উত্তর আমেরিকা

সৌদিকে ৬৫০ মিলিয়ন ডলারের ক্ষেপণাস্ত্র দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

ওয়াশিংটন, ০৫ নভেম্বর- সৌদি আরবকে শক্তিশালী ক্ষেপণাস্ত্র দিতে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। চুক্তি অনুযায়ী যুক্তরাষ্ট্রের তৈরি ৬৫০ মিলিয়ন অর্থ্যাৎ ৬৫ কোটি মার্কিন ডলারের ক্ষেপণাস্ত্র সরবরাহ করবে বাইডেন প্রশাসন। উপসাগরীয় দেশটির কাছে ক্ষেপণাস্ত্র বিক্রিতে ইতিমধ্যে অনুমোদনও পেয়েছে। এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরা।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের প্রশাসন ক্ষমতায় আসার পর এই প্রথম সৌদিকে বিপুল অস্ত্র দিতে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। এ সংক্রান্ত বৃহস্পতিবার মার্কিন প্রতিরক্ষা দফতর বিবৃতিতে জানায়, ড্রোন হামলা ঠেকিয়ে সৌদি আরব যাতে নিজেদের সুরক্ষিত রাখতে পারে, সে জন্য রিয়াদের কাছে আকাশ থেকে আকাশে নিক্ষেপযোগ্য এ ক্ষেপণাস্ত্র বিক্রির অনুমোদন দিয়েছে পররাষ্ট্র দপ্তর।

পেন্টাগন জানিয়েছে, নিজস্ব নিরাপত্তা জোরদারে সৌদি আরব এ অস্ত্র কিনছে। মিত্র রিয়াদকে বর্তমান ও ভবিষ্যৎ নিরাপত্তা হুমকি মোকাবিলায় সহযোগিতার জন্য এ পদক্ষেপ নিয়েছে ওয়াশিংটন।

২৮০টি অত্যাধুনিক মাঝারি পাল্লার এআইএম-১২০সি ক্ষেপণাস্ত্র ও সংশ্লিষ্ট যন্ত্রপাতি কিনতে পারবে সৌদি। খবরে বলা হয়, মধ্য পালার এআইএম-১২০সি-৭/সি-৮ মডেলের এয়ার-টু-এয়ার ক্ষেপণাস্ত্রগুলো ৬৫ কোটি ডলারে বিক্রি করছে যুক্তরাষ্ট্র। বাংলাদেশি মুদ্রায় যার পরিমাণ ৫ হাজার ৫৭৬ কোটি ৪০ লাখের বেশি।

অস্ত্র বিক্রয়ের জন্য কংগ্রেসের অনুমোদনের প্রয়োজন হবে না। তবে মার্কিন আইনপ্রণেতারা সিনেট ও প্রতিনিধি পরিষদে একটি অসম্মতি বিল পাস করে এই চুক্তি আটকিয়ে দিতে পারেন। এর আগে, ইয়েমেনে নির্বিচারে হামলার জন্য চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে সৌদি নেতৃত্বাধীন জোটকে সহায়তা বন্ধের ঘোষণা দেন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।

উল্লেখ্য, সৌদি নেতৃত্বাধীন সামরিক জোটের সঙ্গে ২০১৫ সাল থেকে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে ইরান সমর্থিত হুথি বিদ্রোহীরা। আন্তর্জাতিক সমর্থনপুষ্ট সরকারকে হটিয়ে হুথি বিদ্রোহীরা রাজধানী দখল করে নিলে এই সংঘাত শুরু হয়। সৌদি জোট ইয়েমেনে বিমান হামলায় মার্কিন অস্ত্র ব্যবহারের প্রমাণ রয়েছে। বেসামরিক মানুষের উপর বিমান হামলায় সৌদি জোট ও যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে সমালোচনার ঝড় বয়ে। পরবর্তীতে জার্মানিসহ বেশ কয়েকটি দেশ সৌদির কাছে অস্ত্র বিক্রি বন্ধ করে দেয়।

সূত্রঃ বাংলা ট্রিবিউন

আর আই

Back to top button