Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৯-১৪-২০১৬

জাপানে ৬৬ হাজার মানুষ শতবর্ষী

এস এম নাদিম মাহমুদ


জাপানে ৬৬ হাজার মানুষ শতবর্ষী

টোকিও, ১৪ সেপ্টেম্বর- জাপানে শতবর্ষী মানুষের সংখ্যা বেড়েছে। বিশ্ব বৃদ্ধ দিবস উপলক্ষ্যে দেশটির সর্বশেষ করা জরিপে শতবর্ষী মানুষের সংখ্যা ধরা হয়েছে ৬৫ হাজার ৬৯২ জন, যা গত বছরের চেয়ে ৪ হাজার ১২৪ জন বেশি।

স্বাস্থ্য ও সমাজকল্যাণ অধিদপ্তর পরিচালিত এ জরিপের ফলে বলা হয়েছে, জাপানের সিমানে, কচি, কাগুশিমা, ততোরি, কাগুয়া প্রদেশের মানুষদের অনেকেরই বয়স একশ’ বছরের উর্ধ্বে। যাদের মধ্যে ৮৮ ভাগই নারী।

কাগুশিমা প্রদেশের কিকাই শহরের ১১৬ বছর বয়সী নাবি তাজিমাকে সবেচেয়ে বেশি বয়সী নারী হিসেবে তুলে ধরা হয়েছে।  এরপরই রয়েছেন টোকিওর মাসামিসু ইয়োশিদা। যার বয়স ১১২ বছর।

মূলত উন্নত স্বাস্থ্যসেবা ও খাবারের প্রতি সচেতনতায় শতবর্ষী মানুষের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে বলে মন্ত্রণালয়ের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

এর আগে আন্তঃসম্পর্ক মন্ত্রণালয়ের জরিপে বলা হয়েছিল, ১২ কোটি ৭১ লাখ জনসংখ্যার দেশটিতে শতকরা ২৬ দশমিক ৭ ভাগ মানুষের বয়স ৬৫ বছরের উর্ধ্বে, যা গত পাঁচ বছরের মধ্যে ৩ দশমিক ৭ শতাংশ বেশি।

বৃদ্ধদের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় ‘শ্রম বাজারে’ বেশ প্রভাব পড়ছে। ফলে এই বৃহৎ জনসংখ্যার মধ্যে (৬৫ বছরের উর্ধ্বে) দেড় কোটি মানুষকে সরকার ভরণ-পোষণ করছে। অনেকেই আবার এ বয়সে নিয়োজিত আছেন ‘কৃষি কাজে’। সরকারের তথ্যমতে, দেশটিতে ৬৫ বছরের বেশি বয়সীরাই কৃষির হাল ধরে আছেন।

চলতি বছর ফেব্রুয়ারিতে একই মন্ত্রণালয়ের জনসংখ্যার আরেক জরিপ অনুযায়ী, বর্তমান জনসংখ্যা ১২ কোটি ৭১ লাখ ১ হাজার ৪৭ জন, যা ২০১০ সালের আদমশুমারির চেয়ে শতকরা ৭ ভাগ কম।

মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা আদমশুমারির তথ্য জানিয়ে বলেছে, গত বছরের ১ অক্টোবর দেশব্যাপী জরিপ চালানো হয়। এতে দেখা যায়, বর্তমানে পুরুষের সংখ্যা ৬ কোটি ১৮ লাখ ২৯ হাজার ২৩৭ জন, আর নারীর সংখ্যা ৬ কোটি ৫২ লাখ ৮০ হাজার ৮১০ জন।

এর আগে গত বছরের এক জরিপে, দেশটিতে ৮০ বছরের উর্ধ্বে জৈষ্ঠ্য নাগরিকের সংখ্যা  এক কোটি বলা হয়েছিল। যা মোট জনসংখ্যার শতকরা ৭ দশমিক ৯ ভাগ।

সরকার বলছে, বৃদ্ধরা অধিকাংশই কর্মহীন, ফলে অর্থনীতিতে তারা কোন ভূমিকা রাখতে পারছে না। এভাবে চলতে থাকলে আগামী কয়েক বছরের মধ্যে জাপান অর্থনীতিতে ব্যাপক হুমকির মুখে পড়বে বলেও জানানো হচ্ছে।

বৃদ্ধদের অধিকাংশই ব্যায়ামে নিয়োজিত। পরিমিত খাবার ব্যবস্থা ও উন্নত চিকিৎসা সেবা বৃদ্ধদের আয়ু দীর্ঘায়িত করতে অনেকটাই অনুঘটকের ভূমিকা পালন করছে বলেও জরিপে বলা হয়েছে। সব কিছু ছাপিয়ে নতুন প্রজন্মকে সন্তান জন্মদানে উদ্ধুব্ধ করতে সরকার বেশ কিছু পদক্ষেপও গ্রহণ করেছে।

১৯২০ সাল থেকে চলে আসা জাপানি আদিমশুমারী অনুযায়ী, বিয়ের প্রতি অনীহা আর পর্যাপ্ত চাপের কারণে জনসংখ্যার তীর নিম্নমুখী হচ্ছে।

জাপানে সন্তান জন্মের পর থেকে ১২ বছর পর্যন্ত সরকার তার কিছুটা ভর-পোষণের দায়িত্ব নেয়। প্রতি মাসে সরকারের কোষাগার থেকে অর্থ যায় একাজে। সরকার বিয়েতে উৎসাহী করতে বেশ কিছু পদক্ষেপও গ্রহণ করেছে

প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবের ঘোষণা অনুযায়ী, দেশটিতে শিশু জন্মহার ১ দশমিক ৪ থেকে ১ দশমিক ৮ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

আর/১০:১৪/১৩ সেপ্টেম্বর 

এশিয়া

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে