Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৬-১৬-২০১৬

‘আসিয়ানকে নতুন করে মূল্যায়ন করা উচিত’

‘আসিয়ানকে নতুন করে মূল্যায়ন করা উচিত’


ঢাকা, ১৬ জুন- ফতানি বাড়ানো এবং বিনিয়োগ আকর্ষণের জন্য ১০ জাতি আসিয়ান সম্পর্কে নতুন করে চিন্তাভাবনা করার ওপর জোর দিয়েছেন থাইল্যান্ডে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত সাইদা মোনা তাসনিম।
বাংলা ট্রিবিউনের সঙ্গে একান্ত সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘আমি বিশ্বাস করি বাংলাদেশের পররাষ্ট্র নীতির আলোকে আমাদের আসিয়ান সম্পর্কে নতুন করে মূল্যায়ন করা উচিত।’
এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের হিসাব অনুযায়ী ২০১৩ সালে ১০ সদস্য বিশিষ্ট আসিয়ানের মোট দেশজ উৎপাদনের পরিমান ২.৪ ট্রিলিয়ন ডলার এবং ২০৫০ সাল নাগাদ সামষ্টিকভাবে এটি পৃথিবীর চতুর্থ বৃহত্তম সমৃদ্ধশালী অঞ্চল হবে।
মোনা তাসনিম বলেন, ‘সিঙ্গাপুর, ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া, থাইল্যান্ড, ভিয়েতনাম এবং অন্যান্য আসিয়ান দেশ থেকে বাংলাদেশ বিপুল পরিমান পণ্য আমদানি করে থাকে। কিন্তু রফতানি করে সে তুলনায় অত্যন্ত সামান্য।’
তিনি মনে করেন, বাংলাদেশের পণ্যের প্রচুর সম্ভাবনা আছে এবং রফতানি বৃদ্ধি করা সম্ভব আসিয়ান দেশগুলিতে, যেখানে ৬০ কোটি লোকের বাস। সরকারের ব্যবসা সম্প্রসারণ ও পণ্য প্রসারে রফতানি বৃদ্ধির জন্য সব ধরনের সহায়তা দিতে হবে।
বাংলাদেশ ব্যাংকের হিসাব অনুযায়ী ২০১৩-১৪ সালে আসিয়ান দেশগুলিতে বাংলাদেশ ৩৭৭ মিলিয়ন ডলারের পণ্য রফতানি করেছে এবং আমদানি করেছে ৬,৯৩৪ মিলিয়ন ডলারের পণ্য। বাংলাদেশের প্রধান ২০টি আমদানিকারক দেশের মধ্যে পাচঁটি আসিয়ানভুক্ত।

ব্রুনাই দারুসসালাম, কম্বোডিয়া, ইন্দোনেশিয়া, লাউ পিডিআর, মালয়েশিয়া, মিয়ানমার, ফিলিপাইন, সিঙ্গাপুর, থাইল্যান্ড এবং ভিয়েতনাম আসিয়ানের সদস্য।

কম্বোডিয়া ও লাউ পিডিআর ছাড়া আসিয়ানের প্রতিটি দেশে বাংলাদেশের দূতাবাস আছে এবং সেখানে রাষ্ট্রদূতরা কর্মরত আছেন।

মোনা তাসনিম বলেন, ‘আমাদেরকে গোটা আসিয়ানে একটি বার্তা দিতে হবে এবং সেটি হচ্ছে বাংলাদেশ আসিয়ানকে গুরুত্ব দেয়।’

তিনি বলেন, ‘থাইল্যান্ডে রফতানি বাড়ানো এবং বাংলাদেশে বিনিয়োগ আকৃষ্ট করার জন্য আমি আপ্রাণ চেষ্ঠা করছি। তবে থাইল্যান্ডে এ কাজ করা সহজ নয়, কারণ আমাদের মধ্যে একটি বড় কালচারাল গ্যাপ আছে।’

তিনি জানান, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে এ বছরের জন্য তাকে তিনটি বড় কাজ সম্পাদনের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে এবং এর মধ্যে বাংলাদেশ এক্সপো তিনি সফলভাবে সম্পন্ন করেছেন। শীর্ষ ৫৫টি বাংলাদেশি কোম্পানি এ এক্সপোতে পণ্য প্রদর্শন করে বিপুল সাড়া পায়।

রাষ্টদূত বলেন, ‘থাইল্যান্ডের তিনটি শীর্ষ চেম্বারের সভাপতিরা এক্সপোতে অংশ নেন এবং বাংলাদেশের ব্যবসায়ী নেতাদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করেন।’

তিনি মনে করেন, থাইল্যান্ডে রফতানি বাড়লে এটি গোটা আসিয়ানে প্রভাব পড়তে পারে। কারণ আসিয়ানভুক্ত দেশগুলো মোটামুটি একইভাবে চিন্তাভাবনা করে। তবে রফতানি বাড়াতে এ অঞ্চলে শুল্ক হ্রাসের ব্যবস্থা করতে হবে।

এ আর/০৬:৪৮/ ১৬জুন

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে