Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print

আপডেট : ০৭-১৬-২০১৬

ঝিনাইদহের আস্তানায় জঙ্গি আবিরও ছিল

আজাদ রহমান


ঝিনাইদহের আস্তানায় জঙ্গি আবিরও ছিল
আবির রহমান

ঝিনাইদহ, ১৬ জুলাই- গুলশান হামলায় নিহত জঙ্গি নিবরাসের সঙ্গে কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়ায় নিহত আবির রহমানও মাস খানেক ঝিনাইদহের সোনালীপাড়ার ওই জঙ্গি আস্তানায় ছিলেন।

আবিরের ছবি দেখে গতকাল শুক্রবার এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন সোনালীপাড়ার বাসিন্দারা। সাঈদ নাম ধারণ করে ওই জঙ্গি আস্তানায় মাস খানেক ছিলেন গুলশান হামলায় চিহ্নিত পাঁচ জঙ্গির একজন নিবরাস। আর নিবরাসের খালাতো ভাই পরিচয়ে ছিলেন আবির রহমান।

পরিবারের দাবি অনুযায়ী, আবির (২২) চার মাস ধরে নিখোঁজ ছিলেন। তবে তাঁর নিখোঁজ থাকার বিষয়ে পরিবারের পক্ষ থেকে রাজধানীর ভাটারা থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করা হয় ৬ জুলাই। এর পরদিন ফেসবুক ও গণমাধ্যমে ছবি দেখে স্বজনেরা জানতে পারেন, শোলাকিয়ায় নিহত হয়েছেন আবির।

ঝিনাইদহ শহরে সোনালীপাড়ার ওই জঙ্গি আস্তানার লাগোয়া মসজিদের মাঠে স্থানীয় তরুণদের সঙ্গে ফুটবল খেলায় অংশ নিতেন সাঈদ নামধারী নিবরাস। ওই মাঠে খেলতেন এমন কয়েকজন স্থানীয় তরুণকে গতকাল আবিরের ছবি দেখালে তাঁরা তাঁকে শনাক্ত করেন ‘সাঈদ ভাইয়ের খালাতো ভাই’ হিসেবে। জঙ্গিদের ভাড়া করা ওই বাড়িতে রান্নার কাজ করতেন যে নারী, তিনিও আবিরের ছবি দেখে শনাক্ত করেছেন।

এর আগের দিন বৃহস্পতিবার বাড়ির মালিকের স্ত্রী, গৃহকর্মী ও ফুটবল খেলার সাথিরা ছবি দেখে নিবরাসকে শনাক্ত করেন। গতকাল শুক্রবার আবার সেখানে আবিরের ছবি দেখানো হয়। স্থানীয় দুজন তরুণ (তাঁদের ব্যক্তিগত নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করে নাম প্রকাশ করা হলো না) বলেন, এই ছবি সাঈদ ওরফে নিবরাসের খালাতো ভাইয়ের। তিনি সবার সঙ্গে মিশতেন না, ফুটবলও খেলতেন না। মাঠের পাশে বসে সময় কাটাতেন। মাঝেমধ্যে মাঠের পাশে ছোট জায়গায় বাচ্চাদের সঙ্গে ক্রিকেট খেলতেন।

ওই দুই স্থানীয় তরুণ বলেন, ‘ওই ভাইয়ের নাম কী জিজ্ঞাসা করলে সে জবাব দেওয়ার আগেই সাঈদ ভাই বলতেন, এটা আমার খালাতো ভাই।’ তাঁরা বলেন, আবিরের চলাফেরা কিছুটা অপ্রকৃতিস্থ ছিল। কেমন যেন হেলেদুলে হাঁটতেন।

আবিরদের মেসে তিন বেলা রান্না করে দিয়ে আসতেন স্থানীয় এক নারী। তিনি গতকাল বলেন, ‘সাঈদ ভাই (নিবরাস) আর ছবির এই ভাই (আবির) একই রুমে থাকতেন। তাঁরা বেশির ভাগ সময় ঘরেই কাটাতেন।’ তিনি বলেন, সাঈদ ওরফে নিবরাস মাঝে মাঝে মোটরসাইকেলে চেপে বাইরে যেতেন, তবে আবিরকে বাইরে যেতে তিনি দেখেননি। আবির কবে মেস ছেড়ে গেছেন, তা তিনি নিশ্চিত করে বলতে পারেননি।

