সচেতনতা

ডেলটা ধরন মহামারির শেষ ধাপ কি না, নিশ্চিত নয়

দেশের প্রায় ৬০ শতাংশ মানুষের শরীরে করোনা প্রতিরোধক অ্যান্টিবডি তৈরি হয়ে যাওয়ায় সংক্রমণ কমে গেছে বলে জানিয়েছেন এ বছর র‍্যামন ম্যাগসাইসাই পুরস্কারপ্রাপ্ত বাংলাদেশী বিজ্ঞানী ড. ফেরদৌসী কাদরী। শুক্রবার সকালে দেশ ও বিদেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমের সঙ্গে এক অনলাইন সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন তিনি। তবে, অধিক সংক্রামক ডেলটা ধরনের মাধ্যমেই এবারের করোনা মহামারি শেষ হবে কিনা তা নিশ্চিত নয়; সামনের দিনে নতুন ধরনও আসতে পারে বলে জানান তিনি।

এ বছর দক্ষিণ এশিয়ার নোবেল হিসেবে পরিচিত র‍্যামন ম্যাগসাইসাই পুরস্কার পেয়েছেন বাংলাদেশের বিজ্ঞানী ডক্টর ফেরদৌসী কাদরী। গবেষণার মাধ্যমে চিকিৎসা বিজ্ঞানে বিশেষ অবদান রাখায় এই পুরস্কার পান তিনি। আজ সকালে দেশ-বিদেশের গণমাধ্যমের সঙ্গে অনলাইনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে কথা বলেন ড. ফেরদৌসী কাদরী। সংবাদ সম্মেলনে নিজের জীবন ও গবেষণার বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলেন তিনি। সংবাদ সম্মেলনে তাঁর কাছে প্রশ্ন ছিল বাংলাদেশের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে।

‘দেশের প্রায় ৬০ শতাংশ মানুষের শরীরের করোনা প্রতিরোধক অ্যান্টিবডি তৈরি হয়ে গেছে। কোভিড-১৯ নিয়ে আমরা অনেক গবেষণা করেছি ও করছি। কয়েক দিনের মধ্যেই বাংলাদেশে এই ভাইরাসের ছড়িয়ে যাওয়ার বিষয় নিয়ে একটি গবেষণা প্রতিবেদন আরেকটি আন্তর্জাতিক জার্নালে প্রকাশিত হবে। তবে, অধিক সংক্রামক ডেলটা ধরনই কি এবারের মহামারির শেষ ধাপ কি না, তা আমি নিশ্চিত নই। সামনে আরও নতুন ধরনও আসতে পারে।’

তাহলে বাংলাদেশের মানুষ এখন কী করবে?—সংবাদ সম্মেলনে সে পরামর্শও দেন ড. কাদরী, ‘বাংলাদেশের আয়তন অনুযায়ী জনসংখ্যা বেশি। রাজধানী ঢাকায় তা আরও বেশি। আমি মনে করি করোনার সংক্রমণ প্রতিরোধে সরকার অনেক কাজ করছে। তবে, এখনও ঘরের বাইরে মানুষজনকে মাস্ক পরতেই হবে। মানুষে মানুষে দূরত্ব বজায় রাখতে হবে এবং কিছুক্ষণ পরপর সাবান দিয়ে হাত ধুতে হবে। আর, শেষ কথা হচ্ছে টিকা নিতেই হবে।’

বাংলাদেশের অনেকেই এখন অনেক বাধা পেরিয়েও গবেষণায় গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা রাখছে বলেও জানান ড. কাদরী।

এন এইচ, ১৭ সেপ্টেম্বর

Back to top button