Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English
» নাসিরপুরের আস্তানায় ৭-৮ জঙ্গির ছিন্নভিন্ন মরদেহ **** ইমার্জিং কাপে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ       

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৭-২৫-২০১৬

ভালো স্বাস্থ্যের একজন মানুষকে যে কথাগুলো কখনোই বলা উচিৎ নয়

সাবেরা খাতুন


ভালো স্বাস্থ্যের একজন মানুষকে যে কথাগুলো কখনোই বলা উচিৎ নয়

কোন মানুষই ইচ্ছাকৃতভাবে মোটা হন না। কিন্তু তারপরও তার আশেপাশের মানুষের কাছ থেকে তাকে অনেক ধরণের মন্তব্য শুনতে হয়। কিন্তু সচেতনভাবে কখনোই একজন স্থূলকায় মানুষকে যে কথাগুলো বলা উচিৎ নয় সেগুলো সম্পর্কেই জানবো আজ।

১। আপনি কখন ডায়েটিং শুরু করবেন?
এই কথাটি বলার অর্থ হচ্ছে আপনি এই মানুষটির বর্তমান ওজন ও আকার মেনে নিতে পারছেন না। এই কথাটি তাকে লজ্জিত করতে পারে। এই প্রশ্নটি ভালোর চেয়ে খারাপ করতে পারে বেশি।  কারণ একটি গবেষণা প্রতিবেদনে জানা যায় যে, আমেরিকান সাইকোলজিস্টরা চিহ্নিত করেছেন ডায়েটিং করে শরীরের মেদ কমানো দীর্ঘমেয়াদে তেমন কার্যকর হয়না। সাইকোলজিক্যাল বুলেটিন রিভিউ এর মতে, ডায়েটিং ইটিং ডিজঅর্ডারের রিস্ক ফ্যাক্টর হিসেবে কাজ করে।

২। অলসতা পরিত্যাগ করতে পারলে আপনি ওজন কমাতে পারতেন    
অধিক ওজন বহন করার জন্য ব্যাক্তিগতভাবে তাকে দোষারোপ করা হয় এই কথাটি বলে। এমনকি পরিবারের খুব কাছের সদস্যও হয়তো জানেন না কীভাবে তিনি একটি দিন অতিবাহিত করেন। তার অতিরিক্ত ওজনের অনেক ধরণের কারণ থাকতে পারে যা আপনি জানেন না। তা হতে পারে চিকিৎসা সংক্রান্ত কোন বিষয় যা তার নিয়ন্ত্রণের বাইরে।

৩। আপনার কি এটা খাওয়া উচিৎ হবে?
এই ধরণের প্রশ্ন করার অর্থ হচ্ছে ব্যাক্তির খাদ্যের পছন্দের সমালোচনা করা। যার অর্থ দাঁড়ায় তার শরীরের জন্য কোনটা ভালো হবে তা তার চেয়ে আপনি ভালো জানেন। স্বজ্ঞাত খাওয়ার তত্ত্ব অনুযায়ী প্রতিটা মানুষ তার শরীরের জন্য উপযোগী খাদ্যের বিষয়ে বিশেষজ্ঞ। এটা যদি নাও হয় তাও আপনি তাকে বিচার করতে পারেন না। কারণ এতে তার ভালো থাকার উপর নেতিবাচক প্রভাব পড়ে। আপনার শরীর তার মত নয়। তাই আপনার প্রয়োজন নেই তার উপর কোন নিয়ম জারি করার।

৪। কোন ডায়েট টিপসের কথা বলে তাকে বলা- আপনার এটা চেষ্টা করে দেখা উচিৎ!
বেশিরভাগ ডায়েটই অল্প কিছুদিন কার্যকরী হয়। কারণ এগুলোতে আপনার সারাদিনের খাবারের পরিমাণ কমিয়ে বা পরিবর্তন করে করা হয়। তাই এই প্রচলিত ডায়েট গুলো দীর্ঘদিন কাজ করেনা। ডায়েটের এই বাঁধাগুলোই আরো বেশি খাওয়ার ব্যাপারে উদ্বুদ্ধ করে। যার ফলে আগের চেয়ে বেশি খাওয়ার প্রবণতা দেখা দিতে পারে।

৫। আপনি আপনার মন সেট করলেই পাতলা হতে পারেন
কারো ওজন শুধু তার সিদ্ধান্তের বিষয় নয়। চিকিৎসা সংক্রান্ত, সামাজিক বা আর্থিক কারণেও ব্যাক্তির ওজন প্রভাবিত হয়। তাদের ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও তারা কখনোই তা অর্জন করতে সক্ষম হন না। কোন কোন মানুষ প্রাকৃতিক ভাবেই অধিক ওজনের অধিকারী হয়ে থাকেন এবং তারা সুস্থ শরীরের অধিকারী হয়ে থাকেন।

এছাড়াও আরো যে কথাগুলো একজন স্থূলকায় মানুষকে বলা উচিৎ নয় তা হল- আপনি যদি ওজন না কমান তাহলে জীবনসঙ্গী খুঁজে পাবেন না! আপনি কি সুস্থ  থাকতে চান না?, চিন্তা করবেন না আমিও মোটা! আপনাকে সুন্দর দেখাচ্ছে! এই খাবার একবার খেলে আপনি মোটা হবেন না, আপনি কঠোর পরিশ্রম করেন না, আপনার ব্যায়াম কাজে লাগছে না, আপনার কি ওজন কমেছে? ইত্যাদি।      

লিখেছেন- সাবেরা খাতুন

এফ/২২:৫০/২৫জুলাই

জানা-অজানা

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে