Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 2.9/5 (7 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৮-১৮-২০১৬

আত্মবিশ্বাসী ডায়নার ফেরা...

Shamima Seema


আত্মবিশ্বাসী ডায়নার ফেরা...

২০১২ সালের বলিউডের অন্যতম সুপারহিট সিনেমা ‘ককটেল’। হিন্দি সিনেমা ইন্ডাস্ট্রির বড় তারকা সাইফ আলি খান ও জনপ্রিয় নায়িকা দীপিকা পাড়ুকোনের সঙ্গে এই ছবিতে সমান তালে তাল মিলিয়ে অভিনয় করেন এক নবাগতা শিল্পী। সিনেমাটি মুক্তির আগে সেই ‘সাইড’ নায়িকা সম্পর্কে কেউ জানতই না। সিনেমাটি প্রেক্ষাগৃহে আসতেই হইচই পরে যায় চারপাশে। এর কারণ শুধু দীপিকা ও সাইফের অভিনয় নয়। সিনেমায় দর্শক পেয়েছিলেন একটি ফ্রেস চেহারা। নতুন হয়েও ‘মীরা’ চরিত্রটি পর্দায় অসম্ভব সুন্দর করে ফুটিয়ে তুলেছিলেন সেই অভিনেত্রী। তিনি মুম্বাইয়ের একজন সুপার মডেল ডায়না পেন্টি। 


‘ককটেল’ সুপারহিট হওয়ায় প্রথম সিনেমাতেই বিরাট সাফল্য পেয়ে যান ডায়না। সেরা নবাগতা অভিনেত্রী হিসেবে ‘ফিল্মফেয়ার’ এর মত বড় পুরস্কার বাগিয়ে নেন তিনি। শুধু তাই নয়, ২০১৩ সালে অনুষ্ঠিত সবক’টি পুরস্কারের মঞ্চ থেকে সেরা নবাগতা অভিনেত্রীর স্বীকৃতি পান ডায়না। তবে সিনেমাই কিন্তু তার প্রথম সাফল্যের মঞ্চ ছিল না। ২০০৫ সাল থেকে নিয়মিত মডেলিং করে আসছিলেন তিনি। ফ্যাশন র‍্যাম্প মডেল হিসেবে অসংখ্য ফ্যাশন ফেস্টিভ্যালে ভারতের প্রতিনিধি হয়ে অংশ নেন ডায়না। ২০০৮ থেকে ২০১০ সালের মধ্যে মডেলিং জগতের আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও তার নাম পৌঁছে যায়।


অনেক ভক্ত অনুরাগী হয়তো জানেন না, ২০১১ সালেই বলিউডে প্রবেশ করার কথা ছিল তার। রণবীর কাপুর অভিনীত ইমতিয়াজ আলীর সুপারহিট ‘রকস্টার’ ছবির মাধ্যমে পা রাখতে পারতেন তিনি বলিপাড়ায়। কিন্তু মডেলিংয়ে চুক্তির কারণে সেটি সম্ভব হয় নি। ‘রকস্টার’ এ ডায়নাকে দিয়ে অভিনয় না করাতে পারার আক্ষেপ হয়ত ছিল নির্মাতা ইমতিয়াজের মনে। আর তাই ‘ককটেল’ ছবিতে পরিচালককে ডায়নাকে নেয়ার জন্য তিনিই অনুরোধ করেন। এরপর তিনি চুক্তিবদ্ধ হন হোমি আদাজানিয়ার ‘ককটেল’ ছবিতে। এরপর বাকিটা ইতিহাস। বলিউডের বড় চলচ্চিত্রবোদ্ধারা ডায়নার প্রশংসার ফুলঝুরি নিয়ে বসেন। তাদের মতে, ‘এই সিনেমায় ‘মীরা’র মত সাদাকালো চরিত্র যে এমন রঙিন করে তুলতে পারে, সে নির্দ্বিধায় একজন গুণী শিল্পী।’


