যূক্তরাষ্ট্র

যুক্তরাষ্ট্রে মানবপাচারের দায়ে বাংলাদেশি নাগরিক দণ্ডিত

ওয়াশিংটন, ২৯ সেপ্টেম্বর – যুক্তরাষ্ট্রে মানবপাচারের দায়ে এক বাংলাদেশিকে প্রায় চার বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন স্থানীয় একটি আদালত। মো. মিলন হোসাইন (৪১) নামে ওই ব্যক্তি আন্তর্জাতিক মানবপাচারকারী চক্রের সদস্য বলে অভিযোগ করা হয়েছে। মঙ্গলবার (২৮ সেপ্টেম্বর) মার্কিন বিচার বিভাগের এক বিবৃতিতে এসব তথ্য জানা গেছে।

আদালতের নথি অনুসারে, ৪৬ মাসের কারাদণ্ডপ্রাপ্ত মিলন বাংলাদেশের নাগরিক। তিনি আগে মেক্সিকোর তাপাচুলা এলাকায় থাকতেন। সেসময় বাংলাদেশ, মেক্সিকো এবং দক্ষিণ ও মধ্য আমেরিকার দেশগুলো থেকে বিপুল সংখ্যক মানুষকে যুক্তরাষ্ট্র সীমান্তে পৌঁছে দিয়েছেন মিলন। এর বিনিময়ে হাতিয়ে নিয়েছেন মোটা অংকের অর্থ।

তাপাচুলায় একটি হোটেল চালাতেন মিলন হোসাইন। সেখানেই রাখা হতো যুক্তরাষ্ট্র প্রবেশের অপেক্ষায় থাকা মানুষজনকে। এসব অভিবাসনপ্রত্যাশীকে প্লেনের টিকিটসহ অন্যান্য সহযোগিতা দিয়ে মেক্সিকোর যুক্তরাষ্ট্র সীমান্তবর্তী শহর মন্টেরিতে পাঠাতেন মিলন। সেখান থেকে তাদের অবৈধভাবে যুক্তরাষ্ট্র প্রবেশে সাহায্য করতেন মিলনের সহযোগী মোক্তার হোসাইন।

মার্কিন বিচার বিভাগের অপরাধ বিভাগের সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল কেনেথ এ পোলাইট জুনিয়র বলেন, মানবপাচারের এ ষড়যন্ত্র বৈশ্বিক মাত্রায় পরিচালিত হতো এবং এটি বাংলাদেশি অভিবাসনপ্রত্যাশীদের জীবন বিপন্ন করে তুলেছিল।

তিনি বলেন, মিলনের মতো মানবপাচারকারীদের বিচারের আওতায় আনতে এবং সারা বিশ্ব থেকে অবৈধ অভিবাসীদের যুক্তরাষ্ট্রে নিয়ে আসার অপরাধী নেটওয়ার্কগুলো বিচ্ছিন্ন করতে মার্কিন বিচার বিভাগ দেশ-বিদেশে আইন প্রয়োগকারী অংশীদারদের সঙ্গে কাজ অব্যাহত রাখবে।

টেক্সাস সাউদার্ন ডিস্ট্রিক্টের (এসডিটিএক্স) ভারপ্রাপ্ত সহকারী মার্কিন অ্যাটর্নি জেনিফার বি লোয়ারি বলেন, এমন অপরাধীদের কাছে জীবনের চেয়ে মুনাফার দাম বেশি। তিনি বলেন, মিলনের মতো মানবপাচারকারীরা প্রায়ই অভিবাসনপ্রত্যাশীদের বিপজ্জনক পরিস্থিতিতে ফেলেন। তাতে অনেকে গুরুতর আঘাত, এমনকি মৃত্যুর দিকেও ধাবিত হন। এসডিটিএক্স এ সমস্যার সঙ্গে অপরিচিত নয়, তারা এই যুদ্ধে কঠোরভাবে এগিয়ে যাবে। কেবল পরিবহনকারীদেরই নয়, পাচারের পথে যারা সহায়তা করেছিল, তাদের জবাবদিহি করবে।

এম ইউ/২৯ সেপ্টেম্বর ২০২১

Back to top button