সিলেট

সিলেটে করোনায় আরও ১৭ জনের মৃত্যু

সিলেট, ০৯ আগস্ট – সিলেট বিভাগে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা ৮০০ ছাড়িয়েছে। গত ২৪ ঘন্টায় বিভাগে আরও ১৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে বিভাগে চার জেলায় করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৮০৫ জনে দাঁড়িয়েছে। এছাড়া সিলেট জেলায় মৃতের সংখ্যা ৬০০ ছাড়িয়েছে।

এখন পর্যন্ত সিলেট জেলায় ৬০২ জন করোনায় মারা গেছেন। গত ৪ আগষ্ট সিলেটে রেকর্ড সর্বোচ্চ ২০ জনের মৃত্যু হয়েছে।

এদিকে গত ২৪ ঘন্টায় সিলেট বিভাগে করোনা শনাক্তের হার ১ দশমিক ৮৫ শতাংশ বেড়েছে। এদিন ২ হাজার ১৩৯ জনের নমুনা পরীক্ষায় মোট ৭০২ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। এই সময়ে করোনা শনাক্তের হার ৩২ দশমিক ৮২ শতাংশ।

সোমবার দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সিলেট বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডা. হিমাংশু লাল রায় স্বাক্ষরিত কোভিড-১৯ কোয়ারেন্টিন ও আইসোলেশনের দৈনিক প্রতিবেদন থেকে এতথ্য জানানো হয়।

গত ২৪ ঘন্টায় করোনায় সিলেট জেলায় ১২ জন এবং ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরও ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এখন পর্যন্ত ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় করোনায় মোট ৪১ জনের মৃত্যু হলো। এদিন সুনামগঞ্জ এবং মৌলভীবাজার জেলায়ও একজন করে করোনায় মারা গেছেন। সবমিলে সুনামগঞ্জে ৫৯ জন, মৌলভীবাজারে ৬৪ জন ও হবিগঞ্জে ৩৯ জন করোনায় মারা গেছেন।

এদিন সিলেট জেলায় শনাক্তের হার ৩৪ দশমিক ৬৫ শতাংশ, মৌলভীবাজার জেলায় ৩৪ দশমিক ৩ শতাংশ, হবিগঞ্জ জেলায় ৩২ দশমিক শূন্য ২ শতাংশ ও সুনামগঞ্জ জেলায় ২৫ দশমিক ৩৭ শতাংশ। এদিন সিলেটে ২৬২ জন, সুনামগঞ্জে ৮৬ জন, হবিগঞ্জে ৮১ জন ও মৌলভীবাজারে ১০৬ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এছাড়া ওসমানী মেডিকেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ১৬৭ জন রোগীর শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে।

সোমবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ওসমানী হাসপাতালের কোভিড ইউনিটে ২৭৩ জন রোগী ভর্তি আছেন। এই হাসপাতালে ১০ জন আইসিইউতে, ১৫৫ জন করোনার উপসর্গ নিয়ে ও ১০৮ জন করোনা পজেটিভ রোগী চিকিৎসাধীন রয়েছেন। বর্তমানে বিভাগের চার জেলার বিভিন্ন হাসপাতালে ৪৭৮ জন করোনা আক্রান্ত ভর্তি আছেন। নগরীর বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি আছেন ৩৩০ জন। এছাড়া সুনামগঞ্জে ৭০ জন, হবিগঞ্জে ৪৮ ও মৌলভীবাজারে ৩০ জন হাসপাতালে ভর্তি আছেন।

এখন পর্যন্ত বিভাগে ৪৫ হাজার ৮৬৪ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে; যার মধ্যে ৩৩ হাজার ৫৩০ জন সুস্থ হয়েছেন। গত ২৪ ঘন্টায় সুস্থ হয়েছেন ৪৭০ জন। এই সময়ে ৯৩ জন করোনা আক্রান্ত হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।

সূত্র : সমকাল
এন এইচ, ০৯ আগস্ট

Back to top button