Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 1.5/5 (2 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৮-১৯-২০১৬

আপনার ব্যবহৃত টুথব্রাশটি জীবাণুর আখড়া !

আপনার ব্যবহৃত টুথব্রাশটি জীবাণুর আখড়া !

আপনি হয়তো বিশ্বাসই করবেন না যে, সকালে ঘুম থেকে জেগে অথবা রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে আপনি যে টুথব্রাশটি দিয়ে দাঁত মাজেন তা জীবাণুতে ভরপুর থাকে! ব্যবহৃত টুথব্রাশে মৌখিক জীবাণু, ভাইরাস এবং ব্যাকটেরিয়া থাকে যা ইনফেকশন সৃষ্টি করতে পারে। ইংল্যান্ডের ম্যানচেস্টার বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকদের মতে, ব্যবহৃত টুথব্রাশ E.coli   ও   Stephaylococci   ব্যাকটেরিয়াসহ ১০০ মিলিয়নের বেশি জীবাণুর আবাস। বারমিংহামের আলাবামা বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকেরা বলেন, ব্যবহার করা টুথব্রাশে গাদের জীবাণুও থাকে। এগুলো জানার পর নিশ্চয়ই খুব অরুচিকর লাগছে! কিন্তু আতংকিত হবেন না। কারণ আমাদের মুখেও প্রচুর ব্যাকটেরিয়া থাকে।  আর টুথব্রাশ পরিষ্কার রাখার ও কিছু উপায় আছে। চলুন তাহলে টুথব্রাশ পরিষ্কার রাখার উপায়গুলো জেনে নিই।

১। হাইড্রোজেন পারঅক্সাইড
টুথব্রাশকে জীবাণুমুক্ত করতে সবচেয়ে কার্যকরী হচ্ছে হাইড্রোজেন পারঅক্সাইড ব্যবহার করা। এক কাপ পানিতে ১ চামচ হাইড্রোজেন পারঅক্সাইড মিশান। আপনার টুথব্রাশটি ব্যবহারের পূর্বে এই মিশ্রণটিতে ভিজিয়ে রাখুন ৩০ সেকেন্ড। তারপর গরম পানি দিয়ে ব্রাশটি ধুয়ে ফেলুন। এর ফলে আপনার টুথব্রাশটি জীবাণুমুক্ত হবে। হাইড্রোজেন পারঅক্সাইড এর পরিবর্তে মাউথওয়াশ ব্যবহার করতে পারেন।

২। ভিনেগার
টুথব্রাশ পরিষ্কার করার আরেকটি ভালো উপায় হচ্ছে ভিনেগার ব্যবহার করা। ভিনেগারের মধ্যে আপনার টুথব্রাশটি ভিজিয়ে রাখলে অধিকাংশ জীবাণু এবং ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস হয়ে যাবে।

৩। গরম পানি
টুথব্রাশ পরিষ্কার করার জন্য গরম পানিও ব্যবহার করতে পারেন। এক কাপ গরম পানির মধ্যে আপনার টুথব্রাশটি ভিজিয়ে রাখুন। ভালো ফলাফলের জন্য ৩-৫ মিনিট ভিজিয়ে রাখতে হবে।

৪। ডিশওয়াশার
টুথব্রাশ পরিষ্কার করার আরেকটি চমৎকার উপায় হচ্ছে ডিশওয়াশার দিয়ে পরিষ্কার করা। এটি কিছুটা অদ্ভুত শোনালেও বাসনকোসন পরিষ্কারক দ্বারা খুব ভালোভাবে পরিষ্কার ও জীবাণুমুক্ত করা যায় টুথব্রাশ।

এছাড়াও টুথব্রাশ ব্যবহারের পূর্বে ও ব্যবহারের পরে কয়েক সেকেন্ড যাবৎ কলের পানিতে ভালো করে ধুয়ে নিন। টুথব্রাশ কখনো বাথরুমে রাখা ঠিক নয়, এতে জীবাণুর সংক্রমণ বেশি হয়। টুথ ব্রাশের কভার ব্যবহার না করে খোলা রাখুন যাতে ব্রাশটি শুষ্ক থাকে, কারণ আর্দ্রতার মাঝে ব্যাকটেরিয়ার বৃদ্ধি হয় বেশি। ব্রাশ হোল্ডারে টুথব্রাশের মাথাটি উপরের দিকে উঠিয়ে রাখুন এবং আপনার ব্রাশটি অন্যকারো ব্রাশের সাথে মিলিয়ে রাখবেন না। টুথ ব্রাশ আলাদা আলাদা রাখা উচিৎ। না হলে এক ব্রাশ থেকে জীবাণু অন্য ব্রাশে ছড়িয়ে পড়ে সহজেই। একজনের টুথব্রাশ অন্য আরেকজন যেন ব্যবহার না করে সেদিকে খেয়াল রাখুন। ৩-৪ মাস পর পর আপনার টুথব্রাশটি পাল্টে ফেলুন। বড়দের তুলনায় ছোটদের টুথব্রাশ আরো তাড়াতাড়ি পরিবর্তন করা উচিৎ।        

লিখেছেন- সাবেরা খাতুন

এফ/১০:২০/১৯আগষ্ট

সচেতনতা

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে