দক্ষিণ এশিয়া

ভারতে দৈনিক ৩১ শিশুর আত্মহত্যা!

নয়াদিল্লী, ০২ নভেম্বর – ভারতে প্রতিদিন গড়ে ৩১ শিশু আত্মহত্যা করে বলে জানিয়েছে সেদেশের ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ডস ব্যুরো। ২০২০ সালের পরিসংখ্যানে শিশু আত্মহত্যার এই হার প্রকাশ করেছে প্রতিষ্ঠানটি।

শিশুদের আত্মহত্যা প্রবণ হয়ে ওঠার পেছনে বিশেষজ্ঞরা করোনায় শিশুদের ওপর মানসিক চাপকে দায়ী করেছেন। ভারতের এনসিআরবি তথ্য অনুযায়ী, ২০২০ সালে ১১,৩৯৬ জন শিশু আত্মহত্যা করেছেন। ২০১৯ সালে এই সংখ্যা ছিল ৯,৬১৩ জন। ২০১৯-এর তুলনায় ২০২০ সালে এই মৃত্যুর হার ১৮ শতাংশ বেশি। ২০১৮ সালে এই সংখ্যা ছিল ৯,৪১৩ জন। ২০১৮ সালের তুলনায় ২০২১ সালে ২১ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে আত্মহত্যায় শিশু মৃত্যু।

তথ্য অনুযায়ী, ‘পারিবারিক সমস্যা’ শিশুদের আত্মহত্যার অন্যতম প্রধান কারণ। প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, ‘পারিবারিক সমস্যা’র কারণে ৪০০৬টি শিশু আত্মহত্যা করেছে। তারপরেই মৃত্যুর কারণ হিসেবে দেখা দিয়েছে ‘প্রেমের সম্পর্ক’ (১,৩৩৭) এবং অসুস্থতা (১,৩২৭)। শিশুদের আত্মহত্যার পেছনে অন্যান্য কারণগুলোর মধ্যে রয়েছে আদর্শগত কারণ বা বীর-উপাসনা, বেকারত্ব, দেউলিয়াপনা, পুরুষত্বহীনতা বা বন্ধ্যত্ব এবং মাদক সেবন।

এই বিষয়ে ভারতের সেভ দা চিলড্রেন সংগঠনের শিশু সুরক্ষা বিষয়ক উপপরিচালক প্রভাত কুমার বলেন, ‘যদিও আমরা একটি সমাজ হিসাবে জাতীয় মানবিক পুঁজি তৈরির জন্য শিক্ষা এবং শারীরিক স্বাস্থ্যের মতো বাস্তব বিষয়গুলি সম্পর্কে সচেতন, মানসিক সুস্থতা বা মানসিক-সামাজিক সমর্থন প্রায়শই পেছনের আসনে থেকে যায়। শিশুদের মধ্যে ক্রমবর্ধমান আত্মহত্যার সংখ্যা একটি পদ্ধতিগত ব্যর্থতা প্রতিফলিত করে।’

ভারতের ক্রাই-চাইল্ড রাইটসের নীতি গবেষণা এবং অ্যাডভোকেসির পরিচালক প্রীতি মাহারা এই বিষয়ে সংবাদ সংস্থা পিটিআইকে বলেন, ‘গৃহবন্দী থাকার কারণে শিশুরা প্রচণ্ড মানসিক চাপ এবং মানসিক আঘাতের মুখোমুখি হয়েছে। তা ছাড়া দীর্ঘ সময় ধরে স্কুল বন্ধ থাকার কারণে এবং সীমিত সামাজিক যোগাযোগের কারণে বন্ধু, শিক্ষকের সঙ্গে যোগাযোগ কমে যায়। এই কারণেও শিশু আত্মহত্যার ঘটনা বেড়ে থাকতে পারে।’

সূত্র : দেশ রূপান্তর
এন এইচ, ০২ নভেম্বর

Back to top button