Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 2.7/5 (11 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৮-২২-২০১৬

অ্যাঞ্জেলিনা জোলি এবং ব্রাড পিটের মতে অভিভাবক যেমন হওয়া উচিত

আফসানা সুমী


অ্যাঞ্জেলিনা জোলি এবং ব্রাড পিটের মতে অভিভাবক যেমন হওয়া উচিত

ভাল অভিভাবক হওয়া সহজ কোন বিষয় নয়। তার উপর আপনার যদি হয় ৬টি সন্তান। কিন্তু অভিভাবক যখন অ্যাঞ্জেলিনা জোলি এবং ব্রাড পিট তখন কিন্তু ঘটনা ভিন্ন। তারা শুধু সন্তান নেনই নি, বড়ও করে চলেছেন সফলভাবে। আসুন জেনে নিই, সন্তান পালনের ব্যাপারে তাদের মতামত। আজ অ্যাঞ্জেলিনার ভাবনা-
 
শিক্ষকদের অবশ্যই যথাযোগ্য বেতন দিতে হবে
এঞ্জেলিনা মনে করেন যারা আমাদের ভবিষ্যত প্রজন্মকে শিক্ষিত করার দায়িত্ব নেন তাদের অবশ্যই ভাল বেতন বা সম্মানী দিতে হবে। যুক্তরাষ্ট্রের মত একটি দেশে যথাযোগ্য বেতন পায় না শিক্ষকেরা এটি খুবই লজ্জাকর ব্যাপার। তিনি মনে করেন, শিক্ষকরা খুশী থাকলেই তারা বাচ্চাদের শিক্ষা দেওয়ার ব্যাপারে মনোযোগী হন। তাই অ্যাঞ্জেলিনা কখনো গৃহশিক্ষকদের সাথে বেতন নিয়ে বাক-বিতন্ডা করেন না।
 
আমার বাসা সেটাই যেখানে আমার সন্তানরা আছে
অ্যাঞ্জেলিনার এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় যেতে কোন সমস্যা নেই। কারণ তিনি মনে করেন তার সন্তানেরা সাথে থাকলেই তিনি যেখানেই যান না কেন সেটাই হবে তার ঘর। এঞ্জেলিনার ডাচ বাবার শরীরে রয়েছে জার্মান এবং চেক রক্ত। তার মায়ের পূর্বপুরুষ ছিলেন Iroquois ইন্ডিয়ান। অ্যাঞ্জেলিনা মনে করেন এই কারণেই কোন জায়গার সাথে তার সেভাবে ঘনিষ্ঠতা তৈরি হয় না। শিশুরা তার সাথে থাকাই তার জন্য যথেষ্ট।
 
মা হওয়া নিজের বাবা-মাকে ক্ষমা করতে সাহায্য করে
অদ্ভুত শোনালেও কথাটা সত্যি। অ্যাঞ্জেলিনার বাবার অনেক কাজই তার পছন্দ ছিল না। অনেক ব্যাপারেই রাগ-দুঃখ ছিল তার। কিন্তু নিজে তিনি যখন মা হয়েছেন তখন তিনি বাবার অনেক সিদ্ধান্তকে বুঝতে পেরেছেন, ক্ষমা করতে পেরেছেন। তিনি মনে করেন, এভাবেই একজন মা আরও ভাল মা হতে পারেন।
 
ভাল বাবা সেই যে কিনা কঠিন পরিস্থিতি সামাল দিতে পারেন
বাবাকে অনেক সহনশীল হতে হবে। আবার কঠিন পরিস্থিতে দ্রুত সিদ্ধান্তও নিতে পারা চাই। সন্তানরা যেমন হোক না কেন বাবাকে মাথা ঠান্ডা রেখে সন্তানদের সমস্যা সমাধান করতে পারতে হবে। অ্যাঞ্জেলিনা মনে করেন, আদর্শ বাবা তার সন্তানদের জন্য সব করতে পারে।
 
সন্তানের সামনে ঝগড়া নয়
স্বামি-স্ত্রীর মাঝে ঝগড়া হতেই পারে। কিন্তু কখনোই সেটা সন্তানদের সামনে তো নয়ই, বাইরের কারও সামনেও হওয়া উচিৎ নয়। আপনি হয়ত আপনার সন্তানের সামনে ঝগড়া করলেন না। কিন্তু পরিবারের অন্যদের সামনে করলেন। এতে অন্যদের মাধ্যমেও শিশুদের কাছে আপনাদের মধ্যকার সমস্যার কথা পৌছতে পারে। এমনকি উচ্চস্বরে কথা বলা বা এমন কোন আচরণ যা সন্তানের মনে এই ধারণা তৈরি করে যে তার বাবা-মায়ের মাঝে কোন সমস্যা আছে সেটা কখনোই তার সামনে করা উচিৎ নয়। অ্যাঞ্জেলিনা মনে করেন, শিশুর সামনে একে অপরকে প্রশ্ন করার মত বাজে কিছু আর হয় না। এতে শিশুর মানসিক বিকাশে মারাত্মক প্রভাব পড়ে।
 
লিখেছেন- আফসানা সুমী

এফ/০৯:৪০/২২আগষ্ট

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে