ক্রিকেট

সাকিবের উজ্জীবনী বার্তা যেভাবে পাল্টে দেয় বাংলাদেশকে

ঢাকা, ০৭ আগস্ট – স্বল্প পুঁজি নিয়ে কীভাবে লড়াই করতে হয়, প্রতিপক্ষের শক্তির জায়গায় আক্রমণ করে কিভাবে জিততে হয়… মিরপুর শের-ই-বাংলায় তা করে দেখালো বাংলাদেশ।

অবিশ্বাস্য জয়ের পেছনের কারিগর ছিলেন বাংলাদেশের ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় বিজ্ঞাপন সাকিব আল হাসান। তার উজ্জীবনী বার্তা ফিল্ডিংয়ে নামার আগে পাল্টে দেয় গোটা দলের চিত্র। জয়ের তীব্র ক্ষুধায় মগ্ন হয়ে উঠে স্বাগতিকরা। বাকি কাজটা তো হয়েছে চোখের সামনেই। চেয়ে চেয়ে দেখেছে ক্রিকেট বিশ্ব।

স্কোরবোর্ডে মাত্র ১২৭ রানের পুঁজি। এ রান নিয়ে টি-টোয়েন্টিতে জয়ের চিন্তা করা বাড়াবাড়ি। কিন্তু ধীরগতির উইকেট বানিয়ে অস্ট্রেলিয়াকে নাস্তানাবুদ করলো বাংলাদেশ। ১১৭ রানে আটকে ১০ রানের জয়ে বাংলাদেশ জিতে নেয় টানা তৃতীয় ম্যাচ। সঙ্গে দুই ম্যাচ হাতে রেখে নিশ্চিত করে সিরিজ।

ম্যাচ শেষে অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ জানালেন, ইনিংস বিরতিতে দলকে উজ্জীবিত করার দায়িত্বটা সাকিবকে দিয়েছিলেন তিনি। ফিল্ডিংয়ে নামার আগে সাকিব সতীর্থদের যে বার্তা দেন তাতে জয়ের তীব্র আকাঙ্খা জেগে উঠে। মাহমুদউল্লাহ বলেন, ‘মাঠে নামার সময় আমি চেয়েছিলাম, সাকিব ছেলেদের সঙ্গে কথা বলুক। সাকিব বলেছে যে, ‘যেটাই হোক, বিশাল হৃদয় নিয়ে বোলিং করতে হবে। শুরুতে দুইটি উইকেট নিতে হবে এবং ওদেরকে চাপে ধরে রাখতে হবে। রান রেট যেন ওভারপ্রতি আট-নয় চলে যায় এভাবে বোলিং করতে হবে। তাহলে সুযোগ আসবে।’

সাকিবের কথা মতো বাংলাদেশের শুরুটা হয়েছিল সেভাবেই। দ্বিতীয় ওভারে নাসুম ফেরান ম্যাথু ওয়েডকে। তবে দ্বিতীয় উইকেটে মিচেল মার্শ ও ম্যাকডরমেটোর ৬৩ রানের জুটি বাংলাদেশকে ভয় দেখায়। এ জুটি ভাঙার উত্তর জানা ছিল সাকিবের। ১৪তম ওভারে বোলিংয়ে এসে সাকিব আউট করেন ৩৫ রান করা ম্যাকডরমেটোরকে। এরপর শরিফুল ও মোস্তাফিজের ধারাবাহিক আক্রমণে লড়াই থেকে ছিটকে যায় অজিরা। শেষ হাসিটা হাসে বাংলাদেশ।

বোলিংয়ে ১ উইকেট নেওয়ার আগে সাকিব ব্যাট হাতেও রাখেন অবদান। পাওয়ার প্লে’তে যে দুইটি বাউন্ডারি এসেছিল দুটিই সাকিবের ব্যাটে। তবে তার প্রতিশ্রুতিশীল ১৭ বলে ২৬ রানের ইনিংসটি থেমে যায় জাম্পার বোলিংয়ে।

ব্যাটিং, বোলিং ও ফিল্ডিং অবদান রেখে বাংলাদেশকে ঐতিহাসিক সিরিজ জেতাতে ভূমিকা রেখেছেন বিশ্বের অন্যতম সেরা এ অলরাউন্ডার। সঙ্গে দলকে উজ্জীবিত করার কাজটাও করতে হয়েছে ৩৩৪টি-টোয়েন্টি খেলা সাকিবের।

সূত্র : রাইজিংবিডি
এন এইচ, ০৭ আগস্ট

Back to top button