Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

Anwar Uddin

আনোয়ার উদ্দিন একজন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ ফুটবলার ও ফুটবল প্রশিক্ষক৷ তিনি প্রধানত একজন ডিফেন্ডার এবং শেষ খেলাটি খেলেছেন ইস্টবোর্ণ বরো-র (Eastbourne Borough Football Club) হয়ে৷ বর্তমানে তিনি ওয়েস্ট হ্যাম ইউনাইটেড অ্যাকাডেমির (West Ham United Academy) একজন ফুটবল প্রশিক্ষক৷ ১৯৮১ সালের পয়লা নভেম্বর তিনি লন্ডনের হোয়াইট চ্যাপেলে জন্ম গ্রহণ করেন৷ তাঁর বাবা একজন বাংলাদেশি হলেও মা ছিলেন একজন ব্রিটিশ৷ ১৯৬০ সালে তাঁর বাবা লন্ডনে আসেন৷ আনোয়ার পূর্ব লন্ডনের বেথনাল গ্রিনের (Bethnal Green) রাইনস ফাউন্ডেশন স্কুলে (Raine's Foundation School) পড়াশোনা করেন৷ আনোয়ার-ই প্রথম বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ ফুটবলার যিনি ইংল্যান্ডের পেশাদার ফুটবল জগতে নিজের আলাদা একটা জায়গা করে নিতে পেরেছিলেন৷ শুধু তাই নয়, ব্রিটেনের প্রথম সারির চারটি ডিভিশনে খেলা একটি ক্লাবের তিনিই ছিলেন প্রথম ব্রিটিশ এশিয়ান অধিনায়ক৷ আনোয়ার ওয়েস্ট হ্যাম ইউনাইটেডের একজন ফুটবলার হিসেবে তাঁর খেলোয়াড় জীবন শুরু করেন৷ ১৯৯৯ সালে ওয়েস্ট হ্যাম ফুটবল ক্লাব যখন ফা ইয়ুথ কাপ ফাইনালে (FA Youth Cup Finals) কোভেন্ট্রি সিটি ফুটবল ক্লাবকে (Coventry City Football Club) পরাজিত করে, তখন আনোয়ারও ওয়েস্ট হ্যামের সেই ফুটবল দলের সদস্য ছিলেন৷ যদিও এই দলে খেলার সময় তিনি একজন প্রতিভাবান ডিফেন্ডার হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠা করতে পেরেছিলেন, তবুও ওয়েস্ট হ্যামের প্রথম দলে তাঁর কিছুতেই সুযোগ হচ্ছিল না৷ সেই কারণে ২০০২ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে তিনি দল বদলে শেফিল্ড ওয়েডনেস ডে ক্লাবে(Sheffield Wednesday Football Club)যোগদান করেন৷ তবে এই দলেও তিনি খুব বেশিদিন স্থায়ী থাকেননি৷ ২০০২ সালে আই টিভি ডিজিটালের পতনের ফলে শেফিল্ড ওয়েডনেস ডে ক্লাব অর্থনৈতিক সংকটের সম্মুখীন হয়৷ এর জন্য ক্লাবের ব্যয় সংকোচনের জন্য তাঁরা আনোয়ারকে তাঁদের দলে জায়গা দিতে অসমর্থ হন৷ এরপর তিনি ব্রিস্টল রোভার্স ফুটবল ক্লাবে (Bristol Rovers Football Club)যোগদান করেন৷ তবে এই দলেও তিনি মাত্র চার মাস ছিলেন৷ এই দলে থাকাকালীন তিনি কোনও ম্যাচ খেলার সুযোগও পাননি৷ এই সময় কিছু গুরুতর চোটের কারণে তাঁকে চিকিৎসকরা বিশ্রাম নেওয়ার পরামর্শ দেন৷ তাই এই সময়টা অর্থাৎ ২০০২ থেকে ২০০৩ সালের অক্টোবরের শেষ পর্যন্ত ফুটবল মরশুমে তিনি সেভাবে খেলতে পারেননি এবং তাঁর ফুটবল জীবনের একটি সাময়িক বিরতি বলা যেতে পারে৷ এর পরের মরশুমে তিনি ব্রিস্টল রোভার্সের হয়ে কয়েকটি ম্যাচ খেলেন৷ এই সময় তিনি ভাড়া করা ফুটবলার হিসেবে হেয়ারফোর্ড ইউনাইটেড ক্লাব (Hereford United) ও টেলফোর্ড ইউনাইটেড ক্লাবের (Telford United)হয়েও ফুটবল খেলেন৷ শেষ পর্যন্ত মরশুমের শেষে তিনি ব্রিস্টল রোভার্স ক্লাব ছাড়েন৷ ২০০৪ সালের গ্রীষ্মের মরশুমে আনোয়ার ডেইনহ্যাম অ্যান্ড রেডব্রিজ ক্লাবে (Dagenham & Redbridge) যোগদানের চুক্তিপত্রে স্বাক্ষর করেন৷ তিনি এই ফুটবল দলটির অধিনায়ক ছিলেন৷ এই সময় আনোয়ার প্রথম পাঁচজন ব্রিটিশ এশিয়ানের একজন ছিলেন, যাঁরা ব্রিটিশ ফুটবল লিগ প্রিমিয়ারে খেলার সুযোগ পেয়েছিলেন৷ এই সময় মনে করা হতো এই ক্লাবগুলিতে ০.২ শতাংশ এশীয়কে সুযোগ দেওয়াই যথেষ্ট৷ ২০০৯ সালের পয়লা সেপ্টেম্বর আনোয়ার গ্রেজ অ্যাথলেটিক ফুটবল ক্লাবে (Grays Athletic)ভাড়াটে ফুটবলার হিসেবে চুক্তিপত্র সই করেন৷ 2010 সালের জুন মাসে আনোয়ার ড্যানহ্যাম অ্যান্ড রেড ব্রিজ ক্লাব ছেড়ে লিগ টু ফুটবল ক্লাব বার্নেতে (Barnet) যোগদান করেন ও ২০১০-১১ ফুটবল মরশুমে তিনি এই ফুটবল দলের অধিনায়কত্ব করেন৷ ২০১১ সালে তিনি প্রথম ব্রিটিশ এশিয়ান কোচ হিসেবে বার্ণেতের অ্যাসিট্যান্ট ম্যানেজার পদে যোগদান করেন৷ ২০১২ সালের ৩০ শে জানুয়ারি আনোয়ার ও বার্ণেটের পারষ্পরিক সম্মতিক্রমে চুক্তিপত্র খারিজ হয়ে যায়৷ কিছুদিন পরে তিনি সাটন ইউনাইটেড (Sutton United) ফুটবল ক্লাবের হয়ে কনফারেন্স সাউথে (Conference South) অংশ নেন৷ ২০১২ সালের ২৮শে জুন ইস্টবোর্ণ বরো ক্লাবের হয়ে সাউথ কনফারেন্সে যোগ দেন৷ ১৯১৩ সালের জুন মাসে আনোয়ার ইস্টবোর্ণ বরো ক্লাব ছেড়ে দেন এবং ফুটবল কোচিং কে পেশা হিসেবে গ্রহণ করার সিদ্ধান্ত নেন৷ ২০১৩ সালের সেপ্টেম্বর মাস থেকে আনোয়ার তাঁর প্রথম ক্লাব ওয়েস্ট হ্যাম ইউনাইটেডের ছোটদের দলের আংশিক সময়ের কোচ হিসেবে কাজ করছেন৷ আনোয়ার ইংল্যান্ড ও বাংলাদেশের জাতীয় দলে খেলার সুযোগ যোগ্যতা অর্জন করেছিলেন৷ ২০০৭ সালে ঢাকায় একটি ফুটবল শিবিরে যোগদানের সময় তাঁকে বাংলাদেশের ফুটবল ফেডারেশনের প্রধান কাজী সালাউদ্দীন তাঁকে বাংলাদেশের জাতীয় দলে খেলার জন্য আমন্ত্রণ জানালেও এ বিষয়ে এখনও তিনি মনস্থির করতে পারেননি৷ ১৯৮৯ সালের পর ২০০৭ সালে তিনি দ্বিতীয়বার বাংলাদেশ এসেছিলেন৷ আনোয়ার উদ্দিন দক্ষিণ পূর্ব ইংল্যান্ডের বর্ণবৈষম্য বিরোধী প্রতিষ্ঠান “শো রেসিজম দ্য রেড কার্ড” (Show Racism the Red Card)এর একজন সক্রিয় সদস্য৷ তিনি এখনও পর্যন্ত অবিবাহিত৷


Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে