আফ্রিকা

মরক্কো ও ইসরায়েলের মধ্যে তিন চুক্তি

রাবাত, ১২ আগস্ট – ডিসেম্বরে মরক্কো ও ইসরায়েলের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্ক শুরু হয়েছে। গত মাসের শেষ দিকে সরাসরি বিমান যোগাযোগও চালু হয়।

এখন পর্যন্ত সর্বশেষ পদক্ষেপ হিসেবে বৃহস্পতিবার মরক্কোতে নিজেদের দূতাবাস উদ্বোধন করবেন ইসরায়েলের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ইয়াইর লাপিদ।

ইতিমধ্যে দুই দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর মধ্যে দীর্ঘ বৈঠক হয়েছে। সেখানে তিনটি চুক্তি সইও হয়েছে।

এতে রয়েছে মরক্কো ও ইসরায়েলের মধ্যে বিমান চলাচল সংক্রান্ত চুক্তি এবং ক্রীড়া, যুব ও সংস্কৃতির ক্ষেত্রে সহযোগিতার চুক্তি।

তারা একটি সমঝোতাপত্রেও সই করেন। সেখানে দুই দেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মধ্যে আলোচনার মেকানিজম তৈরির কথা বলা রয়েছে।

সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের আমলে ইসরায়েল ও মরক্কোর মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্ক চালু করা নিয়ে চুক্তি হয়। তখন পশ্চিম সাহারার ওপর মরক্কোর সার্বভৌমত্ব মেনে নেয় যুক্তরাষ্ট্র।

মরক্কোর পররাষ্ট্রমন্ত্রী নাসের বাউরিটা জানিয়েছেন, ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক আরও বৃদ্ধি পেলে তাদের আর্থিক ক্ষেত্রে লাভ হবে। তার অনুরোধ ইসরায়েলের পররাষ্ট্রমন্ত্রী যেন টু-স্টেট সমাধান মেনে ফিলিস্তিনের সঙ্গে বিরোধ মিটিয়ে নেন।

লাপিদের এই সফর কূটনৈতিকভাবে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ২০২৩ সালে লাপিদেরই প্রধানমন্ত্রী হওয়ার কথা। বেনেটের সঙ্গে জোট নিয়ে এ রকমই চুক্তি হয়েছে লাপিদের।

২০০০ সালে রাবাতের ফিলিস্তিনের পক্ষে অবস্থান গ্রহণের পর থেকেই ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্কে জটিলতা বাড়ে, যা গত বছর নতুন দিকে মোড় নেয়।

সূত্র : দেশ রূপান্তর
এন এইচ, ১২ আগস্ট

Back to top button