Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৯-০৪-২০১৬

যা নেই গুগলে...

যা নেই গুগলে...

পৃথিবীকে হাতের মুঠোয় নিয়ে এসেছে গুগল। কেননা দরকারি যেকোনা তথ্য, খবরা-খবর আর ছবি লহমায় পাওয়ার ব্যবস্থা করে দিয়েছে তারা।গুগল আর্থ-এ গেলে তো যে কেউ নিজের বাড়িঘরের অবস্থানও সচিত্র দেখে নিতে পারেন।

তথ্যপ্রযুক্তির জগতে এমন নানা অসাধ্য সাধন করেই তারা অন্যদের চেয়ে অনেক এগিয়ে গেছে। তারপরও গুগলকে ‘সর্বজয়ী’ অভিধা দেয়া যাচ্ছে না। কারণ তাদের চোখ এখনো কিছু জায়গায় পৌঁছুতে পারেনি।

পৃথিবীতেই এমন কিছু স্থান আছে যেখানকার হদিশ দিতে পারছে না গুগল আর্থ। যেসব জায়গা গুগলের ভূগোল ধরতে পারেনি, আসুন জেনে নেই সেগুলোর কথা।

মদিনা, সৌদি আরব
হযরত মুহাম্মদ (সা:) এর পদধূলি ধন্য এই পবিত্র নগরীকে গুগুল আর্থ যেভাবে দেখায়, তা অতি অদ্ভুত। ‘আলোকিত নগরী’ হিসেবে খ্যাত মদিনাকে কতগুলো সাদা ব্লকের সমাহার ছাড়া অন্য কিছু মনে হয় না গুগল আর্থ-এ। অথচ অ-মুসলমানদের কাছে মদিনা মোটেই ‘নিষিদ্ধ নগরী’ নয়। কেন এমন হয়,অজানা।

গেথসেমানে বাগান, জেরুসালেম, ইসরায়েল
খ্রিস্টীয় বিশ্বাস অনুযায়ী, এই বাগানে যিশু তাঁর ক্রুশবিদ্ধ হওয়ার আগের রাত্রিটি কাটিয়েছিলেন। এখানেই শয়তান তাঁকে প্রলুব্ধ করে বলে কথিত রয়েছে। আজ এই বাগান এক পবিত্র খ্রিস্টীয় তীর্থ। মা মেরিকে এই বাগানেই প্রথমে সমাহিত করা হয়েছিল বলেও ধারনা রয়েছে। গুগল আর্থ-এ এই স্থানটি কোনও অজ্ঞাত কারণে ঝাপসা হয়ে দেখা দেয়।

নারসার্সুক, গ্রিনল্যান্ড
মেরুবলয়ের এই জায়গাটি সংবাদ শীর্ষে উঠে আসে ১৯৬৮ সালে। এই সময়ে একটি আণবিক অস্ত্রবাহী বিমান এই স্থানটির কাছেই উত্তর সমুদ্রে ভেঙে পড়ে। পুরো এলাকাটি প্লুটোনিয়ামের তেজস্ক্রিয়তায় দুষ্ট হয়ে পড়ে বলে জানা যায়। গুগুল আর্থ-এ জায়গাটিকে দেখতে চাইলে কিছুতেই স্পষ্ট ছবি আসে না।

অ্যান্থ্রাক্স দ্বীপ, স্কটল্যান্ড
মাত্র এক মাইল আকারের  এই ডিম্বাকৃতি দ্বীপটির চেহারা গুগল আর্থ কিছুতেই সানুপুঙ্খ দেখাতে পারে না। গ্রুইনার্ড উপসাগরের এই দ্বীপটি বহুকাল ধরেই মনুষ্য বর্জিত। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়ে ব্রিটিশ বিজ্ঞানীরা এখানে অ্যান্থ্রাক্স বোমা পরীক্ষা করতেন বলেই এই দ্বীপ বাসযোগ্যতা হারায়। ঠিক কী কারণে গুগল আর্থ এই দ্বীপের গহীনে প্রবেশ করতে পারে না,অজানা।

রসওয়েল, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
নিউ মেক্সিকোর এই জায়গাটির খ্যাতি ‘ইউএফও’ সাইট হিসেবে। এক মানুষের কৌতূহল ফেটে পড়েছিল এখানে ইউএফও দেখতে পাওয়ার সংবাদে। কিন্তু এই জায়গাটির আর একটি ইতিহাস রয়েছে। ১৯৪৭ সালে মার্কিন বিমান বাহিনীর এক গুপ্তচর বেলুন এখানে ভেঙে পড়েছিল। পরে ইউএফও-র গল্প ছড়িয়ে ব্যাপারটাকে ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা চলে বলে জানা যায়। ১৯৭০-দশকে ইউএফও-র গুজব তুঙ্গে ওঠে। কোনও অজ্ঞাত কারণে এই জায়াগাটির ডিটেলও গুগল আর্থ-এ অলভ্য।

আর/১০:১৪/০৪ সেপ্টেম্বর 

জানা-অজানা

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে