দক্ষিণ এশিয়া

জাতিসংঘে তালেবান সরকারের পক্ষে সমর্থন চাইলেন ইমরান খান

ইসলামাবাদ, ২৫ সেপ্টেম্বর – আফগানিস্তানের জনগণের স্বার্থে দেশটির নতুন সরকারকে স্থিতিশীল ও শক্তিশালী করা প্রয়োজন বলে মন্তব্য করেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। একইসঙ্গে নতুন সরকারকে সমর্থন দিতে বিশ্ব সম্প্রদায়কে জোর আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

শুক্রবার জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে দেওয়া ভাষণে এ আহ্বান জানান তিনি। এক ভিডিও বার্তায় তিনি বলেন, যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশটির অগ্রগতি রক্ষায় সন্ত্রাসীদের অভয়ারণ্য ঠেকাতে তালেবান সরকারকে সমর্থন দেওয়া জরুরি।

আফগান তালেবান সরকার নিজেদের দেওয়া প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করছে উল্লেখ করে ইমরান খান বলেন, মানবাধিকার পরিস্থিতি সমুন্নত রাখা, একটি অন্তর্ভুক্তিমূলক সরকার গঠন এবং আফগানিস্তানের মাটিতে সন্ত্রাসী কার্যক্রমে বাধা দেওয়ার মতো সবগুলো কাজই ঠিকঠাকভাবে করে যাচ্ছে তালেবান সরকার। এছাড়া বিরোধীদের ক্ষমা ঘোষণাও করেছে।

এর বিপরীত কিছু ঘটলে তা ধ্বংসাত্মক পরিণতি ডেকে আনবে বলে সতর্ক করেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী। ‘তালেবান সরকারকে স্বীকৃতি না দেওয়া মানে দেশটিকে আরও অস্থিতিশীল তৈরি করা এবং সন্ত্রাসীদের আস্তানায় পরিণত হবে’।

এর আগে তালেবান কাবুলে কোনো অন্তর্ভুক্তিমূলক সরকার গড়তে ব্যর্থ হলে সেখানে গৃহযুদ্ধ শুরু হতে পারে বলে হুশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

বিবিসিতে সম্প্রচারিত এক সাক্ষাৎকারে নতুন তালেবান সরকার পাকিস্তানের কাছ থেকে আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি পেতে চাইলে যেসব শর্ত মানতে হবে সেগুলো তুলে ধরেন ইমরান খান।

বিবিসি’কে ইমরান খান বলেন, তারা (তালেবান) যদি একটি অন্তর্ভুক্তিমূলক সরকার প্রতিষ্ঠা করতে না পারে তাহলে সেই সংকটের কারণে আফগান ভূখণ্ডে গৃহযুদ্ধ শুরু হতে পারে। তারা (তালেবান) যদি দেশের সকল পক্ষকে সরকারে অন্তর্ভুক্ত করতে না পারে, তাহলে আগে বা পরে এই গৃহযুদ্ধ হবেই। এবং সেটির প্রভাব পাকিস্তানেও পড়বে।

সূত্র : যুগান্তর
এন এইচ, ২৫ সেপ্টেম্বর

Back to top button