Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৬-১১-২০১৬

হিলারিকে সমর্থন দিলেন ম্যাসাচুসেটসের সিনেটর এলিজাবেথ ওয়ারেন

হিলারিকে সমর্থন দিলেন ম্যাসাচুসেটসের সিনেটর এলিজাবেথ ওয়ারেন

ওয়াশিংটন, ১১ জুন- মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্রেটিক দলের প্রার্থী হিলারি ক্লিনটনকে সমর্থন দিয়েছেন ম্যাসাচুসেটস অঙ্গরাজ্যের প্রভাবশালী সিনেটর এলিজাবেথ ওয়ারেন। গত বৃহস্পতিবার তিনি দলের সবাইকে হিলারির পেছনে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান। এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা বাংলা প্রেস।

ডেমোক্রেটিক দলের প্রগতিশীল ঘরানার তারকা এই নারী সিনেটর বলেন, ‘আমি এ লড়াইয়ে নামতে প্রস্তুত। হিলারি ক্লিনটনকে পরবর্তী মার্কিন প্রেসিডেন্ট বানাতে হৃদয় দিয়ে কাজ করতে চাই। নিশ্চিত করতে চাই যে, হোয়াইট হাউজের ধারে কাছেও যাতে ডোনাল্ড ট্রাম্প পৌঁছতে না পারে।’ প্রসঙ্গত, ডোনাল্ড ট্রাম্প রিপাবলিকান দলের আপাত প্রার্থী, যার বিরুদ্ধে বর্ণবাদ ও ইসলাম-বিদ্বেষের অভিযোগ উঠেছে ব্যাপক। বৃহ¯পতিবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা ও ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন সাবেক পররাষ্ট্র মন্ত্রী হিলারিকে সমর্থন দেয়ার পর ওয়ারেনের এ ঘোষণা এল। ওবামা তার সমর্থন ঘোষনার সময় হিলারি সম্পর্কে বলেন, ‘আমি মনে করি না যে, এ অফিসে (প্রেসিডেন্সি) বসার মতো এত যোগ্য কেউ কখনও ছিল।’ ডেমোক্রেটিক দলের লিবারেল (উদারপন্থী) শিবির ঘেঁষা ওয়ারেন পরিচিত আর্থিক অসমতা সংশ্লিষ্ট ইস্যু নিয়ে সাহসী অবস্থানের কারণে। ডেমোক্রেটিক সিনেটরদের মধ্যে এতদিন খুব অল্প ক’ জন নিজেদের সমর্থনের কথা প্রকাশ করেননি। তাদের মধ্যে একজন ওয়ারেন।

হিলারির প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী বার্নি স্যান্ডার্সের পেরে ওঠার কোন সম্ভাবনা নেই, তা নিশ্চিত হওয়ার পর হিলারির প্রতি সমর্থন ঘোষণা করেন ওয়ারেন। অবশ্য, এতদিন তিনি আকারে ইঙ্গিতে স্যান্ডার্সের পক্ষে সুর তুলেছিলেন। স্যান্ডার্সের অনেক অবস্থানের সঙ্গে ওয়ারেনের মিল রয়েছে। বিশেষ করে, বড় বড় কর্পোরেশন ও ব্যাংকের বিরুদ্ধে স্যান্ডার্সের তীব্র বিরোধী অবস্থানও ওয়ারেনের সঙ্গে মিলে যায়। আর হিলারি ক্লিনটনের বিরুদ্ধে এসব ক্ষমতাধর প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সখ্যতা বজায় রাখার অভিযোগ প্রগতিশীল শিবিরের। কেন এতদিন সমর্থনের কথা ঘোষণা করেননি, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমি প্রাইমারি নির্বাচনকে খুবই গুরুত্বপূর্ণ মনে করি। আমি মনে করি, আমাদের ডেমোক্রেটদের জন্য প্রাইমারি হলো ডেমোক্রেট হওয়ার মানে আসলে কী, তা প্রমাণের একটি সুযোগ।’

হিলারিকে সমর্থন দিলেও, তার মুখে ছিল স্যান্ডার্সের প্রশংসাও। তিনি বলেন, ‘বার্নি স্যান্ডার্স যা করেছি, তা খুবই শক্তিশালী ও গুরুত্বপূর্ণ। তিনি নিজের হৃদয় থেকে ক্যাম্পেইন চালিয়েছেন। তিনি লাখো মানুষকে ডেমোক্রেটিক দলে এনেছেন। আমার জন্য, এটাই সব কিছু।’ ম্যাসাচুসেটসের এ সিনেটর ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধেও কামান দাগিয়েছেন। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ওয়াশিংটনে এক বক্তৃতায় তিনি রিপাবলিকান প্রার্থীর বিরুদ্ধে আক্রমণ অব্যাহত রাখেন।

এদিকে স্যান্ডার্সের এক সহযোগী জানান, হিলারিকে সমর্থন দেয়ার আগে স্যান্ডার্সের সঙ্গে ফোনে কথা বলতে ভুলেননি ওয়ারেন। নিজ তাগিদেই বেশ কবার স্যান্ডার্সের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা চালিয়ে পরে সফল হন তিনি। একটি সূত্র জানিয়েছে, হিলারিকে সমর্থন দেয়ার ঘোষণা বৃহ¯পতিবারেই গ্রহণ করেন ওয়ারেন। বিশেষ করে, ওবামার সমর্থনের পর। যাতে করে ডেমোক্রেটিক দলের পুরো লক্ষ্য আরও শক্তিশালী দেখায়।
তবে হিলারির পেছনে ওয়ারেনের সমর্থনের ঘোষণা আসার পর খোঁচা মারতে সময় নষ্ট করেনি রিপাবলিকান ন্যাশনাল কমিটি (আরএনসি)। আরএনসি মুখপাত্র লিন্ডসে ওয়াল্টার্স এক বিবৃতিতে বলেন, ‘হিলারি ক্লিনটনকে সমর্থন দিয়ে এলিজাবেথ ওয়ারেন নিজেকে বিক্রয়যোগ্য প্রমাণ করেছেন। ওয়ালস্ট্রিট বক্তৃতার অনুলিপি, যেটি হিলারি প্রকাশ করতে অস্বীকার করেন, বা জীবাশ্ম জ্বালানি শিল্প ও বড় বড় ব্যাংকের সঙ্গে সংশ্লিষ্টতা এমন যেসব জিনিসের প্রতিনিধিত্ব করেন হিলারি, এলিজাবেথ ওয়ারেনের অবস্থান সেসবের একেবারেই বিপরীত মেরুতে। অথচ, সেই ওয়ারেন আজ হিলারিকে সমর্থন দিলেন।’

টেলিভিশন সাক্ষাৎকারে ওয়ারেন অবশ্য হিলারির ভাইস প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হওয়ার গুজবে পানি ঢেলে দেন। ক্লিনটন শিবিরের সঙ্গে কথা হয়েছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে সোজা ‘না’ উত্তর দেন তিনি। যোগ করেন, ‘আমি জানি এ নিয়ে অনেক জল্পনা কল্পনা চলছে। কিন্তু সত্য কথা হচ্ছে, আমি এখন যা করছি, তা আমি ভালোবাসি। এই লড়াইয়ে যারা আমাকে পাঠিয়েছেন, সেই ম্যাসাচুসেটসের মানুষের প্রতি আমি কতটা কৃতজ্ঞ তা আপনাকে বলে বোঝাতে পারবো না।’

তবে এখানে একটি ইঙ্গিতও দিয়ে রাখলেন ওয়ারেন। হিলারির ঘনিষ্ঠ সহযোগী ও পেনসিলভেনিয়ার সাবেক গভর্ণর এড রেনডেলের একটি মন্তব্য উদ্ধৃত করে প্রশ্ন করা হয় তাকে। সম্প্রতি রেনডেলকে জিজ্ঞেস করা হয়েছিল ওয়ারেনকে ভাইস প্রেসিডেন্ট (ভিপি) প্রার্থী হিসেবে নিতে পারেন কিনা হিলারি। জবাবে তিনি বলেন, ‘এলিজাবেথ ওয়ারেন মেধাবী, বুদ্ধিদীপ্ত ও দরদী একজন মানুষ। কিন্তু পররাষ্ট্র নীতিতে তার কোন অভিজ্ঞতা নেই। আমার ধারণা, হিলারি এমন কাউকে ভিপি হিসেবে নিবেন না, যিনি নিজেকে প্রেসিডেন্ট বা কমান্ডার-ইন-চীফ হিসেবে ভাবতে প্রস্তুত নন।’ এ প্রসঙ্গ টেনে ওয়ারেনকে প্রশ্ন করা হয়, তিনি নিজে প্রেসিডেন্ট হতে প্রস্তুত কিনা। প্রত্যুত্তরে আবারও সংক্ষিপ্ত বাক্যে তার জবাব, ‘হ্যাঁ, আমি মনে করি আমি প্রস্তুত।’

আর/০৭:১৪/১১ জুন

উত্তর আমেরিকা

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে