Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 1.0/5 (1 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৬-২৮-২০১৬

গ্যাস্ট্রোএন্টেরাইটিটিসের ঘরোয়া প্রতিকার

সাবেরা খাতুন


গ্যাস্ট্রোএন্টেরাইটিটিসের ঘরোয়া প্রতিকার

গ্যাস্ট্রোএন্টেরোরাইটিস স্টোমাক ফ্লু বা গ্যাস্ট্রিক ফ্লু নামেও পরিচিত যা হয়ে থাকে ভাইরাস বা ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণের কারণে। সাধারণত রোটাভাইরাস, নরোভাইরাস এবং এশেরিশিয়া কোলাই ও ক্যাম্পাইলোব্যাক্টার ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণে গ্যাস্ট্রোএন্টেরোরাইটিস হয়। গ্যাস্ট্রিক ফ্লু অত্যন্ত সংক্রামক রোগ। সংক্রমিত হওয়ার ১২-৪৮ ঘন্টার মধ্যে লক্ষণ প্রকাশ পায় এবং ২-১০ দিন থাকে।      

গ্যাস্ট্রোএন্টেরোরাইটিসের সাধারণ লক্ষণ হচ্ছে- পেটের সমস্যা, বমি বমি ভাব, ডায়রিয়া ও বমি হওয়া। এগুলোর পাশাপাশি জ্বর, মাথাব্যথা, শরীর ঠান্ডা হয়ে যাওয়া, শরীরে ব্যথা, ত্বক ও মুখ শুষ্ক হয়ে যাওয়া ইত্যাদি উপসর্গগুলোও দেখা যায়।

যেকোন মানুষ গ্যাস্ট্রোএন্টেরোরাইটিসের সমস্যা হতে পারে। তবে শিশুদের আক্রান্ত হওয়ার প্রবণতা বেশি কারণ তাদের ইমিউন সিস্টেম খুব দুর্বল থাকে। প্রচুর পরিমাণে পানি পান করা ও বিশ্রামের পাশাপাশি কিছু সহজ ঘরোয়া প্রতিকারের মাধ্যমে স্টোমাক ফ্লু এর নিরাময় ও উপসর্গগুলো কমানো সম্ভব। চলুন তাহলে জেনে নেয়া যাক স্টোমাক ফ্লু এর ঘরোয়া প্রতিকারগুলো সম্পর্কে।

১। লবণ
লবণে সোডিয়াম থাকে যা একধরণের ইলেক্ট্রোলাইট। তাই ডায়রিয়া ও বমির ফলে যে পানিশূন্যতার সৃষ্টি হয় তা প্রতিরোধের জন্য পানির সাথে লবণ মিশিয়ে পান করুন। এছাড়াও লবণ ইনফেকশনের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে এবং খাদ্যনালীর pH  এর  মাত্রা বজায়  রাখতে সাহায্য করে। ১ লিটার বা ৪ কাপ পানিতে ১ চা চামচ লবণ মিশান। এরসাথে ২ টেবিলচামচ চিনি দিয়ে ভালভাবে মিশান। এই মিশ্রণটি কিছুক্ষণ পর পর পান করুন।

২। মধু
১ কাপ উষ্ণ গরম পানিতে ১ চামচ মধু মিশিয়ে সকালে পান করুন ডায়রিয়া ও বমি মোকাবেলার জন্য। মধুতে অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল উপাদান থাকে যা শুধু অন্ত্রের ব্যাকটেরিয়াকে ব্লকই করেনা বরং পটাসিয়ামের শোষণেরও উন্নতি ঘটায় যা হাইড্রেটেড থাকতে সাহায্য করে।

৩। দই
যদি আপনার ব্যাকটেরিয়াজনিত গ্যাস্ট্রোএন্টেরোরাইটিস হয়ে থাকে তাহলে এন্টিবায়োটিক সেবনের পাশাপাশি প্রতিদিন ১ বাটি দই খেতে ভুলবেন না। কারণ অ্যান্টিবায়োটিক অন্ত্রের ব্যাকটেরিয়াকে ধ্বংস করার পাশাপাশি কোষ্ঠকাঠিন্য, পেটফাঁপা ও ডায়রিয়ার মত সমস্যাও সৃষ্টি করতে পারে।

৪। কলা
কাঁচা বা পাকা উভয় প্রকারের কলাই গ্যাস্ট্রোএন্টেরোরাইটিস নিরাময়ে সাহায্য করে। কলায় উচ্চ মাত্রার অ্যামাইলেজ প্রতিরোধী স্টার্চ থাকে যা উপসর্গ কমাতে সাহায্য করে। কলা পটাসিয়াম ও ম্যাগনেসিয়ামে পরিপূর্ণ থাকে। এই দুটি ইলেক্ট্রোলাইট পরিপাক তন্ত্রের কাজকে মসৃণ করে। এছাড়া কলা সহজে হজম হয় এবং নিরাময় প্রক্রিয়াকে সাহায্য করে।

৫। পুদিনা
পুদিনা তার শিতলীকারক গুণের  জন্য সুপরিচিত। এই শক্তিশালী জৈব যৌগটির প্রদাহ নাশক গুণ আছে। গ্যাস্ট্রোএন্টেরোরাইটিস সহ পেটের অন্যান্য সমস্যার ক্ষেত্রেও পুদিনা পাতা চিবিয়ে খাওয়ার প্রচলন বহু প্রাচীনকাল থেকেই হয়ে আসছে। পুদিনার চা বমি বন্ধ করার জন্য কার্যকরী।  

টিপস : 
১। শাকসবজি ও ফলমূল খাওয়ার পূর্বে ভালো করে ধুয়ে নিন

২। কাঁচা বা রান্না ছাড়া খাবার এড়িয়ে চলুন

৩। কয়েকদিন দুধ ও দুধ দিয়ে তৈরি খাবার গ্রহণ এড়িয়ে চলুন

৪। দ্রুত নিরাময়ের জন্য প্রচুর বিশ্রাম ও ঘুম প্রয়োজন  

৫। এসিড সমৃদ্ধ পানীয় যেমন- কমলার জুস পান করা থেকে বিরত থাকুন

৬। ঘরে তৈরি ও হালকা খাবার খান কয়েক সপ্তাহ

৭। ব্যথা কমানোর জন্য পেটে হট ওয়াটার ব্যাগ দিয়ে সেঁক নিন

আর/১৭:১৪/২৮ জুন

সচেতনতা

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে