বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

ধামাকার চেয়ারম্যান-পরিচালকসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে মামলা

গাজীপুর, ২৬ সেপ্টেম্বর – টাকা নিয়ে পণ্য সরবরাহ না করায় প্রতারণার অভিযোগে ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ধামাকার চেয়ারম্যান ও পরিচালকসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে গাজীপুরের টঙ্গীতে মামলা হয়েছে।

গত বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) টঙ্গী পশ্চিম থানায় মামলাটি করেছেন উত্তর আউচপাড়ার বাসিন্দা ব্যবসায়ী মো. শামীম খান। তিনি পেশায় একজন পোশাক কারখানার পার্টস ব্যবসায়ী।

মামলার আসামিরা হলেন- ধামাক শপিং ডটকমের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এস এম ডি জসিমউদ্দিন চিস্তী (৫৭), চেয়ারম্যান ডা. এম আলী ওরফে মোজতবা আলী (৬০), সিইও সিরাজুল ইসলাম রানা (৩৮), ডিএমডি দেবকর দে শুভ (৩২), পরিচালক অপারেশন নাজিম উদ্দিন আসিফ (২৮), এজিএম হেড অব একাউন্টস সাফোয়ান আহমেদ (৪১), ডেপুটি ম্যানেজার আমিরুল হোসাইন (৪৬), ইঞ্জিনিয়ার আসিফ চিশতী (২৬), সিস্টেম ক্যাটাগারি হেড ইমতিয়াজ হাসান (৩৫), ভাইস প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম স্বপন ওরফে মিথুন খান (৩৫) ও এফসিএ মাইক্রোট্রেড গ্রুপের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিরোধ বরণ রায় (৪৫)।

টঙ্গী পশ্চিম থানার ওসি মো. শাহ আলম মামলার বরাত দিয়ে জানান, গত ২০ মার্চ অনলাইনে ‘ধামাকা শপিং ডটকম’-এর ফেইসবুক পেইজে পণ্য কেনার অফার দেয়। অনলাইনে অফারটি দেখে বাদী ৮৪টি ইনভয়েসের মাধ্যমে ওই প্রতিষ্ঠানের অনুকূলে ১১ লাখ ৫৫ হাজার টাকা পরিশোধ করেন। প্রতিষ্ঠানটি অর্ডার কনফার্ম করে এবং কনফার্ম ইনভয়েস তার জিমেইল আইডিতে পাঠায়।

বাদীর অভিযোগ, প্রতিষ্ঠান থেকে নির্ধারিত ৪৫ দিনেও তার কাছে পণ্য সরবরাহ করেনি। ৫০ দিন পর তিনি হেল্প লাইনে যোগাযোগ করলে তাকে অপেক্ষা করতে বলা হয়। এক মাস অপেক্ষা করার পর তাদের প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং ডিরেক্টর ও ডিরেক্টর (অপারেশন) স্বাক্ষরিত সাউথ ঈস্ট ব্যাংকের ১১ লাখ ৫৫ হাজার টাকার দুইটি চেক বাদীকে দেওয়া হয়। কিন্তু ওই চেক নিয়ে টাকা তুলতে গেলে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ একাউন্টে টাকা নেই বলে জানায়।

এরপর গত ৫ অগাস্ট প্রতিষ্ঠানের সিইও মামলার ৩ নম্বর আসামি মো. সিরাজুল ইসলামের কাছে গেলে তিনি টাকা না দিয়ে বাদীকে উল্টো হুমকি দেন বলেও মামলায় অভিযোগ করা হয়।

অভিযোগে আরওবলা হয়, পরে ৫ সেপ্টেম্বর সকাল সাড়ে ১১টার দিকে অফিসে গিয়ে বাদী তালাবন্ধ দেখতে পান। ​যা থেকে তিনি প্রতারণার শিকার হয়েছেন বলে ধারণা করছেন। তাই টাকা পরিশোধের ইনভয়েজ, ব্যাংকের চেকের ফটোকপিসহ প্রয়োজনীয় কাগজ-পত্র সংগ্রহ করে মামলা করেন তিনি।

দণ্ডবিধির ৪০৬/৪২০/১০৯/৫০৬ ধারায় এই মামলা দায়ের করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে তদন্ত চলছে বলেও জানিয়েছেন ওসি।

সূত্র : বাংলাদেশ জার্নাল
এন এইচ, ২৬ সেপ্টেম্বর

Back to top button