দক্ষিণ এশিয়া

ভারতে বাজির ধোঁয়ায় ‘দম বন্ধ’ অবস্থা

নয়াদিল্লী, ০৭ নভেম্বর – বাজির ধোঁয়ায় শনিবার হঠাতই বিপর্যস্ত অবস্থা দেখা দিয়েছে ভারতের বেশ কিছু এলাকায়। পরিবেশ রক্ষা করতে দেশটির সুপ্রিমকোর্ট শুধু সবুজ বাজি পোড়ানোর নির্দেশ দিলেও বাস্তবে ঘটেছে ভিন্ন ঘটনা।

উত্তর ভারতের বিস্তীর্ণ এলাকায় এদিন বিকেলে বাজির ধোঁয়ায় কার্যত দমবন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছিল বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে আনন্দবাজার পত্রিকা।

কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদের প্রকাশিত তালিকায় দেখা গেছে, দেশের ১৩৮টি শহরের মধ্যে ৩৩ শহরে বায়ুর গুণগত মান খুব খারাপ বা মারাত্মক খারাপ গোত্রের। অর্থাৎ প্রায় ২৪ শতাংশ শহরেই বায়ু বিষিয়ে গেছে। ওই ৩৩টি শহরের অধিকাংশই উত্তর ভারতে অবস্থিত। শনিবার বিকেলের তথ্য অনুযায়ী কেন্দ্রীয় পর্ষদ ওই তালিকা প্রকাশ করেছে।

পরিবেশকর্মীদের একাংশের মতে, বৃহস্পতিবার এবং শুক্রবার রাতের তথ্যের ভিত্তিতে বিচার করলে ৩৩টির বেশি শহরকেই খুব খারাপ বা মারাত্মক খারাপ তালিকায় রাখতে হতো।

প্রসঙ্গত, ১৩৮টি শহরের মধ্যে এ রাজ্যের ৬টি শহর রয়েছে। তার মধ্যে দুর্গাপুর এবং হাওড়ার বাতাসের গুণমান ‘খারাপ’ গোত্রে রয়েছে। কলকাতা, শিলিগুড়ি, আসানসোল এবং হলদিয়ায় বাতাসের মান ‘মাঝারি’ গোত্রে ছিল বলে জানানো হয়েছে।

কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদের তালিকা অনুযায়ী, দিল্লি, নয়ডা, গ্রেটার নয়ডা, গাজিয়াবাদ গোরক্ষপুর, বুলন্দশহরের মতো উত্তরপ্রদেশের শহরগুলিতে প্রাণান্তকর অবস্থা। হরিয়ানার হিসার, পানিপথ, সোনিপথের অবস্থাও ভাল নয়। নিষিদ্ধ বাজি পোড়ানো রুখতে ওই রাজ্যগুলির সরকার আদৌ কোনও ব্যবস্থা নিয়েছে কি না, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

দিল্লির অবস্থাও ভয়াবহ। দেওয়ালির পর দু’দিন ধরে বিষাক্ত কালো ধোঁয়াশার চাদরে ঢাকা পড়ে রয়েছে রাজধানী। বায়ু মান সূচক (একিউআই)-এর মান ৩০১ থেকে ৫০০ পর্যন্ত হলে (মেরুন), সেই বাতাসকে ‘বিপজ্জনক’ বলা হয়। শুক্রবার দিল্লিতে এর মান বিপজ্জনক স্তরকেও ছাপিয়ে গিয়েছিল (৬১৭)। শনিবার সকাল ৮টায় দিল্লির বায়ু মান সূচক হয় ৪৪৯। অর্থাৎ এ দিনও ‘বিপজ্জনক’ বাতাসে বন্দি কাটিয়েছে দিল্লি। সকালে যারা সাইকেল নিয়ে বেরিয়েছিলেন, তারা সামনের রাস্তা দেখতে পাচ্ছিলেন না প্রায়। রাজধানীর লাগোয়া নয়ডা, গ্রেটার নয়ডা, গুরুগ্রাম, গাজ়িয়াবাদে এ দিন একিউআই ছিল দিল্লির চেয়েও বেশি।

দিল্লির স্যর গঙ্গারাম হাসপাতালের কার্ডিয়োলজির অধ্যাপক অরুণ মহান্তি বলেন, হৃদরোগ ও ফুসফুস সংক্রান্ত সমস্যা রয়েছে যাদের, তাদের পক্ষে এটা মারাত্মক।

তিনি জানান, ১০ থেকে ১৫ শতাংশ শিশুর হাঁপানি রয়েছে। তাদের পক্ষে এটা অত্যন্ত বিপদের। সদ্য কোভিড-১৯ থেকে যারা সেরে উঠেছেন, তাঁদের পক্ষেও খুবই ক্ষতিকর এই বাতাস।

পরিবেশকর্মীদের একাংশের বক্তব্য, শীর্ষ আদালত সবুজ বাজিতে ছাড় দিয়েছে। কিন্তু দেশের কোথাও আদৌ সবুজ বাজি উৎপাদন এবং বিক্রি হয় কি না, তা নিয়েই সংশয় রয়েছে। কালীপূজা এবং দীপাবলিতে বায়ুদূষণ যে ভাবে বেড়েছে তাতে এটা স্পষ্ট, সবুজ বাজি পোড়ানো হয়নি। প্রশ্ন উঠেছে প্রশাসনের ভূমিকা নিয়েও। সুপ্রিম কোর্ট যে বাজিগুলিকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছিল, সেগুলি বন্ধ করতে বেশির ভাগ রাজ্যের প্রশাসনের পক্ষ থেকে সক্রিয় পদক্ষেপ করা হয়নি বলেও অভিযোগ।

সূত্র : আমাদের সময়
এন এইচ, ০৭ নভেম্বর

Back to top button