Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৮-৩০-২০১৬

প্রাণভিক্ষা না পেলে দ্রুত রায় কার্যকর: আইনমন্ত্রী

প্রাণভিক্ষা না পেলে দ্রুত রায় কার্যকর: আইনমন্ত্রী

ঢাকা, ৩০ আগষ্ট- রাষ্ট্রপতির কাছে থেকে প্রাণভিক্ষা না পেলে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে জামায়াত নেতা মীর কাসেম আলীর ফাঁসির রায় কার্যকর করতে সরকার দ্রুত পদক্ষেপ নেবে বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। 

মঙ্গলবার মীর কাসেম আলীর ফাঁসি বহালের পর সচিবালয়ে নিজ দফতরে প্রেস ব্রিফিংয়ে আইনমন্ত্রী এ কথা বলেন।  

আইনমন্ত্রী বলেন, রায়ের কপি আপিল বিভাগ থেকে বিচারিক আদালত হয়ে কারাগারে যেতে হবে। এজন্য অপেক্ষা করতে হবে। রাষ্ট্রপতির কাছে মীর কাসেমের ক্ষমা চাওয়ার একটা সুযোগ আছে। তিনি যদি তা প্রয়োগ করেন, তাহলে রাষ্ট্রপতির কাছে সেটা পৌঁছাতে হবে। সেটার নিষ্পত্তি রাষ্ট্রপতি করবেন। তিনি ক্ষমা না করলে মীর কাসেমের ফাঁসি কার্যকর হবে। আর যদি আবেদন না করেন তাহলে রায়টি কার্যকর করতে দ্রুত পদক্ষেপ নেবে সরকার।

রাষ্ট্রপতি বিদেশে থাকায় প্রাণভিক্ষার আবেদন করলে তা নিষ্পত্তিতে বিলম্বিত হবে কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে আনিসুল হক বলেন, ‘এমন তো কথা নেই যে তিনি (রাষ্ট্রপতি) বিদেশে থাকলে ফাইল দেখতে পারবেন না। এ রকম তো আইনের মধ্যে নেই। কেউ যদি ক্ষমা চেয়ে আবেদন করে সেটাকে ত্বরিৎ নিষ্পত্তি করার ব্যবস্থা আইনে যেটা আছে সেটাই গ্রহণ করা হবে।’ 

মন্ত্রী বলেন, ‘প্রাণভিক্ষার জন্য রিজন্যাবল টাইমের কথা বলা হয়েছে। আমাদের কাছে মনে হয় সাতদিন অত্যন্ত যুক্তিসঙ্গত সময়। সেই পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।’ 

রায়ের প্রতিক্রিয়ায় আনিসুল হক বলেন, ‘রিভিউ পিটিশনে মীর কাশেম আলীর মৃত্যুদণ্ড বহাল রাখা হয়েছে। বাংলাদেশের জনগণের সাথে আমিও আজ স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলছি। ১৯৭১ সালের এ ঘাতকদের শেষ পর্যন্ত আমরা বিচার করতে পেরেছি। অনেকগুলো রায় আমরা কার্যকর করেছি, ইনশাআল্লাহ আমরা এটাও কার্যকর করব।’

তিনি বলেন, ‘আজকে আমি বাংলাদেশের জনগণকে ধন্যবাদ জানাই তাদের ধৈর্যের জন্য, বিশ্বাসের জন্য। তারা বুঝতে পেরেছিলেন একদিন এ বিচার কাজ সম্পন্ন হবে। আমি এর সঙ্গে ধন্যবাদ জানাই আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে, তিনি দৃঢ় প্রত্যয় নিয়ে এ বিচারের অঙ্গীকার জনগণকে দিয়েছিলেন। শেষ পর্যন্ত তার কথা তিনি (প্রধানমন্ত্রী) রেখেছেন। আজকে আমাদের সকলের জন্য একটা স্বস্তির দিন। আমাদের সকলের জন্য স্বাধীনতা আরও ভালভাবে ভোগ করার দিন।’ 

প্রসঙ্গত, ২০১৪ সালের ২ নভেম্বর আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল কিশোর মুক্তিযোদ্ধা জসিমসহ মোট আটজনকে হত্যার দায়ে মীর কাসেমের মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দেন। ২০১৬ সালের ৮ মার্চ আপিল বিভাগ তার মৃত্যুদণ্ড বহাল রাখেন। এছাড়া আরও বিভিন্ন অভিযোগে পৃথকভাবে মোট ৫৮ বছরের কারাদণ্ড দেন।

ফাঁসির রায়ের পুনর্বিবেচনা চেয়ে মীর কাসেম রিভিউ আবেদন করেন। সেই রিভিউ আবেদন খারিজ করে মঙ্গলবার সকালে এ রায় ঘোষণা করেন প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহার নেতৃত্বে পাঁচ বিচারপতির আপিল বেঞ্চ। 

আর/১০:১৪/৩০ আগষ্ট

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে