Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ০৮-২৮-২০১৬

‘জঙ্গি-সন্ত্রাসীরা কারাগারের বাইরে যোগাযোগের সুযোগ পাবে না’

‘জঙ্গি-সন্ত্রাসীরা কারাগারের বাইরে যোগাযোগের সুযোগ পাবে না’

ঢাকা, ২৮ আগষ্ট- কারাগারে বন্দী শীর্ষ সন্ত্রাসী ও জঙ্গিরা বাইরের যেন যোগাযোগ করতে না পারে সেজন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে জানিয়ে কারা মহাপরিদর্শক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সৈয়দ ইফতেখার উদ্দীন বলেছেন, কারাগারগুলোতে অন্তরীণ জঙ্গিদের সাধারণ বন্দীদের থেকে আলাদাভাবে রাখা হয়েছে। তারা যেন নিজেদের সঙ্গে অথবা বাইরের সঙ্গে যোগাযোগ করতে না পারে সেজন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। এ লক্ষ্যে ঢাকা, চট্টগ্রাম এবং কাশিমপুর কারাগার যেখানে জঙ্গিরা বেশি রয়েছে সেখানে জ্যামার স্থাপন করা হয়েছে।

শনিবার দুপুরে গাজীপুর জেলা কারাগারে নবনির্মিত কেইস টেবিল ভবন, কারাবন্দীদের গার্মেন্টস প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, গভীর নলকূপ এবং পণ্য প্রদর্শনী ও বিক্রয় কেন্দ্র কর্মসূচির উদ্বোধন অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

এ উপলক্ষে কারাগার প্রাঙ্গণে জেলা প্রশাসক এস এম আলমের সভাপতিত্বে ও গাজীপুর জেলা কারাগারের জেলার ফোরকান ওয়াহিদের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন, দৈনিক ভোরের কাগজের সম্পাদক শ্যামল দত্ত এবং সাংবাদিক অমিত কে বিশ্বাস, গাজীপুর জেলা কারাগারের জেল সুপার সুভাষ কুমার ঘোষ, গাজীপুর আদালতের পিপি হারিছ উদ্দিন আহমদ।

কারা মহাপরিদর্শক জানান, সম্প্রতি ৩২ কোটি টাকা ব্যয়ে কারাগারের নিরাপত্তার আধুনিকায়নে একটি প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে। যাতে ঢাকা ও চট্টগ্রামের কারাগারগুলোতে জ্যামার, সিসিটিভি এবং বডি ও লাগেজ স্ক্যানার অন্তর্ভুক্ত থাকবে।

কারা মহাপরিদর্শক বলেন, সাজাপ্রাপ্ত হলেও বন্দীরা মানুষ। তাদেরকে সম্পদে রূপান্তরিত করতে হলে নানা ধরনের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে। ইতোমধ্যে বিভিন্ন কারাগারে গৃহস্থালির আসাবপত্র তৈরির প্রশিক্ষণ চলছে। তিনি জানান, সারাদেশে ৭৫ হাজার বন্দী রয়েছেন। ২৫ হাজার বন্দী সাজাপ্রাপ্ত।তাদের নিয়ে ছোট বড় ইন্ডাস্ট্রি পরিচালনা করা সম্ভব। এ ছাড়া ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার-২ এ বন্দীদের জন্য প্রশিক্ষণ পুনর্বাসন স্কুল প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। এ প্রশিক্ষণে যেসব বন্দী প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন তাদেরকে বাইরের কারিগরি প্রতিষ্ঠানের সনদ দেয়া হচ্ছে। কারণ তাদের মাধ্যমেই বন্দীদের প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, কাউকে সংশোধন করা এতো সহজ নয়। এজন্য তার চরিত্র বিশ্লেষণ করতে হবে। আমাদের অনেক ক্ষেত্রে অনিয়ম করতে করতে তা নিয়মে পরিণত হয়ে গেছে। আমরা বাংলাদেশি বাঙালিরা কেন যেন সব সময় নীতিভঙ্গের প্রতি বেশি বিশ্বাসী। আমরা কখনো লাইন, আইন মানতে চাই না। আমরা কোথাও কখনো নিয়ম মানতে চাই না। সব সময় আমি আমার প্রভাব খাটিয়ে আরেকজনের আগে আমি আমার সুযোগটা কিভাবে গ্রহণ করবো সেজন্য আমরা তৎপর থাকি। এটা আমাদের সংশোধন করতে হবে। আমাদের জাতীয় চরিত্রের মধ্যে সু-শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে হবে। একইভাবে আমাদের কারাবন্দিদের সংশোধন করতে হলে তাদের চারিত্রিক সংশোধন করতে হবে। তাদের দক্ষতা বৃদ্ধি করতে হবে। সুশৃঙ্খলার প্রশিক্ষণ দিয়ে সেটা অভ্যাসে পরিবর্তন করতে হবে।

কারা মহাপরিদর্শক বলেন, জেলখানাগুলো চলছে ব্রিটিশ সময়কার কারা কনসেপ্ট অনুযায়ী। কারা কনসেপ্টকে সংশোধনাগারের কনসেপ্টে আমরা যারা কাজ করছি তাদের মাইন্ডসেট পরিবর্তন করতে হবে। আমাদের নীতি নির্ধারকদের মাইন্ডসেট পরিবর্তন করতে হবে। আমাদের দেশের মাইন্ডসেট পরিবর্তন করতে হবে। অনুষ্ঠানে দ্যা অ্যাপারেল নিউজের সহায়তায় গাজীপুর জেলা কারাগারে বন্দীদের জন্য ২১টি মেশিন ও প্রশিক্ষণের নানা উপকরণ দেয়া হয়।

এফ/১০:৪৫/২৮ আগষ্ট

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে