ফুটবল

নেইমারের ৪০০

চোটের কারণে খেলতে পারেননি লিওনেল মেসি। তবে পুরোনো দুই সারথি কিলিয়ান এমবাপ্পে ও নেইমার ছিলেন দারুণ ছন্দে। যতক্ষণ মাঠে ছিলেন তাদের মধ্যে বোঝাপড়াটা ছিল দেখার মতো। যার ফলও পায় পিএসজি। যদিও পুঁচকে বোর্দো ভালোই ভয় ধরিয়েছে পিএসজি শিবিরে। তবে নেইমার-এমবাপ্পের রসায়নে ভেস্তে যায় তাদের সব পরিকল্পনা। জোড়া গোল করেন নেইমার আর এমবাপ্পে একটি। তাতে ম্যাচটা ৩-২ গোলে জিতে নেয় পিএসজি। দুই গোলের সুবাদে নেইমার পেরিয়ে যান ক্যারিয়ারে ৪০০ গোলের মাইলফলক। এই মুহূর্তে দেশ ও ক্লাবের হয়ে সব মিলিয়ে নেইমারের গোলসংখ্যা ৪০১।

এ মৌসুমের শুরুর দিকে যখন মেসিকে পিএসজিতে নেওয়া হয় তখন নাকি নেইমারের সঙ্গে এমবাপ্পের দূরত্ব বাড়ে। যেটা ম্যাচেও কিছুটা আঁচ করা যায়। নেইমার আর এমবাপ্পে কেউ কাউকে পাস দিচ্ছেন না ঠিকমতো, এটা নিয়েও গুঞ্জন ওঠে। তবে সব গুঞ্জন উড়িয়ে তারা আবার একসঙ্গে পারফর্ম করলেন। পরিসংখ্যান বলছে, নেইমার পিএসজিতে আসার পর সবচেয়ে বেশি দশটি অ্যাসিস্ট এমবাপ্পের কাছ থেকেই পেয়েছেন।

এ দিন পিএসজিকে আটকানোর সব পরিকল্পনাই করেছিল বোর্দো। বল দখলে নেইমারদের চেয়ে কিছুটা পিছিয়ে থাকলেও আক্রমণটা বেশিই করেছে তারা। ম্যাচের ২৬তম মিনিটে নেইমারের গোলে লিড নেয় পিএসজি। এই গোলের পর ভিন্নভাবে উদযাপনে মাতেন তিনি। জার্সি তুলে সদ্য বিমান দুর্ঘটনায় মারা যাওয়া ব্রাজিল গায়িকা মারিলিয়া মেন্ডোনাকে স্মরণ করেন। তার জার্সির নিচে থাকা টি-শার্টে লেখা ছিল, ‘আমি চিরকাল তোমার ভক্ত থাকব, কষ্টের রানী। শান্তিতে থেকো মারিলিয়া মেন্ডোনা।’ পরের গোলটিও এই শিল্পীকে উৎসর্গ করেন নেইমার।

সূত্র : সমকাল
এম এস, ০৮ নভেম্বর

Back to top button