শিক্ষা

দীর্ঘ দেড় বছর পর খুলেছে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হল

কুষ্টিয়া, ০৯ অক্টোবর- দীর্ঘ দেড় বছর পর খুলেছে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের আটটি আবাসিক হল। এ উপলক্ষে স্বাস্থ্যবিধি মেনে প্রতিটি হলে মাস্ক, ফুল ও চকলেট দিয়ে বরণ করে নেওয়া হয় শিক্ষার্থীদের।

শনিবার সকাল ১০টায় হলগুলো শিক্ষার্থীদের জন্য খুলে দেওয়া হয়। এসময় ফুল চকলেট, মাস্ক, স্যানিটাইজার দিয়ে বরণ করে নেওয়া হয় হলের আবাসিক শিক্ষার্থীদের।

সরেজমিনে দেখা যায়, শিক্ষার্থীরা লাইন ধরে স্বাস্থ্যবিধি মেনে হলে ঢুকছেন। অনেকে ভ্যানে করে সঙ্গে নিয়ে এসেছেন বই, তোষকসহ অন্যান্য জিনিসপত্র। শিক্ষার্থীদের অন্তত এক ডোজ টিকা নেওয়ার প্রমাণপত্র ও বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলে থাকার বৈধ পরিচয়পত্র আছে কি না, তা যাচাই করে দেখা হচ্ছে। মাপা হচ্ছে শরীরের তাপমাত্রা। কয়েকটি হলে বসানো হয়েছে হাত ধোঁয়ার বেসিন। হলের দেয়ালগুলো চুনকাম ছাড়াও প্রয়োজনীয় সংস্কার কাজ চলমান রয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ হলগুলোতে গণরুম বন্ধ রেখেছে। এ ছাড়া কোনো শিক্ষার্থী হঠাৎ অসুস্থ হলে তাৎক্ষণিকভাবে তাকে চিকিৎসাসেবা দিতে কয়েকটি হলে আইসোলেশন কক্ষের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

জানা যায়, দীর্ঘদিন পর বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হল খোলার জন্য নানা ধরনের প্রস্তুতি নেয় প্রশাসন। হলগুলোর জরুরি সংস্কার কার্যক্রম সম্পন্ন করা হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রভোস্ট কাউন্সিলের সভাপতি অধ্যাপক ড. রেবা মন্ডল বলেন, ‘আমাদের বাজেট অনেক দেরিতে এসেছে। তবে জরুরি ভিত্তিতে হলের পানি ও বিদ্যুৎ সমস্যাগুলোর সমাধান করা হয়েছে। বাকি কার্যক্রম চলমান থাকবে।’

হলগুলো খুলে দেওয়ার পর উপাচার্য অধ্যাপক ড. শেখ আবদুস সালাম, উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মাহবুবুর রহমান, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. আলমগীর হোসেন ভূঁইয়া, প্রক্টর অধ্যাপক ড. জাহাঙ্গীর হোসেনসহ অন্যরা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল পরিদর্শনে যান।

হল পরিদর্শন শেষে উপাচার্য অধ্যাপক ড. শেখ আবদুস সালাম বলেন, ‘আজ আমার বাগানটা পরিপূর্ণ হলো। এতোদিন ফুল ছাড়া শুধু বাগান ছিল। শিক্ষার্থীদের পেয়ে আজ আমার দায়িত্বের পরিপূর্ণতা অনুভব করছি। আমি অনুরোধ করবো শিক্ষার্থীরা যেন নিজ দায়িত্বে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলে।’

২০২০ সালের ১৮ মার্চ থেকে করোনার কারণে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করা হয়। সেই সঙ্গে বন্ধ করে দেওয়া হয় বিশ্ববিদ্যালয়ের হলও।

সূত্রঃজাগো নিউজ

আর আই

Back to top button