জানা-অজানা

বিশ্বের সবচেয়ে লম্বা জাতি খাটো হচ্ছে

নেদারল্যান্ডসের বাসিন্দারা দীর্ঘদিন ধরেই বিশ্বের সবচেয়ে লম্বা জাতি, কিন্তু তারা খাটো হচ্ছেন বলে জানিয়েছেন দেশটির গবেষকরা।

গত ১০০ বছর ধরে তাদের উচ্চতা বাড়লেও গবেষণায় দেখা গেছে, ২০০১ সালে জন্ম নেওয়া ওলন্দাজ পুরুষরা ১৯৮০-তে জন্ম নেওয়াদের চেয়ে এক সেন্টিমিটার খাটো। নারীদের ক্ষেত্রে এই পার্থক্য আরও বেশি, এক দশমিক চার সেন্টিমিটার।

দেশটির ১৯৮০-র প্রজন্মই সম্ভবত সবচেয়ে লম্বা হয়েছিল, ওলন্দাজদের উচ্চতা বাড়তে বাড়তে ওই সময় অনেকটা বৃদ্ধি পেয়েছিল।

১৯৮০ সালে জন্ম নেওয়া নেদারল্যান্ডের পুরুষদের গড় উচ্চতা ছিল ১৮৩ দশমিক ৯ সেন্টিমিটার, তারা ১৯৩০ সালে জন্ম নেওয়াদের চেয়ে ৮ দশমিক ৩ সেন্টিমিটার বেশি লম্বা ছিলেন। ১৯৮০ সালে জন্ম নেওয়া নারীরাও উল্লেখযোগ্যরকম লম্বা ছিলেন, তাদের উচ্চতা ছিল ১৭০ দশমিক ৭ সেন্টিমিটার আর ১৯৩০ সালে জন্ম নেওয়া নারীদের উচ্চতা ছিল ১৬৫ দশমিক ৪ সেন্টিমিটার।

স্টাটিস্টিকস নেদারল্যান্ডস, মিউনিসিপ্যাল হেলথ সার্ভিস (জিজিডি) এবং ন্যাশনাল ইনস্টিটিউ ফর পাবলিক হেলথের (আরআইভিএম) মিলিতভাবে করা গবেষণায় নেদারল্যান্ডসে জন্ম নেওয়া ১৯ থেকে ৬০ বছর বয়সী সাত লাখ ১৯ হাজার ব্যক্তির তথ্য বিশ্লেষণ করা হয়েছে, তারা তাদের উচ্চতার মাপ নিজেরাই জানিয়েছেন। ১৯ বছর বয়সীদের গড় উচ্চতাকে মান হিসেবে ব্যবহার করে বিশ্লেষণটি করা হয়েছে।

উচ্চতা কমে যাওয়ার কারণের সঙ্গে খাটো জনগোষ্ঠী থেকে আসা অভিবাসীর ক্রমবর্ধমান মাত্রা আংশিকভাবে সম্পর্কিত বলে জানিয়েছেন গবেষকরা। কিন্তু যাদের বাবা-মা উভয়েরই জন্ম নেদারল্যান্ডসে তাদের উচ্চতাও কমে যাচ্ছে, এমনকী যাদের চার প্রজন্মের সবার জন্ম ওলন্দাজের গর্ভে তাদেরও।

যেসব ওলন্দাজ পুরুষের পরিবারে অভিবাসনের ইতিহাস নেই তাদের উচ্চতা বাড়তে দেখা যায়নি, আর পরিবারে কোনো অভিবাসন ঘটেনি এমন ওলন্দাজ নারীদের উচ্চতা কমেছে।

গত ৭০ বছর ধরে উচ্চতা বাড়ায় ওলন্দাজরা উচ্চতায় বিশ্বের অন্যান্যদের ছাড়িয়ে গেছে।

দেশটির ১৯৩০-৩৪ প্রজন্মের প্রায় তিন শতাংশ অন্তত ১৯০ সেন্টিমিটার লম্বা ছিল আর ২০২০ সালে অন্তত ১৯০ সেন্টিমিটার ২০ শতাংশেরও বেশি, এ সময় সাত শতাংশের উচ্চতা ১৯৫ সেন্টিমিটারেরও বেশি পাওয়া গেছে।

১৯৫০ এর দশকে ৪২ শতাংশ তরুণ ১৭৫ সেন্টিমিটারের চেয়ে খাটো ছিল কিন্তু ২০২০ সালে ওই সংখ্যা নেমে মাত্র ১২ শতাংশে দাঁড়িয়েছে।

ওই একই প্রজন্মের নারীদের ক্ষেত্রে ১৯৩০-৩৪ এ দুই শতাংশেরও কম ১৮০ সেন্টিমিটার উচ্চতায় পৌঁছেছিল আর ১৯৮০-তে জন্ম নেওয়া প্রায় ১০ শতাংশ উচ্চতায় অন্তত ১৮০ সেন্টিমিটার ছিল।

তবে নেদারল্যান্ডের সব জায়গার চিত্র একরকম নয়। দেশটির উত্তর ও দক্ষিণাঞ্চলের মধ্যে বড় ধরনের পার্থক্য দেখা গেছে। দক্ষিণাঞ্চলের তুলনায় উত্তরের বাসিন্দারা ৩ থেকে সাড়ে ৩ সেন্টিমিটার বেশি লম্বা।

আগের তুলনায় খাটো হতে থাকলেও ওলন্দাজরা বিশ্বের সবচেয়ে লম্বা লোকের খেতাব হারায়নি বলে জোর দিয়ে বলেছেন গবেষকরা। যারা এই সহস্রাব্দে জন্মেছেন তারা এখনও ওই অবস্থান ধরে রেখেছেন। ১৯৫০ দশকের শেষ দিকে জন্ম নেওয়া প্রজন্ম প্রথম এই খেতাব অর্জন করেছিল বলে ধারণা পাওয়া গেছে।

ওলন্দাজরা কেন এত লম্বা অনেক বছর ধরেই তার কারণ বের করা চেষ্টা করছিলেন গবেষকরা। গবেষণা থেকে ধারণা পাওয়া গেছে, বিষয়টি সম্ভবত প্রাকৃতিক নির্বাচনের ওপর নির্ভর করে আর লম্বা লোকজনের বেশি সন্তান থাকে এবং উত্তর প্রজন্মও তাদের জিন বহন করে।

চলতি বছরের আবিষ্কারেই ওলন্দাজদের উচ্চতা কমার ধারণা প্রথমবারের মতো পাওয়া গেছে এমন নয়, আগের গবেষণাগুলো থেকেও ধারণা পাওয়া যাচ্ছিল, উদ্ভিদভিত্তিক খাদ্য বেশি মনোযোগ দেওয়া ও ‘উচ্চতা বৃদ্ধির পরিবেশগত কারণগুলোর’ স্থিতিশীলতার জন্য তাদের উচ্চতা কমে যেতে পারে।

এম এস, ১৯ সেপ্টেম্বর

Back to top button