Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৭-২৪-২০১৬

জঙ্গি দমনে সন্ত্রাস প্রতিরোধ কমিটির কার্যকর ভূমিকার তাগিদ

মনিরুজ্জামান উজ্জ্বল


জঙ্গি দমনে সন্ত্রাস প্রতিরোধ কমিটির কার্যকর ভূমিকার তাগিদ

ঢাকা, ২৪ জুলাই- দেশে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাস দমনে তিন বছর আগে তৃণমূল পর্যায়ে (ওয়ার্ড, ইউনিয়ন, পৌরসভা ) সন্ত্রাস প্রতিরোধ কমিটি গঠিত হলেও বাস্তবে কমিটির কোনো কার্যক্রম ছিল না। সম্প্রতি গুলশানের হলি আর্টিসান রেস্তোরাঁয় ও শোলাকিয়ায় সন্ত্রাসী হামলার ঘটনার পর সরকারের পক্ষ থেকে জেলা প্রশাসকের নেতৃত্বে গঠিত কোর কমিটি ও তৃণমূল পর্যায়ে সন্ত্রাস প্রতিরোধ কমিটিকে কার্যকর করার তাগিদ দেয়া হয়েছে। 
 
২৬ থেকে ২৯ জুলাই পর্যন্ত চার দিনব্যাপী আসন্ন জেলা প্রশাসক সম্মেলন উপলক্ষে রোববার সচিবালয়ে আয়োজিত প্রেস ব্রিফিংকালে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম জেলা পর্যায়ে সন্ত্রাস প্রতিরোধে জেলা প্রশাসকদের এ বিষয়ে তাগিদ দেন।
 
তিন বছর আগে সন্ত্রাস প্রতিরোধে তৃণমূল পর্যায়ে কমিটি গঠিত হলেও সেই কমিটি কার্যত অকার্যকর উল্লেখ করে গণমাধ্যম কর্মীরা তার মন্তব্য জানতে চাইলে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, পুলিশসহ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বিভিন্ন বাহিনী তথা সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সন্ত্রাস দমনে কাজ করার ক্ষেত্রে আইনগতভাবে দায়বদ্ধ রয়েছে। কিন্তু সাধারণ মানুষের সেই আইনগত দায়বদ্ধতা নেই। সন্ত্রাস দমনে তাদের কাজ করার বিষয়টির সাথে নৈতিক দায়বদ্ধতা বিষয়টি জড়িত। 

তিনি বলেন, মানুষ ক্রাইসিসে না পড়লে সজাগ হয় না। বর্তমান সময়ে জঙ্গিবাদ ইস্যুতে ক্রাইসিসের পর সাধারণ মানুষ নৈতিক দায়বদ্ধতা থেকেই সন্ত্রাস দমনে কার্যকর ভূমিকা রাখবে বলে মনে করেন তিনি। 
 
মোহাম্মদ শফিউল আলম জানান, আসন্ন জেলা প্রশাসক সম্মেলনে বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসকরা সরকারের দর্শন নীতি ও প্রাধিকার সম্পর্কে নির্দেশনা গ্রহণ ও মাঠ পর্যায়ে সরকারের নীতি ও কর্মসূচি বাস্তবায়নের বিভিন্ন দিক সম্পর্কে অবহিত করবেন। 

২৬ জুলাই সকাল ১০টায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের শাপলা হলে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে জেলা প্রশাসক সম্মেলনের উদ্বোধন করবেন। মোট ৩৯টি মন্ত্রণালয়ের অংশগ্রহণে প্রধানমন্ত্রীর ও মন্ত্রিপরিষদ কার্যালয়ে ১৮টি কার্যঅধিবেশনসহ ২২টি অধিবেশন অনুষ্ঠিত হবে। বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসকদের কাছ থেকে মোট ৩৩৬টি প্রস্তাব নিয়ে আলোচনা হবে। সর্বোচ্চ প্রস্তাব এসেছে ভূমি (২৭) ও জনপ্রশাসন (২৫) মন্ত্রণালয় থেকে।

তিনি জানান, এবারের সম্মেলনে প্রধান আলোচনার বিষয়বস্তুর মধ্যে রয়েছে ভূমি ব্যবস্থাপনা, আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির উন্নয়ন, স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানসমূহের কার্যক্রম জোরদার করা, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ ও পুনর্বাসন কার্যক্রম, স্থানীয় পর্যায়ে কর্মসৃজন ও দারিদ্র্য বিমোচন কর্মসূচি বাস্তবায়ন, সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনি কর্মসূচি বাস্তবায়ন, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির ব্যবহার ও ই-গভর্ন্যান্স, শিক্ষার মানোন্নয়ন ও সম্প্রসারণ, স্বাস্থ্যসেবা ও পরিবার কল্যাণ, পরিবেশ সংরক্ষণ ও দূষণ রোধ, ভৌত অবকাঠামোর উন্নয়ন ও উন্নয়নমূলক কার্যক্রমে বাস্তবায়ন, পরীবিক্ষণ ও সমন্বয়। 

মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, বিগত তিন বছরে জেলা প্রশাসক সম্মেলনে গৃহিত প্রস্তাবের বাস্তবায়নের অগ্রগতি সন্তোষজনক। প্রধানত তিনটি পর্যায়ে স্বল্প (১ মাস), মধ্যমেয়াদি (১ বছর) ও দীর্ঘ মেয়াদি (এক বছরের বেশি) গৃহিত সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন হয়। 

২০১৩ সালে ৪৭৪টি প্রস্তাবনার মধ্যে ৪৩৬টি (শতকরা ৯২ ভাগ), ২০১৪ সালে ৪৬৪টির মধ্যে ৪৩২টি (শতকরা ৯৩ ভাগ) ও ২০১৫ সালে ৪৭৮টির মধ্যে ৪৪৭ (শতকরা ৯৩ দশমিক ৫ ভাগ) প্রস্তাবিত সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন হয়।

আর/১৭:১৪/২৪ জুলাই

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে