ইউরোপ

পেগাসাসের টার্গেটে এবার ফ্রান্সের ৫ মন্ত্রী

প্য়ারিস, ২৪ সেপ্টেম্বর – ইসরায়েলের গোপন নজরদারি সফটওয়্যার পেগাসাসের টার্গেটে ফ্রান্সের অন্তত পাঁচজন মন্ত্রী। তাদের মোবাইলে পেগাসাস সফটওয়্যার পাওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কিছু সূত্র ও একটি গোপন গোয়েন্দা নথির বরাতে অনুসন্ধানী ওয়েবসাইট মিডিয়াপার্ট এসব তথ্য জানিয়েছে। খবর ওয়াশিংটন পোস্টের।

তবে মন্ত্রীদের মোবাইলগুলো যে হ্যাক করা হয়েছে তার কোন প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

ইসরায়েলের সাবেক সাইবার গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের হাত ধরে ২০১০ সালে গড়ে উঠে তেল আবিবভিত্তিক এনএসও গ্রুপ। তাদের তৈরি পেগাসাস স্পাইওয়্যার ব্যবহার করে বিশ্বের অন্তত ৪৫টি দেশে সাংবাদিক, মানবাধিকারকর্মী, রাজনীতিবিদসহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের স্মার্টফোনে আড়ি পাতা হয়েছে বলে জানা যায়।

মিডিয়াপার্ট বলেছে, পেগাসাস ম্যালওয়্যারের উপস্থিতি পাওয়া গেছে ফ্রান্সের শিক্ষা, আঞ্চলিক সংহতি, কৃষি, আবাসন ও বহির্বিশ্ববিষয়ক মন্ত্রীদের মুঠোফোনে। ২০১৯ সালে তাদের ফোনে স্পাইওয়্যারটি দিয়ে নজরদারি শুরু করা হয়। তবে সেই সময় তারা সবাই বর্তমান পোস্টে ছিলেন না।

এদিকে বৃহস্পতিবার রাতে এক বিবৃতিতে এনএসও বলেছে, ‘ফরাসি কর্মকর্তাদের নিয়ে আমরা আমাদের ইতিপূর্বে দেওয়া বক্তব্যে অটল রয়েছি। তারা পেগাসাসের লক্ষ্যবস্তুতে নেই ও কখনো ছিলেন না। আমরা অজানা সূত্রের বরাতে প্রকাশিত খবর নিয়ে কোনো মন্তব্য করতে চাই না।’

এনএসও গ্রুপের দাবি, গুরুতর অপরাধ ও সন্ত্রাস প্রতিরোধের বাইরে পেগাসাস সফটওয়্যারকে কাজে লাগানোকে তারা এর অপব্যবহার হিসেবে বিবেচনা করে। চুক্তিতেও এর উল্লেখ রয়েছে। প্রতিষ্ঠানটি আরও দাবি করেছে, কোনো ধরনের অপব্যবহার ধরতে পারলে তারা ব্যবস্থা নিয়ে থাকে। এই প্রযুক্তির মূল লক্ষ্য মানবাধিকার রক্ষা। যার মধ্যে রয়েছে মানুষের জীবনযাপনের অধিকার, নিরাপত্তা, ব্যক্তির চলাচলের স্বাধীনতা।

এনএসও গ্রুপের একজন মুখপাত্র বলেন, বিশ্বজুড়ে লাখ লাখ মানুষ এই সফটওয়্যারের কল্যাণে রাতে ভালোমতো ঘুমাচ্ছে ও রাস্তায় নিরাপদে চলাচল করছে। এর আগে ১৭টি আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম একযোগে সংবাদ প্রকাশ করেছে যে, বিভিন্ন ব্যক্তির ফোনে আড়ি পেতে তাদের তথ্য ইসরায়েলি গোয়েন্দা কর্মকর্তারা হাতিয়ে নেয় পেগাসাস সফটওয়্যারের মাধ্যমে।

সূত্র: সমকাল
এম ইউ/২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১

Back to top button