দক্ষিণ এশিয়া

বিক্ষোভ অবসানে তেহরিক-ই-লাব্বাইকের দাবি মেনে নিয়েছে পাকিস্তান সরকার

ইসলামাবাদ, ২৭ অক্টোবর – নিষিদ্ধ ঘোষিত ইসলামি গোষ্ঠী তেহরিক-ই-লাব্বাইক পাকিস্তানের (টিএলপি) ৩৫০ কর্মীকে মুক্তি দেওয়ার এক দিন পর পাকিস্তান সরকার দলটির ব্যবহৃত ব্যাংক অ্যাকাউন্টগুলোর ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে নিতে পারে, এমন ইঙ্গিত মিলেছে।

ইমরান খান সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ রশীদ গত সোমবার বলেছেন, ‘আমাদের মেনে নেওয়া উচিত যে টিএলপি পাঞ্জাবের তৃতীয় বৃহত্তম দল। তাই আমরা কোনো দ্বন্দ্ব চাই না, আমরা প্রতিদিনের এই ঝগড়ার অবসান চাই।’

আরও জানিয়েছে, টিএলপি বেশ কিছু শর্ত আরোপ করেছিল, যার মধ্যে ছিল দেশটির চতুর্থ তফসিল থেকে তাদের অপসারণ, নিজ দলের কর্মীদের মুক্তি এবং ফেডারেল ক্যাবিনেটের তেহরিক-ই-লাব্বাইক’কে নিষিদ্ধ সংগঠন হিসেবে ঘোষণার যায়গা থেকে সরে আসা।

সম্প্রতি নিষিদ্ধ কট্টরপন্থী এই গোষ্ঠীর চাপে পড়ে দলটির প্রায় সাড়ে ৩০০ কর্মীকে মুক্তি দেয় পাকিস্তান সরকার। সেই সঙ্গে আজ বুধবারের ভেতর তাদের ওপর আরোপিত মামলাগুলোও তুলে নেওয়া হবে বলে প্রতিশ্রুতি দেয়।

এ ছাড়া দেশটির সরকার টিএলপ’র প্রধান সাদ রিজভীকে মুক্তি দেওয়ার পরিকল্পনা নিয়েও কাজ করছে বলে জানিয়েছে পাকিস্তানের গণমাধ্যম দ্য ডন। পাকিস্তান সরকার এমন সময় এসব ঘোষণা দিল, যখন নিষিদ্ধ ঘোষিত সংগঠন তেহরিক-ই-লাব্বাইকের কর্মীরা লাহোর প্রদেশের কাছেই প্রধান একটি সড়ক মুরিদকে অবরোধ করার ঘোষণা দিয়েছে। গত রোববার তারা ইমরান খানের সরকারকে এমন হুঁশিয়ারি দিয়েছিল।

গোষ্ঠীটির নেতৃত্ব থাকা পরিষদের একটি বিবৃতিতে বলা হয়েছিল, ‘সরকার তিনবার তার কথা থেকে ফিরে গেছে। এবার আমরা বসে থাকব এবং অপেক্ষা করব।’

পরে ওই দিনই দলটির শত শত নেতাকর্মী পাকিস্তানের বিভিন্ন প্রদেশের রাজপথ অবরোধ করে এবং বিক্ষোভ প্রদর্শন করতে থাকে। এর পরিপ্রেক্ষিতেই আজ বুধবারের ভেতর গোষ্ঠীটির নেতাকর্মীদের মুক্তি ও মামলা তুলে নেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেয় পাকিস্তান সরকার।

সূত্র : আমাদের সময়
এন এইচ, ২৭ অক্টোবর

Back to top button