তবে এত প্রশংসা ডায়নার জন্য সুখকর ছিল না। উল্টো বুমেরাং হয়ে ধরা দিল তার ক্যারিয়ারে। প্রত্যাশার পাহাড়সম বোঝা চেপে বসে তার উপর। যে কারণে ২০১২ সালের পর রুপালি পর্দা থেকে হারিয়ে যান ডায়না। তিনি চার বছর সময় নেন নতুন ছবি হাতে নিতে। তবে মাঝের এই সময়গুলো অযথা ব্যয় করেন নি এই মডেল তথা নায়িকা। এই সময় বড় পর্দায় সাময়িক নির্বাসনে থাকলেও মডেলিং, টেলিভিশন কিংবা বিজ্ঞাপনে ছিলেন। ‘ট্রেসেমে’, ‘নোকিয়া’ সহ বেশ কিছু আন্তর্জাতিক ব্র্যান্ডের হয়ে মডেলিং চালিয়ে গেছেন। সেই সঙ্গে সিনেমার জন্য নিজেকে তৈরি করেছেন তিনি।


সত্যিই তিনি এবার আটঘাট বেঁধে নেমেছেন সিনেমা যুদ্ধমঞ্চে। আসছে ১৯ আগস্ট মুক্তি পেতে যাচ্ছে তার অভিনীত দ্বিতীয় সিনেমা ‘হ্যাপি ভাগ যায়েগি’। ছবিটি মুক্তির প্রান্তে দাঁড়িয়ে ডায়না স্বীকার করেছেন, দ্বিধা-সংকোচ আর সিদ্ধান্তহীনতা কাটিয়ে উঠতেই তার লেগে গেল এতগুলো দিন। তার ভাষায়, ‘আমি অনেকের সঙ্গে কথা বলেছি, একের পর এক স্ক্রিপ্ট পড়েছি, কিন্তু কোনো কিছুই ঠিক মনে হয়নি। তবে এর মধ্যে পরিচালক মুদাসসর আজিজ আমাকে ‘হ্যাপি ভাগ যায়েগি’র গল্পটা বললেন। সেও অবশ্য দেড় বছর আগের কথা।’ ডায়নার সরল স্বীকারোক্তি, ‘বাকিদের তুলনায় দ্বিতীয় ছবিটি করতে একটু বেশি সময়ই নিয়েছি। আসলে চরিত্র বেছে নিতে অন্য পথে হেঁটেছি। নিজেকে মানসিক চাপে ফেলতে চাইনি এটা ভেবে যে, অনেকদিন ধরে কিছুই করছি না, বেকার বসে আছি! আমি কখনোই সময়সীমা বেঁধে দিয়ে কিছু করতে চাইনি।’


‘তনু ওয়েডস মনু’ ছবি খ্যাত নির্মাতা আনন্দ এল রাইয়ের প্রোডাকশন থেকে মুক্তি পেতে যাওয়া রোমান্টিক-কমেডি ধাঁচের ছবিটি পরিচালনা করেছেন মুদাসসার আজিজ। এতে ডায়নার সহশিল্পী অভয় দেওল, জিমি শেরগিল ও আলি ফজল। ‘ককটেল’ ছবির সেই শান্ত, সরল চরিত্রে অভিনয় করা ডায়না পেন্টি এবারের ছবিতে সম্পূর্ণ অন্য লুক’ এ দেখা দেবেন। হরপ্রীত কৌর হ্যাপি নামে এক পাঞ্জাবি মেয়ের চরিত্রে অভিনয় করছেন ডায়না। যে অমৃতসরের এক সাধারণ পরিবারের মেয়ে হয়েও স্বাধীনচেতা এবং স্পষ্টবাদী। সব প্রতিকূল অবস্থা নিজেই সামলে নিতে পারে হ্যাপি। তার জীবনের গল্প নিয়েই রোমান্টিক কমেডি ‘হ্যাপি ভাগ যায়েগি’।


আপাতত ডায়না ‘হ্যাপি ভাগ যায়েগি’র প্রচার নিয়ে ব্যস্ত। সেই প্রচারণা চালাতে গিয়ে তিনি হাজির হয়েছিলেন ভারতীয় বিখ্যাত গণমাধ্যম ‘টাইমস অব ইন্ডিয়া’র অফিসে। সেখানে ডায়না তার মডেলিং থেকে রুপালি জগতের যাত্রা, বিরতি ও আসন্ন ছবি ‘হ্যাপি ভাগ যায়েগি’ নিয়ে আলাপ করেন। প্রিয়.কমের পাঠকদের জন্য সেই সাক্ষাৎকারটি অনুবাদ করে উপস্থাপন করা হল এই প্রতিবেদনে-


