জাতীয়

জোট ছাড়া প্রসঙ্গে যা বলছে বিএনপি

ঢাকা, ০২ অক্টোবর – সরকারের চাপেই বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের দলগুলো জোট ছাড়ছে বলে দাবি করেছে দলটি। বিএনপি বলছে, সরকার ২০ দলীয় জোটের দলগুলোকে চাপ ও প্রলোভন দিয়ে জোট থেকে বের করে নিয়ে যাচ্ছে।

শুক্রবার বিকেলে এক সংবাদ সম্মেলন থেকে জোট ছাড়ার ঘোষণা দিয়েছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের অন্যতম শরিক দল খেলাফত মজলিস।

এর আগে খেলাফত মজলিস তাদের কেন্দ্রীয় ও জেলা পর্যায়ের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকদের নিয়ে প্রায় দুই ঘণ্টাব্যাপী বৈঠক করে। বৈঠকে প্রায় দুই শতাধিক সদস্য অংশ নেন।

সংবাদ সম্মেলনে খেলাফত মজলিসের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, ২০১৯ সালের ২৫ জানুয়ারি খেলাফত মজলিস শুরার অধিবেশনে বিশেষ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। যা পরবর্তী সিদ্ধান্তের পূর্ব পর্যন্ত খেলাফত মজলিস জোটের কার্যক্রমে অংশগ্রহণ না করে রাজনৈতিক পরিস্থিতি গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করবে। সে অনুযায়ী দীর্ঘ দুই বছরের অধিক সময় ধরে রাজনৈতিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে আসছে।

রাজনৈতিক জোট ইস্যু কেন্দ্রিক গঠিত হয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, জোট স্থায়ী বিষয় নয়। দীর্ঘ ২২ বছর যাবৎ খেলাফত মজলিস ২০ দলীয় জোটে আছে। কিন্তু ২০১৮ সালে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠনের মধ্য দিয়ে ২০ দলীয় জোটকে কার্যত রাজনৈতিকভাবে অকার্যকর করা হয়। তাই আদর্শিক, সাংগঠনিক ও রাজনৈতিক পরিস্থিতি বিবেচনায় খেলাফত মজলিস একটি আদর্শিক রাজনৈতিক সংগঠন হিসেবে সক্রিয় স্বতন্ত্র এবং বৈশিষ্ট্য নিয়ে ময়দানে ভূমিকা রাখবে। এখন থেকে ২০ দলীয় জোটসহ সকল রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সম্পর্ক ত্যাগ করছে খেলাফত মজলিস।

মজলিসের জোট ছাড়ার পেছনে সরকারকে দায়ী করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, জোট ছাড়ার সবচেয়ে বড় কারণ সরকারের পক্ষ থেকে দলগুলোর প্রতি চাপ। আর দলগুলোর মধ্যেও বিরোধ রয়েছে। কারণ একটি অংশ জোট থেকে চলে গেলেও অন্য অংশটি বিএনপির সঙ্গে রয়েছে।

বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় দপ্তরের দায়িত্বপ্রাপ্ত সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্সও জোট ছাড়ার পেছনে সরকারকে দায়ী করেছেন। তিনি বলেন, এর আগে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে এসে ২০ দলীয় জোটের শরিক দল জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের একটি অংশ জোট ছাড়ার ঘোষণা দিয়েছিলো। আজ আবার খেলাফত মজলিস দিলো। আমার মতে, খেলাফত মজলিসের জোট ছাড়া তারই বহিঃপ্রকাশ। কারণ তাদের নেতা (খেলাফত মজলিস) জেলে আছে। হয়তো বলেছে, তোমরা জোট ছাড়ো- তোমাদের নেতাকে ছেড়ে দেবো।

সূত্র : বাংলাদেশ জার্নাল
এন এইচ, ০২ অক্টোবর

Back to top button