জাতীয়

সাঁওতালদের উচ্ছেদ করে ইপিজেড নয়

ঢাকা, ০৬ নভেম্বর – গোবিন্দগঞ্জের বাগদাফার্মে সাঁওতালদের নিজস্ব জমিতে ইপিজেড নির্মাণ না করে, গোপালগঞ্জে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের এলাকায় গিয়ে স্থাপনের আহ্বান জানিয়েছেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

শনিবার বেলা ১১টায় রাজধানীর কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে সাহেবগঞ্জ-বাগদাফার্ম ভূমি উদ্ধার সংহতি কমিটি এক প্রতিবাদ সমাবেশ থেকে তিনি এসব কথা বলেন। সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

সমাবেশে থেকে সাঁওতালদের তিন ফসলি জমিতে ইপিজেড নির্মাণ বন্ধ করে তা ফেরত দেয়ার দাবি জানানো হয়। এসময় ২০১৬ সালে সাঁওতাল-পুলিশ সংঘর্ষে নিহতদের বিচার দাবি করা হয়।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী আরও বলেন, ‘আপনি(প্রধানমন্ত্রী)গোপালগঞ্জে একটা বেপজা স্থাপন করলে বঙ্গবন্ধু কবর থেকে আমাদের জন্য দোয়া করবে। ওই এলাকায় বেপজা করলে আদিবাসীদেরও কোনো অসুবিধা হবে না। গোবিন্দগঞ্জে সাঁওতালদের চার ফসলি জমি দখল করে বেপজা করার কোনো দরকার নেই।’

আদিবাসীদের উপর ইতোমধ্যে যে অন্যায় করা হয়েছে, ২০১৬ সালে যাদের হত্যা করা হয়েছে তাদের পরিবার এবং যারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তাদের ক্ষতিপূরণ ও সাহায্য করার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান জাফরুল্লাহ।

তিনি আরও বলেন, ‘গোবিন্দগঞ্জেবেপজা স্থাপন করা হলে এই গরিব সাঁওতালদের ওপর অন্যায় করা হবে।’

প্রতিবাদ সমাবেশে সাহেবগঞ্জ-বাগদাফার্ম ভূমি উদ্ধার সংহতি কমিটির পক্ষ থেকে পাঁচদফা দাবি জানানো হয়।

দাবিগুলো হলো: (১)চুক্তির শর্তানুযায়ী জমির মালিকদের এই জমি ফিরিয়ে দেয়া, (২) শ্যামল হেমব্রম, মঙ্গল মার্ডি, রমেশ টুডুর প্রকৃত খুনীদের বিচার, (৩) চরণ সরেন, বিমল কিন্তু, দ্বিজেন টুডুসহ আহত এবং গুলিবিদ্ধ সবার ক্ষতিপূরণ, (৪) পুড়িয়ে দেয়া ঘরবাড়ী, মন্দির এবং স্কুলঘর পুননির্মাণ, (৫) আন্দোলনকারী নিপীড়িত আদিবাসী ও বাঙালিদের বিরুদ্ধে দায়ের করা মিথ্যা মামলাতগুলো অবিলম্বে প্রত্যাহারের দাবি।

সমাবেশে বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার জ্যোতির্ময় বড়ুয়ার সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য রাখেন, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি, রাষ্ট্র সংস্কার আন্দোলনের সদস্য সচিব অ্যাডভোকেট হাসনাত কাইয়ুম, ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক মোশাররফ হোসেন নান্নুসহ সাহেবগঞ্জ-বাগদাফার্ম ভূমি উদ্ধার সংহতি কমিটির বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীরা।

উল্লেখ্য, আজ গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জসহ সারা দেশে সাঁওতাল হত্যা দিবস পালন করছেন সাঁওতাল-বাঙালিরা। ২০১৬ সালের এই দিনে মহিমাগঞ্জের রংপুর চিনিকলের সাহেবগঞ্জ-বাগদাফার্মের জমিতে হামলা করে সাঁওতালদের উচ্ছেদের ঘটনায় তিন সাঁওতাল নিহত হন। তারপর থেকে সাঁওতালরা এ দিনটিকে ‘সাঁওতাল হত্যা দিবস’ হিসেবে পালন করে আসছে। কিন্তু ঘটনার পাঁচ বছর পেরিয়ে গেলেও আজও সাঁওতালদের করা মামলার বিচার হয়নি।

সাঁওতালদের দাবি, গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার সাহেবগঞ্জ বাগদা ফার্মের যে জমিতে ইপিজেড হবে, সেগুলো তাদের বাপ-দাদার জমি। ইপিজেড হলে তারা জমি থেকে উচ্ছেদ হবেন। তাই ইপিজেড না করার দাবিতে আন্দোলন করছেন তারা।

সূত্র: বাংলাদেশ জার্নাল
এম ইউ/০৬ নভেম্বর ২০২১

Back to top button