Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 1.0/5 (2 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৭-১৯-২০১৬

কাটিয়ে উঠুন ক্লান্তি একটি মাত্র কৌশলে!

আফসানা সুমী


কাটিয়ে উঠুন ক্লান্তি একটি মাত্র কৌশলে!

আমরা অনেকেই সারাক্ষণ ক্লান্তবোধ করি। বন্ধুদের আড্ডায়, সিনেমা হলে, অফিসে, টিভি দেখতে দেখতে কখন যে হঠাৎ ঘুমিয়ে পড়ি, তার ঠিক নেই। কাজে অনীহা, সব সময় খিটখিটে মেজাজ আমাদের নিজেদেরকে খারাপ রাখেই আমাদের আশপাশের মানুষেরাও আমাদের উপর বিরক্ত বোধ করতে থাকে। আসুন জেনে নিই, কী হতে পারে এই ক্লান্তির কারণ-
 
আপনি কতক্ষণ ঘুমান?
ঘুম আমাদের শরীরের জন্য খুবই প্রয়োজনীয়। প্রত্যেকটা মানুষ তার বয়স, শারীরিক ফিটনেস, কাজের চাপ অনুযায়ী আলাদা আলাদা ঘুমের প্রয়োজন অনুভব করে। এই ঘুম পর্যাপ্ত না হলে ক্লান্তিবোধ হওয়াই স্বাভাবিক।
 
গবেষনায় দেখা গেছে, মানুষের ক্লান্তি, অবসাদের মূলে রয়েছে তাদের বিশ্রামের অভাব। আপনি হয়ত ভাবছেন, 'আমি তো ঠিক মতোই ঘুমাই'। শুধু ঘুম নয়, প্রয়োজন নির্বিঘ্ন এবং পর্যাপ্ত ঘুম। বিজ্ঞানীরা বলছেন, শুধু এক রাতের দেরীতে ঘুমাতে যাওয়াও হতে পারে শারীরিক নানাবিধ ক্ষতির উৎস। তাই খতিয়ে দেখুন নিজের অভ্যাস। কতখানি কাজ করছেন, সেটা আপনার কত ক্যালরি বার্ণ করছে, ততটা আপনি খাবার এবং ঘুমের মাধ্যমে শরীরকে ফেরত দিচ্ছেন কিনা!
 
একজন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের ক্ষেত্রে ঘুম প্রয়োজন দৈনিক ৮ ঘন্টা। গবেষকরা বলছেন, মানুষের বয়স এবং ফিটনেস অনুযায়ী ঘুমের পরিমাণ আলাদা হলেও রিসার্চে দেখা গেছে, গড়ে বেশীরভাগ মানুষেরই এই পরিমাণ ঘুম প্রয়োজন। তবে কিছু মানুষ ৬ ঘন্টা এবং ৪ ঘন্টা ঘুমিয়ে স্বাভাবিক সুস্থ্য জীবনযাপন করেন।
 
ঘুমের ঋণ বাড়ে পৌনঃপুনিক হারে
আপনি যখন একরাতে দেরীতে ঘুমাতে যান তখন সেই কম ঘুম পুষিয়ে নেওয়া খুব কঠিন। ধরুন, আপনি ২ ঘন্টা কম ঘুমালেন। আপনার শরীর পরদিন ২ ঘন্টা বেশী ঘুমালেই ফিট বোধ করবে না। সে আরও বেশী ঘুম চাইবে যা আপনি দিতে পারবেন না। কারণ আপনার কাজ আছে। তাই অপূরণীয় একটা ফাঁক থেকেই যায়।
 
ঘুম যেভাবে কাজ করে
আপনার ঘুম যত নির্বিঘ্ন তত তা আপনাকে রিল্যাক্স করে। ঘুম থেকে জাগার একটা চক্র আছে, যাকে দুই ভাগে ভাগ করা যায়।
 
Slow-wave sleep
এধরণের ঘুমে আপনার পেশী শিথিল হয়ে আসে, হৃদপিন্ডের গতি ধীর হয়, ব্লাড প্রেশার নেমে আসে। আপনার মস্তিষ্ক পুরোপুরি নিজেকে সমর্পন করে। এক্ষেত্রে সহজে ঘুম ভাঙ্গে না।
 
REM sleep
আপনার মস্তিষ্ক যখন স্বপ্ন দেখতে থাকে এবং তথ্য চিনতে পারে তখন আসলে মস্তিষ্কের একটা অংশ জাগ্রতই থাকে। আপনি তখন সারাদিনে যা যা করেছেন সেগুলোকে একত্রিত করতে থাকেন, জোড়া দিতে থাকেন, অনেক কিছু থেকে নেতিবাচকতা জন্ম দেয় দুঃস্বপ্নের। আবার কখনো আমরা সুন্দর স্বপ্নও দেখি।
 
মূল কথা-
Slow wave sleep আপনার শরীরের সুস্থ্যতার জন্য জরুরী। কিন্তু REM sleep আমাদের মস্তিষ্ককে ফ্রেশ করে। তবে বেশীর ভাগ মানুষ ঘুমকে দুই স্তরেই উপভোগ করে। অর্থাৎ কিছু সময় গভীর ঘুম আর কিছু সময় স্বপ্ন দেখে ঘুমায়।
 
কীভাবে পূরণ করবেন ঘুমের ঘাটতি
হার্ভার্ড মেডিকেল স্কুলের গবেষকরা বলছেন, ঘুমের ঘাটতি পূরণের জন্য একটাই উপায়। দিনের বেলা ঘুম। অন্তত ২০-৩০ মিনিট ঘুমান। যখনই ক্লান্ত বোধ করছেন, ঘুম পাচ্ছে চেষ্টা করুন একটা উপায় বের করে নিতে। আপনার ২ ঘন্টা ঘুমের ঘাটরি কাটতে পারে এই ৩০ মিনিটে। নইলে যখন ঘুম আসছে না তখন ঘন্টা পেরিয়ে বিছানায় গড়াগড়ি করেও লাভ নেই। তাতে আপনার ক্লান্তি কমবে না।
 
আরও যা যা করবেন-
- নির্বিঘ্ন ঘুমের জন্য ঘরের পরিবেশ ঘুমের উপযোগী করুন।
- ঠিক মত খাবার গ্রহণ করুন
- পুষ্টিকর খাবার খান
-ঘুমের গুরুত্ব বুঝুন, ঘুমকে প্রাধান্য দিন।

লিখেছেন- আফসানা সুমী

এফ/১৫:৫৫/১৯জুলাই

জানা-অজানা

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে