জাতীয়

পালিয়ে ভারতে গিয়ে গ্রেফতার সেই পুলিশ কর্মকর্তা বরখাস্ত

কলকাতা, ০৬ সেপ্টেম্বর – গ্রাহকের টাকা আত্মসাতের অভিযোগের মুখে পালিয়ে ভারতে গিয়ে আটক হওয়া ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ই-অরেঞ্জের সঙ্গে সম্পৃক্ত বনানী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সোহেল রানাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।
রোববার সন্ধ্যায় সোহেল রানাকে সাময়িক বরখাস্তের আদেশ হয়েছে বলে গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গুলশান বিভাগের উপকমিশনার আসাদুজ্জামান।

সোহেল রানাকে শুক্রবার পশ্চিমবঙ্গের কোচবিহার জেলার চ্যাংরাবান্ধা সীমান্ত থেকে অবৈধ অনুপ্রবেশের দায়ে আটক করে ভারতীয় সীমান্ত রক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) সদস্যরা।

ভারতে আটক ই-অরেঞ্জের পৃষ্ঠপোষক সোহেল রানা

উপকমিশনার আসাদুজ্জামান গণমাধ্যমকে জানান, ভারতে অনুপ্রবেশের পর আটকের খবর সে দেশের বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে প্রকাশ হওয়া ছাড়াও নিজ কর্মস্থলে অনুমতি ছাড়া অনুপস্থিতির কারণে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। এছাড়া তার বিরুদ্ধে একটি নিয়মিত মামলাও হয়েছে। সেটি তদন্ত করা হবে।

পণ্যের নগদ টাকা পরিশোধের পরেও মাসের পর মাস পণ্য না পাওয়ায় ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ই-অরেঞ্জের বিরুদ্ধে গত আগস্টে প্রতারণার মামলা দায়ের করা হয়। মামলায় এক হাজার ১০০ কোটি টাকা প্রতারণামূলকভাবে আত্মসাতের অভিযোগ আনা হয়। মো. তাহেরুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তি ভুক্তভোগী ২৯ জন গ্রাহকের পক্ষ ​ওই মামলা করেন।

এদিকে গ্রাহকদের ৭৬ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে আরও একটি মামলা হয়েছে। মামলায় সোহেল রানাসহ ১০ জনকে আসামি করা হয়েছে।

মামলার অপর আসামিরা হলেন- প্রতিষ্ঠানটির মালিক সোনিয়া মেহজাবিন, তার স্বামী মাসুকুর রহমান, প্রতিষ্ঠানটির চিফ অপারেটিং অফিসার (সিওও) আমান উল্লাহ, নাজনিন নাহার বিথি, কাওসার, কামরুল হাসান, আব্দুল কাদের, নূরজাহান ইসলাম সোনিয়া ও রুবেল খান।

বর্তমানে ই-অরেঞ্জের মালিক সোনিয়া মেহজাবিন ও তার স্বামী মাশুকুর রহমানসহ তিনজন কারাগারে। এজাহারভুক্ত বীথি আক্তারসহ দুজন পলাতক রয়েছেন।

সূত্র: বাংলাদেশ জার্নাল
এম ইউ/০৬ সেপ্টেম্বর ২০২১

Back to top button