দ্বিতীয় ছবিটিতে চুক্তিবদ্ধ হতে চার বছর সময় নিলেন কেন?
ডায়না পেন্টি:
আমি এই সময়ের মধ্যে অনেকের সঙ্গে কথা বলেছি, একের পর এক স্ক্রিপ্ট পড়েছি, কিন্তু কোনো কিছুই ঠিক মনে হয়নি। তবে এর মধ্যে পরিচালক মুদাসসর আজিজ আমাকে ‘হ্যাপি ভাগ যায়েগি’র গল্পটা বললেন। সেও অবশ্য দেড় বছর আগের কথা। বাকিদের তুলনায় দ্বিতীয় ছবিটি করতে একটু বেশি সময়ই নিয়েছি। আসলে চরিত্র বেছে নিতে অন্য পথে হেঁটেছি। নিজেকে মানসিক চাপে ফেলতে চাইনি এটা ভেবে যে, অনেকদিন ধরে কিছুই করছি না, বেকার বসে আছি! আমি কখনোই সময়সীমা বেঁধে দিয়ে কিছু করতে চাইনি। এর মাঝে অনেক কিছু করে আমি নিজেকে ব্যস্ত রেখেছি। মডেলিং, টিভি বিজ্ঞাপন, ভ্রমণ- এসবে নিয়েই ছিলাম এতদিন। আমি সবসময় একটি বিষয়ে স্বচ্ছ ছিলাম, সেটি হচ্ছে- আমি সবসময় সেটিই করি, সেটি আমি মন থেকে পছন্দ করি। কিন্তু যদি আমি কোন কাজ নিজের মনের বিরুদ্ধে যেয়ে করি, এর কারণে তো পৃথিবী ধ্বংস হয়ে যাবে না! তবে এটা ঠিক যে, আমি আমার জীবনে প্রতিযোগিতাকে প্রাধান্য দেই নি। যারা আমার এই ছবিটিকে আমার ‘কামব্যাক’ সিনেমা বলছে, তাদের উদ্দেশ্যে আমি বলতে চাই- আমি কখনও এই মঞ্চ ছাড়িই নি যে ফিরে আসার কথা বলা হবে!


এই ছবির চিত্রনাট্যে কি ছিল যা আপনাকে আকর্ষিত করেছে?
ডায়না পেন্টি:
বেশিরভাগ স্ক্রিপ্ট পেয়েছি যেখানে সেই পুরনো ছেলের সঙ্গে মেয়ের পরিচয়, প্রেম বিচ্ছেদ নির্ভর কাহিনী। বিষয়টি আমার কাছে একঘেয়ে লাগতে শুরু করে। কিন্তু যখন আমি ‘হ্যাপি ভাগ যায়েগি’র স্ক্রিপ্টে একটি মেয়ের অন্য একটি অপরিচিত জায়গায় চলে যাওয়ার কাহিনী শুনলাম, আমি বুঝতে পারি অনিচ্ছাকৃত ভুলে ভরা কমেডি নির্ভর সিনেমা হতে যাচ্ছে এটি। আমি সঙ্গে সঙ্গেই হ্যা বলে দেই। তবে যদি আমি এখন বলি, এই স্ক্রিপ্টটি অন্যান্যদের থেকে আলাদা, তাহলে এটি একঘেয়ে শোনাবে। কিন্তু তা স্বত্তেও ব্যাপারটি সত্যি। এমন নয় যে এমন কিছু আমি আগে দেখি নি বা পড়ি নি। ফ্যাশন র‍্যাম্পে হেঁটে যাওয়া বধূবেশে থাকা কারও জন্য এটি একটি গল্প থেকে বেশি কিছু। শুধু চরিত্র বলে নয়, পুরো স্ক্রিপ্টই বিচিত্র ও মজাদার। সেই সঙ্গে আমি তিনজন সুদর্শন অভিনেতার সঙ্গে কাজ করার সুযোগ পেয়েছি!

আপনি কি বাস্তব জীবনেও পর্দার ‘হ্যাপি’র মত?
ডায়না পেন্টি: হ্যাপি অনেক বেশি দুরন্ত, আবেগপ্রবণ- যা আমি একেবারেই নই। আমি মনে করি আমি আগে কাজ করা তারপর প্রকাশ করা টাইপ মানুষ। আমার নিজের সঙ্গে মিল পেয়েছিলাম ‘ককটেল’ ছবির মীরা চরিত্রের সঙ্গে, যে বেশ অন্তর্মুখী, স্বল্পভাষী ও সংযত। তবে একটি বিষয়ে হ্যাপির সঙ্গে আমার মিল রয়েছে। সেটি হচ্ছে, মতামত প্রকাশের ক্ষেত্রে আমি বেশ কঠিন ও স্বাধীনচেতা।     


এতদিন পর ক্যামেরার সামনে দাঁড়ানোর অভিজ্ঞতা কেমন ছিল?
ডায়না পেন্টি: আমি জানতাম বিষয়টি বেশ কঠিন হবে। তবে আশ্চর্যজনকভাবে দেখতে পেলাম, আমি অতটা খারাপ করছি না। যখন ‘ককটেল’ করেছি, প্রতিটি দিন নতুন ছিল প্রতিটি দৃশ্যের জন্য। আমি জানি, মাঝে আমি অনেক সময় নিয়েছি। কিন্তু এই বিরতির পর আমি যখন অনেক মানুষের সঙ্গে মিশ্তে শুরু করলাম, আমি নিজ থেকেই আত্মবিশ্বাসী হয়ে শুরু করি। একসময় আমার জড়তা কাটতে থাকে। এখন আমি বেশ আত্মবিশ্বাসী। 

ক্যামেরার বাইরে কোন সহ অভিনেতার সঙ্গে আপনার বন্ধুত্ব হয়েছে?
ডায়না পেন্টি: তাদের প্রত্যেকেই আমাকে অনেক সমর্থন ও সাহস দিয়েছে। বিশেষভাবে যখন আমরা একসঙ্গে একই ফ্রেমে কাজ করেছি। একজনের থেকে অন্যজন বেশি পাগলাটে ধরণের। তবে এর মধ্যে জিমি শেরগিল সবচেয়ে বেশি শান্ত। আমি সবচেয়ে বেশি সময় কাটিয়েছি মোমেল শেখের সঙ্গে। তিনি একেবারে মাটির মানুষ। তার সঙ্গে কাজ করা সহজ।


এরপর কি ধরণের প্রজেক্টে কাজ করতে চান?
ডায়না পেন্টি: একই ধরণের চরিত্রে বারবার আসতে চাই না। আবারও একদম নতুন ও ভিন্ন কোন চরিত্রে অভিনয়ে ফিরতে চাই। এবার হয়ত থ্রিলার কিংবা অ্যাকশন ঘরানার চরিত্রে ভালো লাগবে আমাকে। তবে একজন খেলোয়াড় অথবা গানের শিল্পীর বায়োপিক হলে তো কথাই নেই! আমি রাজি।

ইন্ডাস্ট্রিতে আপনার বন্ধু কে?
ডায়না পেন্টি: যেহেতু আমি মানুষকে জানতে অনেক সময় নেই, তাই বন্ধুত্ব করতে বেশ সময় লেগে যায়। আমি এখানে কারও সঙ্গে বন্ধুত্ব করতে আসি নি। কাজের দিক থেকে সবার সঙ্গেই আমার সম্পর্ক বেশ ভালো। এর বাইরে বন্ধু আছে আমার যাদের সঙ্গে আমার ২৩ বছরের বন্ধুত্ব।


ইন্ডাস্ট্রিতে এমন কেউ আছেন, যার ক্যারিয়ার আপনাকে অনুপ্রাণিত করে?
ডায়না পেন্টি: আমি মনে করি না আমি অন্য কারো মত করে পারব। আমি সবকিছুই বেশ অস্বাভাবিকভাবে করি। এই কারণে আমি মনে করি অন্য কারও সঙ্গে আমাকে তুলনা করা উচিত হবে। সব মানুষেরই অর্জনের আলাদা ধরন থাকে। তেমনি ভাবে আমারটাও ভিন্ন কিছু হবে। আমি সব কাজের ক্ষেত্রে বেশি সময় নিয়ে থাকি। আগে থেকে আমার কোন পরিকল্পনা থাকে না। একটি সময়ের জন্য একটি ধাপ পার করা আমার স্বভাব। আর আমি এমনই থাকতে চাই। 

এফ/১০:৫০/১৮আগষ্ট

বলিউড

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে