পথচলার।

বাংলাদেশ টেস্ট স্ট্যাটাসের জন্য প্রথম আবেদন করে ১৯৯৬ সালে। যখন টেস্ট খেলার মর্যাদার জন্য আবেদন করে, তখন সেটি প্রাপ্তির সম্ভাবনা ছিল শূন্যের কোঠায়। কারণ, দল হিসেবে বাংলাদেশ ক্রিকেট তখনও হাঁটি হাঁটি পা পা করে এগোচ্ছিল।

তবে দৃশ্যপট বদলায় ১৯৯৭ সালের আইসিসি ট্রফি জয়ের পর। তখনকার আইসিসির কনফারেন্সে ৯টি পূর্ণ সদস্যের মধ্যে বাংলাদেশকে টেস্ট মর্যাদা দেওয়ার জন্য সমর্থন দেয় ভারত, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও জিম্বাবুয়ে। তবে ক্রিকেটের অন্যতম পরাশক্তি অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড, নিউ জিল্যান্ড এবং দক্ষিণ আফ্রিকা বিরোধিতা করে বসে।

আর তাই অপেক্ষার প্রহর বাড়তে থাকে। শেষ পর্যন্ত সব দেশের সমর্থন মেলার পর ২০০০ সালের ২৬ জুন বাংলাদেশ পায় টেস্ট স্ট্যাটাসের মর্যাদা। আজ টেস্ট স্ট্যাটাসের মর্যাদা পাওয়ার অর্থাৎ আইসিসির পূর্ণ সদস্যপদ লাভের ২১ বছর পূর্ণ হলো বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের।

২১ বছরেও অবশ্য বাংলাদেশ টেস্টে নতুন। প্রায় দুই যুগেও বাংলাদেশ টেস্টে ক্রিকেটে শক্তিশালী দলে পরিণত হতে পারেনি।

২১ বছরের টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে বাংলাদেশের পথচলা এখনও সুমধুর হয়নি। বন্ধুর পথে এখনও ধুঁকছে বাংলাদেশ। সময়ের পথ চলায় এই দীর্ঘ সময়ের মধ্যে ১২৪টি টেস্টে মাঠে নেমেছে বাংলাদেশ। যার মধ্যে জয় কেবল ১৫টি, ড্র ১৭ এবং পরাজয়ের গ্লানি আছে ৯২ ম্যাচে। বাংলাদেশের ১৫ জয়ের সর্বোচ্চ ৮টি এসেছে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে, ৪টি ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে এবং ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া এবং শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জয় আছে ১টি করে। এরমধ্যে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ২০০৫ সালে চট্টগাম টেস্ট জয় দিয়ে শুরু বাংলাদেশের। সেবারই প্রথম সিরিজ জয় করে বাংলাদেশ। আর দেশের বাইরে প্রথম সিরিজ জয় আসে ২০০৯ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তাদের মাঠে। বাংলাদেশ নিজেদের শততম টেস্টেও জয় পায়, শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে।

গত ২০ বছরে টেস্টের দল ১০টি থেকে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১২টিতে। নতুন সংযোজন আফগানিস্তান ও আয়ারল্যান্ড। বাংলাদেশ এখন পর্যন্ত খেলা কেবল আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষেই খেলেনি। বাকি সব প্রতিপক্ষের বিপক্ষে মাঠে নেমেছে টাইগাররা।

বাংলাদেশের টেস্ট খেলা শুরুর পর থেকে সবচেয়ে বেশি ২২টি টেস্ট খেলেছে দ্বীপরাষ্ট্র শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে। যাদের বিপক্ষে সর্বোচ্চ রানের স্কোর বাংলাদেশের। ২০১৩ সালে গলে বাংলাদেশ করেছিল ৬৩৮ রান। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছে জিম্বাবুয়ের, ১৮টি। এছাড়াও ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১৮টি, নিউজিল্যান্ড ১৫টি, দক্ষিণ আফ্রিকা ১২টি, ভারত ও পাকিস্তান ১১টি, ইংল্যান্ড ১০টি, অস্ট্রেলিয়া ৬টি ও আফগানিস্তানের বিপক্ষে ১টি টেস্ট খেলেছে বাংলাদেশ।

সূত্র : রাইজিংবিডি
এন এইচ, ১০ নভেম্বর

Back to top button