Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৮-২৬-২০১৬

যথেষ্ট 'কোরবানির পশু' রয়েছে দেশেই

যথেষ্ট 'কোরবানির পশু' রয়েছে দেশেই

ঢাকা, ২৬ আগষ্ট- দেশে গত এক বছরে গবাদিপশুর (গরু-মহিষ-ছাগল-ভেড়া) সংখ্যা বেড়েছে প্রায় ৫ লাখ ২০ হাজার। মাংসের মূল্যবৃদ্ধি, ৫ শতাংশ সুদে গবাদিপশু পালনে ঋণের সুবিধা এবং বিক্রির নিশ্চয়তা—এসব কারণে গবাদিপশু পালন বেড়েছে বলে জানিয়েছেন খামারিরা।খামারি, চামড়া ও মাংস ব্যবসায়ী সমিতি এবং প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের সূত্রমতে, গবাদিপশু পালন বৃদ্ধি পাওয়ায় আসন্ন পবিত্র ঈদুল আজহায় কোরবানিযোগ্য গরু আছে ৪৪ লাখ ২০ হাজার। ছাগল-ভেড়া রয়েছে ৭০ লাখ ৫০ হাজার।

এ ছাড়া কাগজে-কলমে রপ্তানি বন্ধ থাকলেও ভারত থেকে অনেক গরু আসছে। মিয়ানমার থেকেও গরু আসছে। ফলে এবার কোরবানির জন্য পশুর সংকট হবে না। কারণ, প্রতিবছর কোরবানিতে জবাই হয় ৫০ থেকে ৫৫ লাখ গরু।

বাংলাদেশ চামড়া ব্যবসায়ী সমিতি, মাংস ব্যবসায়ী সমিতি এবং প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, দেশে প্রতিবছর কোরবানির ঈদে ৫০ থেকে ৫৫ লাখ গরু জবাই হয়। এর ৭০ থেকে ৮০ শতাংশ সরবরাহ করতেন দেশের খামারিরা। বাকি গরু ভারত ও মিয়ানমার থেকে আসত। গত বছর ভারত থেকে গরু আসা প্রায় বন্ধ হয়ে যায়। এতে দেশে গরুর দাম কিছুটা বাড়লেও তেমন সংকট হয়নি। প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অজয় কুমার রায় বলেন, ‘গত বছর ভারত থেকে খুব অল্প গরু এসেছে। ফলে আমরা দেশি গরু দিয়েই কোরবানির চাহিদা মিটিয়েছি। আশা করি, এ বছরও গরু নিয়ে কোনো সংকট হবে না।’

গরু ব্যবসায়ীরা বলছেন, ভারতের বিজেপি সরকারের পক্ষ থেকে গত বছরের শুরুতে হঠাৎ করে বাংলাদেশে গরু রপ্তানি বন্ধ করা হয়। গরু চোরাচালান রোধে সীমান্তে কড়াকড়ি আরোপ করা হয়। সীমান্তে কাঁটাতারের বেড়া ও গরু আসার করিডরগুলোতে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ) কঠোর নজরদারি করে। ফলে ভারত থেকে গরু আসা প্রায় বন্ধ হয়ে যায়। আগে যেখানে কোরবানির আগে ভারত থেকে ২০-২৫ লাখ গরু আসত, সেখানে গত বছর তা কমে দাঁড়ায় আড়াই লাখে।

আর/১০০:১৪/২৬ আগষ্ট

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে