Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ০৮-৩০-২০১৬

‘যুদ্ধাপরাধীদেরকে যারা মন্ত্রী বানিয়েছেন তাদেরও বিচার হবে’

‘যুদ্ধাপরাধীদেরকে যারা মন্ত্রী বানিয়েছেন তাদেরও বিচার হবে’

ঢাকা, ৩০ আগষ্ট- প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, যুদ্ধাপরাধীদেরকে যারা মন্ত্রী বানিয়েছিলেন তাদেরও প্রকাশ্যে বিচার হওয়া দরকার। এ বিষয়ে জনমত গঠন করতে হবে। রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশনে শোকাবহ আগস্টের আলোচনায় প্রধান অতিথির বক্তব্য প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু হত্যার পর জিয়াউর রহমান যুদ্ধাপরাধীদের কারাগার থেকে ছেড়ে দিয়েছিলেন। স্বাধীনতাবিরোধী শাহ আজিজ ও আবদুল আলীমকে মন্ত্রী বানিয়েছিলেন। মাওলানা মান্নানকে বানিয়েছিলেন উপদেষ্টা। আর তার স্ত্রী নিজামী, মুজাহিদকে মন্ত্রী বানিয়েছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘তিনি যাদের মন্ত্রী বানিয়েছিলেন, যুদ্ধাপরাধের দায়ে তাদের ফাঁসি কার্যকর হয়েছে। এখন তাদেরকে যারা মন্ত্রী বানিয়েছে তার কী হবে? মানুষের মধ্যে এই সচেতনতা তৈরি করতে হবে যে, তাদেরকে যারা মন্ত্রী বানিয়েছে তাদেরও প্রকাশ্যে বিচার হওয়া দরকার। এ বিষয়ে জনমত গঠন করতে হবে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘গোলাম আযমকে দেশে ফিরিয়ে এনেছেন জিয়াউর রহমান আর তার স্ত্রী তাকে দিয়েছেন বাংলাদেশি পাসপোর্ট। যারা যুদ্ধাপরাধীদের পুনর্বাসন করে তারা কীভাবে স্বাধীনতার পক্ষের শক্তি হয়।’

মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্তদের পক্ষে দাঁড়ানো আইনজীবীদেরও কড়া সমালোচনা করেন প্রধানমন্ত্রী। বলেন, ‘এসব অপরাধীদের পক্ষে আইনজীবীরা দাড়ায় কীভাবে? টাকাই কি সব? আবার তারা আমাদেরকে হুমকি দেয়। এর বিচারও জনগণ করবে।’

আলোচনা সভায় বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানেরও কঠোর সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, স্বাধীনতাবিরোধী খুনি, ধর্ষকদের কারাগার থেকে ছেড়ে গিয়ে রাজনীতি করার অধিকার দিয়েছেন জিয়াউর রহমান।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘তিনি যুক্তিযোদ্ধা ছিলেন, একটি খেতাবও পেয়েছেন। কিন্তু পরে তিনি কী করেছেন? স্বাধীনতাবিরোধীদের পুনর্বাসন করেছেন। জামায়াতে ইসলামী নিষিদ্ধ ছিল। তাদেরকে রাজনীতি করার সুযোগ করে দিয়েছেন। যুদ্ধাপরাধীদের ভোটাধিকার ছিল না, অর্ডিন্যান্স জারি করে তাদেরকে ভোটের অধিকার ফিরিয়ে দিয়েছেন, রাজনীতি করার সুযোগ করে দিয়েছেন। তাহলে তিনি কীভাবে মুক্তিযোদ্ধা হন?’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘৭৫ এর ১৫ আগস্টের পর তিন বছর প্রতি রাত ১১টা থেকে ভোর ৬টা পর্যন্ত ছিল কারফিউ। কারফিউ দিয়ে দেশ চলছে সেখানে গণতন্ত্র থাকে কীভাবে?’

এফ/২২:৩০/৩০আগষ্ট

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে