Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৬-১৪-২০১৬

সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তায় মোদির হস্তক্ষেপ চাওয়া নিয়ে বিতর্ক

সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তায় মোদির হস্তক্ষেপ চাওয়া নিয়ে বিতর্ক

দিল্লী,১৪ জুন- বাংলাদেশের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের নেতারা নিজেদের নিরাপত্তা ইস্যুতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির হস্তক্ষেপ চান বলে ভারতের বার্তা সংস্থা পিটিআই খবর পরিবেশনের পর তা নিয়ে রাজনৈতিক বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে। ওই প্রতিবেদনে বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক রানা দাশগুপ্ত ও অভিনেতা পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায়কে উদ্ধৃত করা হলেও তাঁরা দুজনই তাঁদের বক্তব্যের স্পর্শকাতর অংশ অস্বীকার করেছেন।

পিটিআইয়ের খবরে রানা দাশগুপ্তকে উদ্ধৃত করে বলা হয়, ‘হিন্দু সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশ হিসেবে ভারতের কিছু করা উচিত। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কাছে আমাদের প্রত্যাশা বেশি।’ তবে গতকাল সোমবার প্রথম আলোকে তিনি জানান, ভারত বা ওই দেশটির প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপের কথা তিনি বলেননি। 

রানা দাশগুপ্ত আরও বলেন, বাংলাদেশে সংখ্যালঘুদের নির্যাতন ও তাদের মানবাধিকার রক্ষা নিয়ে তিনি পিটিআইয়ের ওই প্রতিবেদকের সঙ্গে কথা বলেছেন। কিন্তু একজন আইনজ্ঞ হিসেবে তিনি অন্য দেশের হস্তক্ষেপ চাইতে পারেন না। তিনি আরও বলেন, এ দেশের সব মানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দায়িত্ব রাষ্ট্র ও সরকারের।

একই প্রতিবেদনে অভিনেতা পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায়কে উদ্ধৃত করে পিটিআই আরও বলেছে, ভারতের কাছ থেকে চাপ না এলে মৌলবাদ বিষয়ে মনোভাব পরিবর্তন হবে না। ভারত এ অঞ্চলের বড় শক্তি। প্রতিবেশী দেশে সংখ্যালঘুরা নির্মমভাবে হত্যাকাণ্ডের শিকার হলে দেশটি চুপচাপ বসে থাকতে পারে না।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায় প্রথম আলোকে বলেন, বাংলাদেশের কোনো বিবেচক, দায়িত্বশীল ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী নাগরিক এমন মন্তব্য করতে পারেন না। তিনি বলেন, এ দেশের হাজার বছরের সংস্কৃতি বলে দেয় এমন পরিস্থিতি রুখে দাঁড়ানোর কথা। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, পিটিআইকে সাক্ষাৎকার দিলেও যেভাবে তাঁর বক্তব্য উল্লেখ করা হয়েছে, সেভাবে তিনি বলেননি। 

রানা দাশগুপ্ত আনুষ্ঠানিকভাবে তাঁর বক্তব্য অস্বীকার করলেও পিটিআই জবাবে বলছে, এখানে ভুলভাবে উদ্ধৃত করার কোনো সুযোগ নেই। গতকাল সন্ধ্যা পর্যন্ত তাদের কাছে রানা দাশগুপ্ত আনুষ্ঠানিকভাবে কোনো প্রতিবাদ পাঠাননি। সংস্থাটির দিল্লি ও কলকাতা অফিস থেকে বিবিসি বাংলাকে বলা হয়, রানা দাশগুপ্ত যেভাবে বলেছেন, তাঁকে ঠিক সেভাবেই উদ্ধৃত করা হয়েছে।

হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের পক্ষ থেকে রানা দাশগুপ্ত পিটিআইয়ের খবরের প্রতিবাদ জানিয়ে গতকাল বিবৃতি দেন। এতে তিনি বলেন, মুঠোফোনে পিটিআইয়ের একজন সাংবাদিক বাংলাদেশে ধর্মীয় সংখ্যালঘু, বিশেষ করে হিন্দুদের পরিস্থিতি সম্পর্কে জানতে চান। তিনি বাস্তব পরিস্থিতি তাঁর কাছে তুলে ধরেন। তবে ভারতের প্রধানমন্ত্রীর নাম উল্লেখ করে তাঁর কথিত হস্তক্ষেপ বিষয়ে কোনো বক্তব্য তিনি দেননি।

পিটিআইয়ের এ খবর প্রসঙ্গে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেন, বাংলাদেশের সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য বাইরের কোনো দেশ বা সরকারের সহায়তা চাওয়ার প্রয়োজন নেই। গতকাল তথ্য অধিদপ্তরে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে প্রথম আলোর এক প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী বলেন, বর্তমান সরকার নীতিগতভাবে অসাম্প্রদায়িক। এ দেশে প্রায় ২০ হাজার মন্দির রয়েছে। সংখ্যালঘুরা নির্বিঘ্নে পূজা করছেন। তিনি আরও বলেন, সরকারকে বিব্রত করতে সাধারণ মানুষের পাশাপাশি সংখ্যালঘুদের হত্যা করা হচ্ছে। এটা চক্রান্ত ও ষড়যন্ত্রের অংশ।

উদ্ভূত পরিস্থিতি সম্পর্কে জানতে চাইলে সংখ্যালঘুদের অধিকার নিয়ে কাজ করা লেখক ও সাংবাদিক শাহরিয়ার কবির প্রথম আলোকে বলেন, যে-কেউ যেকোনো দেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি সম্পর্কে উদ্বেগ প্রকাশ করতে পারে। ভারতের সেই অধিকার আছে। ভারতে এ ধরনের ঘটনা ঘটলে বাংলাদেশও উদ্বেগ প্রকাশ করতে পারে। তবে কেবল হিন্দু নাগরিক মারা গেলে ভারতীয় হাইকমিশনের কর্মকর্তাদের ঘটনাস্থলে যাওয়া ও উদ্বেগ প্রকাশ করাটা শোভনীয় নয়। কারণ, সাম্প্রতিক সময়ে বৌদ্ধ, খ্রিষ্টান, অধিকারকর্মী, বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক, শিয়া সম্প্রদায়ের লোক, পীরসহ অনেকেই মারা গেছেন। 

শাহরিয়ার কবির বলেন, বাংলাদেশ ও ভারত কোনোটাই মুসলিম বা হিন্দু রাষ্ট্র নয়। দুটি দেশই অসাম্প্রদায়িক। ভারত বিশ্বের বড় গণতান্ত্রিক ও অসাম্প্রদায়িক দেশ। এখান থেকে হিন্দুদের তুলে নিয়ে বাংলাদেশকে মুসলিম দেশে পরিণত করা ভারতের লক্ষ্য হতে পারে না। তাহলে তো এত দিন পর মোহাম্মদ আলী জিন্নাহর দ্বিজাতি তত্ত্বের বাস্তবায়ন হবে।

এ আর/ ১২:১৪/ ১৪ জুন

 

দক্ষিণ এশিয়া

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে