ইউরোপ

ফিলিস্তিন রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠা চান ম্যার্কেল, ইসরায়েলের ‘না’

বার্লিন, ১২ অক্টোবর – জার্মানির বিদায়ী চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল বলেছেন, ইরানের সঙ্গে সম্পাদিত পারমাণবিক চুক্তির পুনরুজ্জীবন ও ইসরায়েল–ফিলিস্তিন সংকটের দ্বিরাষ্ট্রীয় সমাধানের বিষয়ে বার্লিন প্রতিশ্রুতিবদ্ধ রয়েছে। ইরানের পারমাণবিক ইস্যু ও ফিলিস্তিন রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠা নিয়ে ইসরায়েলের সঙ্গে মতপার্থক্য চলার মধ্যেই এ কথা বলেন তিনি। খবর আল–জাজিরার।

জার্মানির চ্যান্সেলর হিসেবে বিদায় নেওয়ার আগে রোববার ইসরায়েল সফরে গিয়ে আঙ্গেলা ম্যার্কেল এ মন্তব্য করেন।

ম্যার্কেল বলেন, ইরানের সঙ্গে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সই হওয়া পারমাণবিক চুক্তিকে পুনরুজ্জীবিত করতে জার্মানি এখনো প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। ফিলিস্তিনের সঙ্গে ইসরায়েলের কয়েক দশক ধরে চলা দ্বন্দ্ব–সংঘাত অবসানে দ্বিরাষ্ট্রীয় সমাধানই সেরা উপায় বলে মনে করে জার্মানি।

আঙ্গেলা ম্যার্কেল এ মন্তব্য করলেও ফিলিস্তিনি ইস্যুতে ইসরায়েলের ঘোর আপত্তি রয়েছে।

ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী নাফতালি বেনেটের সঙ্গে এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে জার্মান চ্যান্সেলর বলেন, এই বিষয়ে আমি মনে করি, বর্তমান পরিস্থিতিতে এ নিয়ে আশার তেমন কিছুই না দেখা গেলেও দ্বিরাষ্ট্রীয় সমাধানের বিষয়টি আলোচনার টেবিল থেকে সরিয়ে ফেলা বা এটি ধামাচাপা দেওয়া উচিত হবে না। তা ছাড়া একটা রাষ্ট্রছাড়া ফিলিস্তিনিরা নিরাপদে বসবাস করতে পারবেন না। অধিকৃত ভূখণ্ডে ইসরায়েলের ইহুদি বসতি স্থাপন কার্যক্রমও সংকট সমাধানে সহায়তা করেনি।

ম্যার্কেলের এসব কথার জবাবে অবৈধ বসতি স্থাপনকারীদের সাবেক নেতা বেনেট ফিলিস্তিন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার বিরোধিতা করেন। তিনি দাবি করেন, আমাদের অভিজ্ঞতা হলো ফিলিস্তিন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার অর্থ হবে, খুব সম্ভবত একটি সন্ত্রাসী রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করা। আমার বাড়ি, এমনকি ইসরায়েলের যেকোনো স্থান থেকে এটির দূরত্ব হবে গড়পড়তা সাত মিনিটের পথ।

সূত্র: বাংলাদেশ জার্নাল
এম ইউ/১২ অক্টোবর ২০২১

Back to top button