Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৭-১২-২০১৬

অনাথ আশ্রম থেকে ইউরোর মহানায়ক

অনাথ আশ্রম থেকে ইউরোর মহানায়ক

জন্ম গানা-বিসাউয়ে। মাত্র তিন বছর বয়সে স্থান হয় অনাথ আশ্রমে। সেখান থেকে বেড়ে ওঠা। জায়গা হয় পর্তুগালের জাতীয় দলে। ডাক পেলেন ইউরোতে। কিন্তু ফাইনালের আগে টুর্নামেন্টে খেলেছিলেন মাত্র ১৩ মিনিট। শেষ পর্যন্ত তিনিই পর্তুগালের জয়ের নায়ক। ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপের মহানায়ক। তিনি আর কেউ নন; পর্তুগালের এডার।

পুরো নাম এডারজেও অ্যান্টনিও মাসেডো ডি লোপেজ। সংক্ষেপে এডার। বয়স ২৮। তিন বছর বয়সে তাকে পর্তুগালের কুইমব্রার একটি অনাথ আশ্রমে পাঠিয়ে দিয়েছিলেন বাবা। কারণ, ছেলের খরচ বহন করার সামর্থ্য ছিল না। সেই আশ্রমেও এডারকে নিয়ে প্রায়ই অশান্তি হত। কারণ, পড়ালেখা না করে খুদে এডার শুধু পড়ে থাকতেন ফুটবল নিয়ে।

১৮ বছর বয়সে প্রথম পেশাদার ফুটবলার হিসাবে পর্তুগালের দ্বিতীয় ডিভিশনে তুরিজেন এফসি-তে এদের সই করেছিলেন। তার বেতন তখন মাত্র ৪০০ ইউরো। তবে রোববার রাতের পর পেশাদার ক্লাবগুলোর কাছে এডারের কী দাম হতে পারে সেই নিয়ে জল্পনা শুরু হয়ে গিয়েছে।

রোববার স্তাড ডি ফ্রান্সে তার যেন পুনর্জন্ম হল! দুরন্ত গোলে পর্তুগালকে উপহার দিলেন ইউরো কাপ। ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর মতো মহাতারকা, গ্রিজম্যান, পেপে-র মতো নক্ষত্রদের পাশে নতুন তারকার জন্ম হল ইউরো কাপের ফাইনালে।

ফাইনালের ৪৩ মিনিট বাদ দিলে, টুর্নামেন্টে তাকে দেখা গিয়েছে মাত্র ১৩ মিনিট! সেটাও হয়তো খেলা হতো না। কারণ কোচ ফার্নান্দো সান্তোস জানিয়েছেন, এডারকে দলে নেওয়া হয়েছে শেষ মুহূর্তে। পর্তুগালের নতুন নায়ক অবশ্য কৃতজ্ঞ অধিনায়ক ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর কাছে। বলেছেন, ‘ফাইনালের আগের দিন রোনালদো বলেছিলেন, আমাকে খেলতে হবে। আমি গোলও পাব। অধিনায়কের উৎসাহে আমি অভিভূত।’

পর্তুগালে সংবাদমাধ্যম ম্যাচের পর জাতীয় দলের নতুন নায়ককে জিজ্ঞাসা করেছিল, গোলটা কি তিনি রোনালদোকে উৎসর্গ করবেন? জবাবে এদের বলেছেন এক মহিলার নাম! তিনি সুসানা তুহিস। তার মেন্টর। বলেছেন, ‘খেলা ছেড়ে দেওয়ার অবস্থা হয়েছিল। সেখান থেকে আমাকে নতুন জীবন দিয়েছেন মনোবিদ সুসানা।”

তার হয়তো মনে পড়ছিল তিন বছর আগে স্পোর্টিং ব্রাগায় সেই অভিশপ্ত সময়ের কথা। লিগামেন্ট ছিঁড়ে যাওয়ার পর তিনি মাঠের বাইরে চলে গিয়েছেন। মাস পাঁচেক পর ফিরলেন। কিন্তু আত্মবিশ্বাস তলানিতে চলে গিয়েছে। এডার বলেছেন, ‘‘প্র্যাক্টিসে একটা শট মারার আগেও ভয় করত! শটটা গোলের দিকে যাবে তো?’’ এমনই মানসিক বিপর্যয়ের মধ্যে এক বন্ধুর মাধ্যমে এদেরের সঙ্গে আলাপ সুসানার। পেশায় মহিলা ছিলেন ব্যাংক কর্মচারী। কিন্তু মানসিকভাবে বিপর্যস্ত এডারের সঙ্গে আলাপ হওয়ার পর সুসানাও নতুন কাজকে চ্যালেঞ্জ হিসাবে গ্রহণ করলেন। রোববার ইউরো কাপ জয়ের পর তার প্রতিক্রিয়াও জেনেছে পর্তুগালের সংবাদমাধ্যম। সুসানা বলেছেন, ‘আজ আমার সবচেয়ে আনন্দের দিন। চেষ্টা করতাম ওর মধ্যে থেকে বড় ফুটবলার হওয়ার জেদটা বার করে আনতে। ওকে বলতাম ভাবতে যে, চোট পাওয়ার আগের মৌসুমে ব্রাগার হয়ে ১৮ ম্যাচে এদের ১৩টা গোল করেছিল। তার মধ্যে একটা গোল চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের মতো দলের বিপক্ষে।’

আর/১৭:১৪/১২ জুলাই

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে