এশিয়া

মিয়ানমারে বিদ্রোহীদের ওপর সামরিক জান্তার বিমান হামলা

নেপিডো, ২৭ সেপ্টেম্বর – মিয়ানমারের সাগাইং এলাকায় বিদ্রোহীদের লক্ষ্য করে বিমান হামলা চালিয়েছে দেশটির ক্ষমতাসীন সামরিক বাহিনী। দেশটির অনেক জেলায় ইন্টারনেট সংযোগ, ফোনের নেটওয়ার্ক বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

গত ১ ফেব্রুয়ারি অং সান সু চি সরকারকে হটিয়ে মিয়ানমারে ক্ষমতায় আসে দেশটির সামরিক বাহিনী। এরপর দেশব্যাপী বিক্ষোভ করেন সু চি সমর্থকরা। এ সময় গুলিতে কয়েকশ’ সু চি সমর্থক নিহত হন।

সামরিক জান্তা সরকার ক্ষমতায় আসার পর মিয়ানমারের বিভিন্ন অংশে সক্রিয় সশস্ত্র গোষ্ঠিগুলো আরও বেশি আগ্রাসী হয়ে ওঠে। তাদের ঠেকাতে বিভিন্ন জেলায় অব্যহতভাবে অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে মিয়ানমারের সেনা বাহিনী।

এ রকমই একটি সংগঠন পিডিএফ, যারা জান্তা সরকারের বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে। দিল্লিভিত্তিক সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির খবরে বলা হয়, পিডিএফের এক সদস্য নিশ্চিত করেছেন যে, বিমান হামলা হয়েছে। তবে সংগঠনটির কেউ হতাহত হননি।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে তিনি জানান, ইন্টারনেট ও ফোন সংযোগ বিচ্ছিন্ন থাকার কারণে কারো সঙ্গে যোগাযোগ করা যাচ্ছে না। এসব দাবি নিশ্চিত করতে পারেনি বার্তাসংস্থা রয়টার্স। এ নিয়ে মিয়ানমারের সামরিক জান্তা সরকার কোনো মন্তব্য করেনি।

মিয়ানমারের জান্তা সরকারের বিপরীতে গঠিত দেশটির জাতীয় ইউনিটি সরকারের (এনইউজি) বলছে, লড়াই চলাকালে তারা গ্রেনেড, ছোটখাটো অস্ত্র, গোলা উদ্ধার করা হয়েছে। তাদের দাবি, লড়াইয়ে অন্তত ২৫ জন কর্মকর্তা নিহত হয়েছেন।

সম্প্রতি সাগাইংসহ মিয়ানমারের কয়েকটি এলাকায় জান্তা সরকারের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ বেড়েছে। এসব এলাকায় অভিযান চালানোর আগে সামরিক বাহিনী ফোন ও ইন্টারনেট সংযোগ বন্ধ করে দেয়।

বৃহস্পতিবার সামরিক বাহিনী মিয়ামারের চিন প্রদেশ ও মাগওয়া অঞ্চলের সংঘাতপূর্ণ ১১টি এলাকায় ইন্টারনেট সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয়।

গত সপ্তাহে সংঘাতের জেরে ভারতের সীমান্ত লাগোয়া চিন প্রদেশের থানল্যাং শহর ছেড়ে পালিয়ে যান হাজার হাজার মানুষ। সে সময়ে সংঘাতে একজন খ্রিস্টান যাজকও নিহত হন।

সূত্র: বাংলাদেশ জার্নাল
এম ইউ/২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১

Back to top button