সোনালীপাড়ার ওই বাড়ির মালিক সাবেক সেনাসদস্য কওছার আলী। কলেজপড়ুয়া দুই ছেলেসহ তাঁকে এবং পাশের মসজিদের ইমাম মো. রোকনুজ্জামান ও সহকারী ইমাম সাব্বির হোসেনকে ৬ জুলাই ভোরে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী আটক করে নিয়ে গেছে বলে পারিবারিক সূত্র জানিয়েছে। গতকাল পর্যন্ত এঁদের আটক করার কথা স্বীকার করেনি কোনো বাহিনী। স্থানীয় পুলিশ বলছে, তারা এ ব্যাপারে কিছু জানে না।

গত শুক্রবার বাড়ির মালিকের স্ত্রী বিলকিস নাহার বলেছিলেন, মাস চারেক আগে পাশের মসজিদের ইমামের মাধ্যমে প্রথমে দুজন ও পরে আরও ছয়জন ওই বাড়িতে ভাড়ায় ওঠেন। তাঁদের ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র বলে জানিয়েছিলেন ইমাম রোকনুজ্জামান, যিনি নিজেও ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র।

এর মধ্যে দুজনের পরিচয় মিললেও বাকি ছয়জন কারা ছিলেন, সেটা এখনো জানা যায়নি। বিলকিস নাহার শুক্রবার বলেছিলেন, ওই বাড়ি বা মেসে যে আটজন থাকতেন, তাঁদের মধ্যে ছয়জন রোজার শুরুতে বাড়ি যাওয়ার কথা বলে চলে যান। বাকি দুজন গেছেন ২৮ জুন (গুলশান হামলার দুদিন আগে)।

আবিরের ব্যাপারে জানতে গতকাল আবার ওই বাড়িতে গেলে বিলকিস নাহার ঘরের দরজা খোলেননি। ঘরের জানালাও বন্ধ ছিল। ঘরের ভেতর থেকে একজন নারী বলেন, তাঁদের ওপর নানাভাবে চাপ এসেছে। তাঁরা আর সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলতে পারবেন না। কারা চাপ দিচ্ছে, সেটা বলতে চাননি তাঁরা।

গুলশান হামলায় নিহত ও চিহ্নিত পাঁচ জঙ্গির মতো শোলাকিয়ায় হামলায় নিহত আবির এবং আহত হয়ে ধরা পড়া শফিউর চার থেকে ছয় মাস আগে বাড়ি ছাড়েন। পরিবারের দাবি অনুযায়ী, এরপর থেকে তাঁরা নিরুদ্দেশ ছিলেন, বাড়ির সঙ্গে তাঁদের যোগাযোগ ছিল না।

এঁদের মধ্যে আবির গত মার্চ থেকে নিখোঁজ ছিলেন বলে থানায় জিডিতে উল্লেখ করা হয়েছে বলে জানায় ঢাকার ভাটারা থানার পুলিশ। আর নিবরাস নিখোঁজ ছিলেন পাঁচ মাস। এর মধ্যে মাস খানেক ঝিনাইদহের ওই আস্তানায় থাকার তথ্য মিললেও বাকি সময় তাঁরা কোথায় ছিলেন, সে ব্যাপারে এখনো নিশ্চিত তথ্য মেলেনি। আবিরের বাসা ঢাকায় বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায়। তিনি নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটিতে বিবিএ পড়তেন। এর আগে তিনি ‘ও’ লেভেল, ‘এ’ লেভেল সম্পন্ন করেন বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল টিউটোরিয়ালে (বিআইটি)। আবিরদের গ্রামের বাড়ি কুমিল্লার দেবীদ্বার উপজেলায়।

এফ/০৯:২০/১৬ জুলাই

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে