আইন-আদালত

ই-অরেঞ্জের সোনিয়া দম্পতিসহ তিনজন রিমান্ডে

ঢাকা, ২৮ অক্টোবর – পণ্য সরবরাহ না করে এক কোটি ২০ লাখ টাকা আত্মসাতের মামলায় ই-অরেঞ্জ কোম্পানির মালিক সোনিয়া মেহজাবিন, স্বামী মাসুকুর রহমানসহ তিনজনের এক দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত। আজ বৃহস্পতিবার ঢাকা মহানগর হাকিম শহিদুল ইসলাম শুনানি শেষে এ রিমান্ডের আদেশ দেন। রিমান্ডে যাওয়া অপর আসামি হলেন, চিফ অপারেটিং অফিসার আমান উল্যাহ।

হাতিরঝিল থানার এ মামলায় তিন আসামির পাঁচ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন সংশ্লিষ্ট থানার এসআই (নি.) সুব্রত দেবনাথ। রিমান্ড শুনানিকালে আসামিদের কারাগার থেকে আদালতে হাজির করা হয়। এর আগে গত ২৩ আগস্ট তাদের বিরুদ্ধে আদালত পাঁচ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

আসামিদের পক্ষে অ্যাডভোকেট মামুনুর রশীদ রিমান্ড বাতিল চেয়ে আসামিদের জামিন আবেদন করেন। শুনানি শেষে আদালত জামিন নামঞ্জুর করে তাদের একদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। গত ৭ অক্টোবর সাজ্জাদ ইসলাম নামে ঢাকা কলেজের এক শিক্ষার্থী হাতিরঝিল থানায় মামলাটি দায়ের করেন।

মামলায় তিনি অভিযোগ করেন, ই-অরেঞ্জের চমকপ্রদ অফার দেখে তিনি, তার ভাই এবং এক বন্ধু বাসা বাড়ির প্রয়োজনীয় জিনিস, বাইক বাবদ এক কোটি ২০ লাখ টাকার পণ্য অর্ডার করেন। প্রতিষ্ঠানটি পণ্য সরবরাহ না করে তাদের অর্থ আত্মসাৎ করেন।

এর আগে গত ১৭ আগস্ট ই-অরেঞ্জের প্রতারণার শিকার মো. তাহেরুল ইসলাম নামের এক গ্রাহক একটি মামলা করেন। আর মামলা দায়েরের দিনই গত ১৭ আগস্ট মালিক সোনিয়া মেহজাবিন ও তার স্বামী মাসুকুর রহমান আত্মসমর্পণ করলে আদালত জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে তাদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

এরপরই মামলাটির তদন্ত কর্মকর্তা গুলশান থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আমিনুল ইসলাম আসামিদের রিমান্ড আবেদন করলে গত ২৩ আগস্ট আদালত পাঁচ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এর আগে গত ১৮ আগস্ট সন্ধ্যায় আসামি আমান উল্যাহ গুলশান এলাকা থেকে গ্রেপ্তার হয়। ওই সময় তার কাছ থেকে ২৪টি ক্রেডিট কার্ড, ১৬ লাখ টাকা এবং গাড়ি জব্দ করা হয়। এর আগে গত ১৮ আগস্ট মামলায় উল্লেখিত আসামিসহ ছয়জনের বিদেশযাত্রায় নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে সিএমএম আদালত।

সূত্র : আমাদের সময়
এন এইচ, ২৮ অক্টোবর

Back to top button