Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 3.0/5 (5 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৮-১৮-২০১৬

সন্ত্রাসবাদের দায়ে ১০ বছরের কারাদণ্ডের মুখে মৌলবাদী ধর্মবেত্তা

সন্ত্রাসবাদের দায়ে ১০ বছরের কারাদণ্ডের মুখে মৌলবাদী ধর্মবেত্তা

লন্ডন, ১৮ আগষ্ট- জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেট (আইএস)-এর পক্ষে প্রচারণা চালানো এবং জঙ্গি তৈরির অভিযোগে ব্রিটেনের সবচেয়ে ‘বিদ্বেষপূর্ণ’ বক্তব্য দেওয়া মৌলবাদী ধর্মবেত্তা আনজেম চৌধুরী এবং তার সহযোগী মিজানুর রহমানকে অভিযুক্ত করেছেন আদালত। অপরাধ প্রমাণিত হলে এ মৌলবাদী ধর্মবেত্তার ১০ বছরের কারাদণ্ড হতে পারে বলে জানিয়েছে আদালত। এ বিষয়টি  নিয়ে বুধবার শিরোনাম করেছে যুক্তরাজ্যভিত্তিক সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ান।

ব্রিটেনে জন্ম নেয়া পাকিস্তানী বংশোদ্ভূত আনজেম চৌধুরী লন্ডনের ইলফোর্ডে বসবাসকারী ৫ সন্তানের জনক। আদালতে নিজেই তার পক্ষে লড়েন এবং নিজেকে নির্দোষ হিসেবে দাবি করেন। আনজেম চৌধুরী নিজেই একজন আইনজীবী এবং মুসলিম ল’ইয়ার নামক সংগঠনের চেয়রাম্যান হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন।

আদালতের শুনানির পর সন্ত্রাসবাদ আইন-২০০০ অনুযায়ী আনজেম চৌধুরী এবং মিজানুর রহমানকে দোষী সাব্যস্ত করেছেন আদালত। বিচারক হলরয়েড জানিয়েছেন, তাদের ১০ বছরের কারাদণ্ড হতে পারে। সন্ত্রাসবিরোধী পুলিশ গত ২০ বছরের তথ্য-প্রমাণাদি সংগ্রহ ও তা বিশ্লেষণ করে আদালতে উপস্থাপন করেছে।

গত বছর থেকে তার বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগ গঠনের কাজ চলছে। আনজেম চৌধুরী ও তার সহযোগী মোহাম্মদ মিজানুর রহমান নামে দুইজনের বিরুদ্ধে আইএস-এর পক্ষে মানুষকে উৎসাহিত করার অভিযোগ গঠন করা হয়। আনজেম চৌধুরী ও রহমানের প্রকাশিত এক অনলাইন বার্তায় দেখা গেছে আইএস নেতা আবু বকর আল বাগদাদীর বক্তব্যকে সমর্থন দিচ্ছেন তারা।

এর আগে স্পেশাল ক্রাইম এন্ড কাউন্টার টেররিজম-এর প্রধান সু হ্যামিং জানান, মেট্রোপলিটন পুলিশ ও কাউন্টার টেররিজম তদন্তের পরই আনজেম চৌধুরী ও মিজানুর রহমানের বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ আনা হয়।

তিনি আরও জানান, ‘আমাদের কাছে প্রমাণ আছে আনজেম চৌধুরী ও রহমান আইএস এ যোগ দেয়ার জন্য সাধারণ মুসলিমদের দাওয়াত দিচ্ছেন। ২০১৪ সালের ২৯ জুন এবং চলতি বছরের ৬ মার্চ এই দুই ব্যাক্তি একই ধরণের অপরাধ করেছেন। যা সন্ত্রাসবাদ আইন- ২০০০ এর ১২ ধারাকে অমান্য করেছে।’

২০১১ সালে ব্রিটেনের কিছু এলাকায় শরিয়া আইন চালুর জন্য পোস্টারিং করিয়েছিলেন বলে সেই সময় ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ডেইলি মেইলকে স্বীকার করেছিলেন আনজেম চৌধুরী। ২০১৩ সালে উলউইচে ব্যারাকের সামনে সেনা সদস্যকে খুনের পিছনে আনজেম চৌধুরীর সংশ্লিষ্টতার বিষয়টি সংবাদ মাধ্যমে আলোচিত ছিল।

আনজেম চৌধুরীর ও মিজানুর রহমানের প্রচারিত বক্তব্যে দেখা গেছে তারা আইএস-কে সমর্থন ও তাতে যোগ দেওয়ার আহ্বান জানাচ্ছেন। আনজেম ‘আল মুহজিরুন’ নামে একটি ইসলামি সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য, যা ১৯৯৬  সালে ওমর বাকরি মোহাম্মদের নেতৃত্বে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। বাকেরির সহযোগী হিসেবে আনজেম শত শত  মুসলিম তরুণকে উৎসাহিত করেছেন এবং কিছুদিন পর নিজেকে শরিয়া বিশেষজ্ঞ হিসাবে দাবি করেন। ব্রিটেনের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ২০১০ সালে সংগঠনটি নিষিদ্ধ করে দেয়।

উল্লেখ্য, এর আগে একবার আনজেম চৌধুরী দাবি করেছিলেন, ব্রিটেনের বাকিংহাম প্যালেসকে মসজিদে পরিণত করতে হবে। তিনি এমন একটি এডিট করা ছবিও প্রচার করেছিলেন। ঘরের বাইরে বেরোতে চাইলে অন্য নারীদের মতো রাণীকেও বোরকা পরার উপদেশ দেন তিনি।

এফ/০৯:৫৫/১৮আগষ্ট

ইউরোপ

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে