Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 3.0/5 (25 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৮-৩১-২০১৬

‘ছেলেটা বলে, আমি ডিশ কর্মচারী তোমার আব্বু ও আপুর নম্বর দাও’

‘ছেলেটা বলে, আমি ডিশ কর্মচারী তোমার আব্বু ও আপুর নম্বর দাও’

ঢাকা, ৩১ আগষ্ট- রাজধানীর উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুল অ্যান্ড কলেজের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী সুরাইয়া আক্তার রিশাকে হত্যার কয়েকদিন আগে এলাকা রেকি করে টেইলার্স কর্মচারি ওবায়দুর।

নিজেকে ডিশ কর্মচারী পরিচয় দিয়ে রাজধানীর বংশালের সিদ্দিকবাজার ফায়ার সার্ভিসের গলি রেকি করেন তিনি।

এভাবে রিশা ও রিশার বাবার নম্বর সংগ্রহ করে নিয়ে যান তিনি। এরপরই শুরু হয় উত্যক্ত করা। রিশার পরিবার ও আত্মীয়-স্বজনদের সাথে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে।

রিশার ছোটবোন তৃষা বলে, ‘একটা ছেলে কয়েকদিন আগে আমাদের এলাকায় এসেছিল। আমাকে ও ভাইয়াকে খুঁজে বের করে ডিশ ব্যবসায়ীর পরিচয় দিয়ে কথা বলে। ছেলেটা বলে, আমি ডিশ কর্মচারী তোমার আব্বু ও আপুর নম্বর দাও। ফোনে যোগাযোগ করে নিবো। মুখস্ত থাকায় নম্বর দিয়েছিলাম।’

তৃষা বলছিল, ‘ছেলেটা আমার ভাইয়া রবির ও আমার সাথে ছবিও তুলেছিল। তবে আপুর সাথে দেখা করতে চাইলে আমরা চলে আসি।’

ছোট্ট তৃষার কথা শুনে মা তানিয়া বলেন, ‘এমন কথা আমি নিজেও জানতাম না। এর মানে ওই ওবায়দুরই আমার মেয়েকে খুন করার আগে পুরো এলাকা রেকি করেছে। বাবা-মেয়ের নম্বর নিয়ে ডিস্টার্ব করেছে।’

তিনি বলেন, আমার চৌদ্দ বছর বয়সী রিশা উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুলের অষ্টম শ্রেণিতে পড়ত। ওর বাবা মো. রমজান হোসেন পেশায় পুরান ঢাকার ক্যাবল (ডিশ) ব্যবসায়ী। ডিশ কর্মচারি সেজে কথা বললে সহজ হবে ভেবেই ওবায়ুদর নামে ওই ‘বখাটে’ এলাকায় আসার সুযোগ নিয়েছিল।

তিনি বলেন, গত ৮/৯ মাস আগে ইস্টার্ন মল্লিকার বৈশাখী টেইলার্সে একটি জামা বানাতে দিয়েছিলাম। তখন থেকে যোগাযোগের জন্যে দেয়া মোবাইল ফোন নম্বরে রিশাকে বিরক্ত করছিল ওবায়দুর। রিশার বাবা ওই ছেলেকে ফোন করে পরিচয় জানতে চাইলে ওবায়দুর পরিচয় দেয়। বলে রিশাকে ভাল লেগেছে। সে কথা শুনে রিশার বাবা ফোনে ধমক দেয়। পর দিন ওই টেইলার্সের মালিককে অভিযোগ করলে তিনি এর একটা বিহিত করার আশ্বাস দিয়ে রিশার বাবাকে ফিরিয়ে দেন। পরিবারের অভিযোগ ওবায়দুরই রিশাকে ছুরিকাঘাত করে খুন করেছে।’

উল্লেখ্য, গত বুধবার দুপুরে ঢাকার কাকরাইলে ছুরিকাঘাতে আহত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিন দিন পর মারা যায় উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুলের ছাত্রী সুরাইয়া আক্তার রিশা।

স্কুলের সামনে ফুটওভার ব্রিজের উপরে রিশার পেট ও হাতে ছুরি মেরে পালিয়ে যায় টেইলার্স কর্মচারি ‘বখাটে যুবক’ ওবায়দুর রহমান।

আর/১৭:১৪/৩১ আগষ্ট

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে