Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৯-০১-২০১৬

তিন কেন্দ্রই যোগান দেবে ৫০০০ মেগাওয়াট নতুন বিদ্যুৎ

তিন কেন্দ্রই যোগান দেবে ৫০০০ মেগাওয়াট নতুন বিদ্যুৎ

ঢাকা, ০১ সেপ্টেম্বর- ঘোড়াশাল, বাঘাবাড়ী ও বোয়ালপাড়া বিদ্যুৎকেন্দ্র সংস্কার কাজ শুরু হচ্ছে আগামী ডিসেম্বরে। সংস্কার শেষে এই তিনটি কেন্দ্র উৎপাদন চার গুণেরও বেশি বাড়বে। বর্তমানে এই তিনটি কেন্দ্র থেকে দেড় হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন হলেও সংস্কার শেষে পাওয়া যাবে নতুন পাঁচ হাজার মেগাওয়াট।

এই তিনটি কেন্দ্র সংস্কারে ব্যয় হবে ১০ হাজার কোটি টাকা। ২০২৬ সালের শেষ দিকে বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলোর সংস্কার কাজ শেষ হবে। সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুর হামিদ বিপু এ তথ্য জানান।

নরসিংদীর ঘোড়াশালে স্থাপিত বিদ্যুৎকেন্দ্রের বর্তমানে উৎপাদন হয় এক হাজার ২৮ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ। সংস্কার শেষে এখান থেকে পাওয়া যাবে তিন হাজার ৮৭০ মেগাওয়াট।

সিরাজগঞ্জের বাঘাবাড়ী বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে বর্তমানে পাওয়া যায় তিনশ মেগাওয়াট। সংস্কার শেষে উৎপাদন ক্ষমতা বাড়বে প্রায় পাঁচ গুণ। তখন পাওয়া যাবে প্রায় এক হাজার ৪৫৫ মেগাওয়াট।   

খুলনার বোয়ালপাড়া বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে বর্তমানে পাওয়া যায় ২২৫ মেগাওয়াট। সংস্কার শেষে এখানেও উৎপাদন হবে পাঁচ গুণেরও বেশি। তখন সেখান থেকে পাওয়া যাবে মোট এক হাজার দুইশ মেগাওয়াট।

অর্থাৎ সংস্কার কাজ শেষ হলে কেবল এই তিন সরকারি বিদ্যুৎকেন্দ্র জাতীয় গ্রিডে যোগ করবে নতুন সাড়ে তিন হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ। জ্বালানির চাহিদা পূরণে এই উদ্যোগ বেশ কার্যকরী হবে বলে আশা করছে সরকার।

২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর বিদ্যুৎ উৎপাদনে স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদী নানা প্রকল্প হাতে নেয়। এরই মধ্যে স্থাপিত হয়েছে ছোট ছোট বেশ কিছু বিদ্যুৎকেন্দ্র। পাশাপাশি গ্যাস, কয়লাচালিত বড় বিদ্যুৎকেন্দ্র ও পারমাণবিক চুল্লি স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার।

জ্বালানির চাহিদা পূরণে ২০২১ সালের মধ্যে ২৪ হাজার, ২০৩০ সালের মধ্যে ৪০ হাজার এবং ২০৪১ সালের মধ্যে ৬০ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের মহাপরিকল্পনা ঘোষণা করেছে সরকার। এই  মহাপরিকল্পনায় নতুন কেন্দ্র স্থাপনের পাশাপাশি পুরনোগুলো সংস্কারের কথাও বলা হয়েছে।

এরই মধ্যে বর্তমান সরকারের আমলে বিদ্যুতের উৎপাদনক্ষমতা তিন গুণেরও বেশি বেড়েছে। তবে বাংলাদেশে বর্তমানে শতাধিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে সর্বমোট উৎপানক্ষমতা হাজার মেগাওয়াট হলেও প্রকৃত উৎপাদন নয় হাজার মেগাওয়াটেরও কম। বেশ কিছু বিদ্যুৎকেন্দ্র পুরনো ও জরাজীর্ণ হয়ে যাওয়ায় সেগুলো পূর্ণ ক্ষমতায় চালানো সম্ভব হয় না। এগুলোতে জ্বালানি খরচও হয় বেশি। ফলে উৎপাদন খরচ বেড়ে যায়। পাশাপাশি সেগুলো পরিবেশও দূষণ করছে।

জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী জানান, ১০ বছরের মধ্যে দেশের সব কটি সরকারি পুরনো বিদ্যুৎকেন্দ্রই সংস্কার করা হবে। এ জন্য সরকার একটি মহাপরিকল্পনা হাতে নিয়েছে। সরকারের নিজ অর্থায়নে বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন বোর্ড-পিডিবি এই সংস্কার কাজের দায়িত্বে থাকবে।

সরকারি বিদ্যুৎকেন্দ্রে এখন থেকে কর্মীদের আবাসনের ব্যবস্থা থাকবে বলেও জানান প্রতিমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘আগে এসব কেন্দ্রে কর্মকর্তা-কর্মচারীরা থাকতো না। এখন থেকে স্টাফদের জন্য আবাসনের ব্যবস্থা করা হবে। একই সঙ্গে তাদের ছেলে মেয়েদের লেখাপড়া জন্য স্কুল-কলেজ প্রতিষ্ঠা করা হবে।’

আর/১৭:১৪/০১ সেপ্টেম্বর 

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে