Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 3.3/5 (6 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৮-১৭-২০১৬

কী হবে জার্মান কুকুরটির?

তাজুল ইসলাম পলাশ


কী হবে জার্মান কুকুরটির?

চট্টগ্রাম, ১৭ আগষ্ট- চট্টগ্রামে আলোচিত হিমু হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত রটউইলার জাতের একটি কুকুর নিয়ে বিপাকে পড়েছে চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ। মামলার আলামত হিসেবে উদ্ধার করা জার্মানির তিনটি কুকুরের মধ্যে জীবিত ওই কুকুরটির পিছনে চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ প্রতি মাসে খরচ হচ্ছে বিপুল পরিমাণ টাকা।

টানা চার বছর ধরে চলতে থাকা আলোচিত হিমু হত্যার মামলার রায় হয়েছে গত ১৪ আগস্ট। এখন কী হবে জার্মান এই কুকুরটির? কুকুরটির পেছনে বছরে খরচ হচ্ছে লাখ টাকারও বেশি। এ নিয়ে বিপাকে রয়েছে চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, ২০১২ সালের ২৭ এপ্রিল নগরীর পাঁচলাইশ থানার ১ নম্বর সড়কের ‘ফরহাদ ম্যানশন’ নামে ১০১ নম্বর বাড়ির চার তলায় কুকুর লেলিয়ে দিয়ে ছাদ থেকে ফেলে দেওয়া হয় হিমাদ্রী মজুমদার হিমুকে। তিনি নগরীর ইংলিশ মিডিয়াম সামার ফিল্ড স্কুল অ্যান্ড কলেজের 'এ' লেভেলের শিক্ষার্থী ছিলেন। অচেতন অবস্থায় তাকে প্রথমে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। অবস্থার অবনতি হলে তাকে দ্রুত রাজধানী ঢাকার একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে টানা ২৬ দিন চিকিৎসাধীন থাকার পর ওই বছরের ২৩ মে হিমু মারা যায়। এ ঘটনায় হিমুর মামা প্রকাশ দাশ অসিত পাঁচজনকে আসামি করে মামলা করেন। মামলায় ৫টি কুকুর লেলিয়ে দিয়ে হিমুকে ছাদ থেকে ফেলে দেওয়া হয় বলে উল্লেখ করা হয়। 

২০১২ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর পাঁচলাইশ থানা পুলিশ ওই মামলায় এজাহারভুক্ত পাঁচজন আসামিকে অন্তর্ভুক্ত করে আদালতে চার্জশিট দেয়। ১৮ অক্টোবর পলাতক আসামিদের বিরুদ্ধে  গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন। সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে ২০১৫ সালের ১০ সেপ্টেম্বর আদালতে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শুরু হয়। যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে প্রায় সাড়ে ১০ মাস পর চলতি বছরের ২৮ জুলাই রায় ঘোষণার কথা ছিল। কিন্তু বিচারক ছুটিতে থাকায় তা পেছানো হয়েছিল। পরে ১১ আগস্ট রায় ঘোষণার দিন নির্ধারণ করেন আদালত। এবারও দ্বিতীয় দফায় তা পেছানো হয়। এর ৩দিন পর রোবরার (১৪আগস্ট) চট্টগ্রামের চতুর্থ অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ নরুল ইসলাম এ আলোচিত মামলার রায় ঘাষণা করেন।

ওই সময় হিমু হত্যার পর পুলিশ আসামিদের বাসায় তল্লাশি চালিয়ে ৩টি কুকুর উদ্ধার করে। বাকি দুটি কুকুর আসামিরা পালিয়ে যাওয়ার সময় সঙ্গে নিয়ে যায়। আদালতের নির্দেশে ওই সময় রটউইলার জাতের সেই ৩টি জার্মান কুকুর চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় রাখা হয়। এর মধ্যে দুটি কুকুর পরবর্তীতে মারা যায়।


দীর্ঘ সময় চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় বন্দি রটউইলার জাতের সেই কুকুরটির বিষয়ে কোনো সুরাহা হয়েছে কিনা তা জানাতে পারেনি আদালত সংশ্লিষ্টরা। ফলে বিদেশি হিংস্র কুকুরটি নিয়ে বিপাকে রয়েছে চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ।

চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানা সদস্য সচিব ও ডেপুটি রেভিনিও কালেক্টর মো. রুহুল আমিন জানান, স্বাভাবিকভাবে চিড়িয়াখানায় কুকুর রাখা হয় না। ঘটনার পর আদালতের নির্দেশমতে কুকুরটিকে চিড়িয়াখানায় রাখা হয়েছে। কিন্তু এটি স্বাভাবিক কুকুরের মতো নয়। প্রতি মাসে শুধু খাবারের পেছনে কুকুরটির জন্য খরচ হয় ১২ হাজার টাকারও বেশি। এ কুকুরকে রেখে আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হতে হচ্ছে।

চিড়িয়াখানার দায়িত্বরত চিকিৎসক মনজুর মোর্শেদ চৌধুরী জানান, 'এ জাতের কুকুর অনেক বেশি হিংস্র প্রকৃতির হয়ে থাকে। এদের জন্ম জার্মানিতে। কুকুরটি তাজা গরুর মাংস ছাড়া আর কিছুই খেতে চায় না। চাহিদার তুলনায় মাংস কম হলে কুকুরটি সারাক্ষণ ঘেউ ঘেউ করে। তখন এটি আরও হিংস্র আচরণ করতে থাকে।'

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী (পিপি) অনুপম চক্রবর্ত্তী বলেন, মামলায় রায় ঘোষণা হলেও এখনো পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ করেনি আদালত। তাই চাঞ্চল্যকর এ মামলার মূল আলামত সেই বিদেশি কুকুরটির বিষয়ে এখনো আদালতের সিদ্ধান্ত জানতে পারিনি।

জানা যায়, রটউইলার জাতের একটি কুকুর জার্মানি থেকে আনতে খরচ পড়ে এক লাখ টাকারও বেশি। তবে এখানে যদি এ জাতের কুকুর কেউ কিনতে চান তাহলে খরচ পড়ে ৩০ থেকে ৫০ হাজার টাকা।

চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানা সূত্রে জানা যায়, দেশীয় কুকুরের জন্য বিশেষ কোনো নির্দিষ্ট খাবারের প্রয়োজন হয় না। তবে বিদেশি কুকুরটিকে প্রতিদিন চার থেকে পাঁচ কেজি টাটকা গরুর মাংস খাবার হিসেবে দিতে হয়। পচা কিংবা বাসি মাংস খায় না। ফলে হিমু হত্যায় ব্যবহৃত এই কুকুরটির খাবার জোগাতে গিয়ে বেকায়দায় রয়েছে চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ। প্রতি মাসে গড়ে ১০ থেকে ১২ হাজার টাকা খরচ হচ্ছে কুকুরটির পেছনে। বছরে তাই লাখ টাকারও বেশি খরচ হচ্ছে কুকুরটির পিছনে।

এফ/২২:১৫/১৭আগষ্ট

চট্টগ্রাম

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে