পশ্চিমবঙ্গ

বাবুলের দলবদলে কটাক্ষ কবীর সুমনের

কলকাতা, ১৯ সেপ্টেম্বর – বাবুল সুপ্রিয়র (Babul Supriyo) তৃণমূলে যোগদান বাংলার রাজনৈতিক মহলে প্রায় বিনা মেঘে বজ্রপাতের মতোই। তা নিয়ে তুমুল চর্চা শুরু হয়েছে বিভিন্ন মহলে। সোশ্যাল মিডিয়ায় আপাতত হটকেক বাবুল সুপ্রিয়। রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বের পাশাপাশি বাবুল সুপ্রিয় যেহেতু সংস্কৃতি জগতের এক প্রতিনিধি, সেহেতু সাংস্কৃতিক মহলের একাংশেও এ নিয়ে আলোচনা তুঙ্গে। এবার বাবুলের দলবদলের পর তাঁকে নিয়ে মুখ খুললেন প্রাক্তন তৃণমূল সাংসদ তথা সংগীতকার কবীর সুমন (Kabir Suman)। ফেসবুকে একাধিক পোস্ট করে তিনি যদিও বাবুলকে রাজনৈতিকভাবেই আক্রমণ শানিয়েছেন। লিখেছেন, ”আমি রাজনীতির লোক নই। রাজনীতিতে থেকে দেখেছি ওটা আমার জায়গা নয়। তবু, আজ জীবনে প্রথম মনে হচ্ছে একটা দল খুলি।”

বাবুল সুপ্রিয়র সঙ্গে কবীর সুমনের সম্পর্ক কিছু এযাবৎকালে বিশেষ কিছু শোনা যায়নি। উভয়ের একত্রে কাজেরও বিশেষ নজির নেই। সৃজিত মুখোপাধ্যায়ের সিনেমা ‘রাজকাহিনী’তে অবশ্য সংগীত পরিচালক কবীর সুমনের একটি গানের ছোট্ট একাংশ গেয়েছিলেন বাবুল। তবে তাঁদের মধ্যে কাজ বা রাজনীতি নিয়ে কোনওরকম সংঘাতের খবর না থাকলেও সখ্যও বিশেষ ছিল না। এবার বাবুলের তৃণমূলে (TMC)আসার পর সংঘাতের দিক খানিকটা বাড়ল। ফেসবুক (Facebook) পোস্টে বাবুল সুপ্রিয়র প্রতি ক্ষোভ কার্যত উগরে দিলেন কবীর সুমন। এর আগে বাবুল তাঁকে কীভাবে পরোক্ষে কটাক্ষ করেছিলেন, তা উল্লেখ করে পালটা দিয়েছেন সংগীতকার।

ফেসবুক পোস্টে কবীর সুমনের শ্লেষ, “শুধু ‘আপনার মমতাময়ী’ বলে গায়ে পড়ে বিদ্রুপ করা এই মুসলিমবিদ্বেষী, এনআরসি পন্থী, বাংলা ও বাঙালি বিদ্বেষী বাবুল সুপ্রিয় মহোদয় এখন ‘তাঁর মমতাময়ী’ সম্পর্কে কী ভাবছেন, তৃণমূলে তাঁর কাছের মানুষরা হয়ত জানতে চাইছেন।” আক্রমণের ঝাঁজ বাড়িয়ে তিনি আরও লিখেছেন, “আমার বয়স হয়ে গেছে, কিন্তু এখনও দুর্বল নই। এবং আমি একা নই। যা পেয়েছি তা ফেরত দিয়ে তবে মরব।” ফেসবুক পোস্টে কবীর সুমন এও উল্লেখ করেন, কীভাবে তাঁকে বাবুল সুপ্রিয় ‘স্রেফ গায়ে পড়ে অপমান’ করেছিলেন। কিন্তু সেসময় সংগীতকার তাঁকে পালটা ‘অপমানে’র পথে হাঁটেননি। এবার সেসবই ফিরিয়ে দিচ্ছেন বলেও পোস্টে স্পষ্ট করে দিয়েছেন। কারণ, কবীর সুমন স্পষ্ট লিখেছেন, ”আদ্যন্ত শ্রীরামকৃষ্ণবাদী এই আমি মনে করি ছোবল মারব না, কিন্তু ফোঁস করব বৈকি।”

কবীর সুমনের এই ‘ফেসবুক’ আক্রমণ নিয়ে রবিবার সাংবাদিক বৈঠকে বাবুল বললেন, ”এটা ওঁর ব্যক্তিগত মত, যা ইচ্ছে হয়েছে, তাই বলেছেন। আমার ফোনে ফেসবুক, টুইটার নেই। আমি কিছু বলব না এসব নিয়ে।” তবে রাজনীতির বাইরেও যে বাবুল সুপ্রিয়র এহেন কার্যকলাপ নিয়ে বেশ আলোচনা চলছে, সোশ্যাল মিডিয়ার পাতায় চোখ রাখলেই তা বোঝা যাচ্ছে। কবীর সুমনের মতো রাজনীতির সঙ্গে সামান্য যুক্ত সংস্কৃতি জগতের মানুষজন তাঁকে নিয়ে আর কোনও প্রতিক্রিয়া দেন কি না, সেদিকে অবশ্যই নজর থাকছে সবমহলের।

সূত্র : সংবাদ প্রতিদিন
এন এইচ, ১৯ সেপ্টেম্বর

Back to top button