ফুটবল

মেসিও নেই, লা লিগার আকর্ষণ থাকবে তো?

বার্সেলোনা চুক্তি করতে পারল না, লিওনেল মেসির সঙ্গে ইতি হলো ২১ বছরের সম্পর্কের। বলা যায়, শেষ হলো একটি যুগের, যেটা হতে পারত ফুটবল থেকে তার অবসর নেওয়ার ঘোষণায়। কিন্তু পিএসজিতে গিয়ে মেসি নতুন অধ্যায় শুরু করলেন। ভাবা যায়? ‘এলএমটেন’ এখন অন্য ক্লাবে গিয়ে হয়েছেন ‘এলএমথার্টি‘! ৩০ নম্বর জার্সিতে নতুন মেসিকে পুরোনো ফর্মে দেখা যাবে কি না সেই উত্তর মিলবে কয়েক দিনের মধ্যে। কিন্তু তার চলে যাওয়া লা লিগার ওপর কেমন প্রভাব ফেলবে, সেই ভাবনা এড়িয়ে যাওয়ার সুযোগ নেই।

লা লিগা ছেড়ে তো বহু তারকাই গেছেন অন্য কোনো শীর্ষ লিগে! ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো ২০১৮ সালে রিয়াল মাদ্রিদের সঙ্গে ৯ বছরের সম্পর্ক চুকিয়ে চলে যান ইতালির তৎকালীন চ্যাম্পিয়ন জুভেন্টাসে। তারও এক বছর আগে বার্সা মাতিয়ে নেইমার বিশ্বের সবচেয়ে দামী ফুটবলারের মর্যাদা নিয়ে পাড়ি জমান পিএসজিতে। তাতে অনেক ভক্ত কষ্ট পেলেও লা লিগার রঙ হারানো নিয়ে সংশয়কারীদের সংখ্যা ছিল খুবই কম। হয়তো বুকের এক কোণে চিনচিনে ব্যথা ঠিকই হচ্ছিল, কিন্তু মেসি চলে যাওয়ায় সেটা আরো বেড়ে গেছে নিঃসন্দেহে।

বার্সার দুই আইকন আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা ও জাভি হার্নান্দেজই তো মানতে পারছেন না মেসি বার্সা ছেড়ে অন্য ক্লাবে। ইনিয়েস্তা বললেন, ‘অন্য ক্লাবের (পিএসজি) মেসি খেলছে, এটা দেখতে কষ্ট লাগবে।’ আর জাভিরও একই কথা, ‘মেসি বার্সেলোনায় খেলবে না, এটা খুবই দুঃখজনক।’ বাংলাদেশের ক্রিকেট তারকা উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম বলেছিলেন, ‘মেসিকে বার্সেলোনা ছাড়তে দেখে কষ্ট হচ্ছে। জানি না কার জন্য বার্সেলোনার খেলা দেখব।’

রোনালদো-নেইমার চলে যাওয়ার পর লা লিগা রঙ হারিয়েছে সত্যি, কিন্তু তা মলিন হতে দেননি মেসি। এমনকি রোনালদোর সঙ্গে তার চিরপ্রতিদ্বন্দ্বিতা দেখতে তীর্থের কাকের মতো বসে থাকতে হলেও তার পায়ের জাদু লা লিগাকে আকর্ষণীয় করে রেখেছিল গত তিনটি বছর। এমনকি পর্তুগিজ তারকা চলে যাওয়ার পরের তিন বছরে কেবল দুটি শিরোপা (লা লিগা ও কোপা দেল রে) মেসি জিতলেও স্প্যানিশ ফুটবল নিয়ে আগ্রহে ভাটা পড়েনি।

আগের মৌসুমের শুরুতে বার্সাকে বিদায় জানানোর ঘোষণা দিলেও ইচ্ছার বিরুদ্ধে থেকে যান মেসি। হোয়ান লাপোর্তাকে প্রেসিডেন্ট হিসেবে পেয়ে মন পাল্টায় তার। শক্তিশালী প্রকল্প নিয়ে এই মৌসুম শুরুর কথাই ভাবছিলেন আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড। সদ্য আর্জেন্টিনাকে কোপা আমেরিকা জিতিয়ে ছুটি কাটাচ্ছিলেন। আনন্দদায়ক সময় কাটানোর পর জানতে পারেন, লা লিগার কঠোর নীতির কারণে বার্সা আর রাখতে পারছে না তাকে।

লাপোর্তা বলেন, মেসিকে রাখতে গেলে তারা ধ্বংস হয়ে যাবেন। অবশ্য আরো আগেই ক্ষতির সম্মুখীন কাতালান ক্লাব। প্রাথমিকভাবে ২০ কোটি ক্ষতির আশঙ্কা করলেও তা বেড়ে প্রায় ৫০ কোটি হতে যাচ্ছে বলেছেন প্রেসিডেন্ট। মেসি চলে যাওয়ায় স্পন্সর ধরে রাখা যে কষ্টকর হয়ে যাবে, তা অস্বীকার করেননি তিনি। নতুন খেলোয়াড় দিয়ে এই ক্ষতি বার্সা কতটা পুষিয়ে নিতে পারবে তা এখনো অজানা। তবে লা লিগাও যে হোঁচট খাবে না তা নিশ্চিত করে বলা যাবে না।

অবশ্য লা লিগার পতন না ঘটলেও লিগ ওয়ান যে তাদের ছাড়িয়ে যাবে, সেটা একরকম বলেই দেওয়া যায়। কারণটা মেসি। তার আসার গুঞ্জনের মধ্যেই পিএসজির ফ্যান টোকেনের মূল্য বেড়ে গিয়েছিল। এখন তার চুক্তির আনুষ্ঠানিকতা হয়ে গেছে। সেই মূল্য এখন আকাশচুম্বী হয়ে যেতে পারে। তার ৩০ নম্বর জার্সি ২০ মিনিটের মধ্যে বিক্রি শেষ! ইনস্টাগ্রাম, টুইটার পেজেও পিএসজির ফলোয়ার হু হু করে বাড়তে শুরু করেছে। মেসির কল্যাণে পিএসজির যে আর্থিক, বাণিজ্যিক ও সোশ্যাল মিডিয়ায় উন্নতি লক্ষ করা যাচ্ছে, তা নিশ্চিতভাবে লিগ ওয়ানেও প্রভাব ফেলবে। বিশ্বের সেরাদের তালিকায় পঞ্চম স্থানে থাকা এই লিগ ‘কৃষকদের লিগ’ নামেই পরিচিত। ফুটবল ইতিহাসের অন্যতম বড় দলবদল ঘটিয়ে পিএসজি একে ‘অভিজাতদের লিগ’ বানালেও বানিয়ে ফেলতে পারে!

সূত্র : রাইজিংবিডি
এন এইচ, ১২ আগস্ট

Back to top button