Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৬-০৯-২০১৬

৩০০ জঙ্গির খোঁজে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী  

৩০০ জঙ্গির খোঁজে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী

 

ঢাকা, ০৯ জুন- রাজধানীসহ সারাদেশে ৩০০ জঙ্গির নামের তালিকা নিয়ে সাঁড়াশি অভিযানে মাঠে নেমেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। বিশেষ করে জেএমবি ও আনসারুল্লাহ বাংলাটিমের সদস্যদের ধরতে সম্ভাব্য স্থানগুলোতে এ অভিযান চলছে। গত দুই দিনে উল্লেখযোগ্য কোনো জঙ্গি গ্রেফতার না হলেও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ড. রেজাউল, বাগমারার আহমাদিয়া মসজিদে হামলাকারী এবং বগুড়ায় মসজিদের হামলার সঙ্গে সম্পৃক্ত চার জন জেএমবি জঙ্গি পুলিশের বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন। সর্বশেষ চট্রগ্রামে ছদ্মাবেশে থাকা জামায়াত শিবিরের এক সময়ের দুর্ধর্ষ ক্যাডার আবু নাসের হুন্নুকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

পুলিশের একটি সূত্র জানায়, সাম্প্রতিক সময়ের আলোচিত হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় জঙ্গিদের বিরুদ্ধে বড় ধরনের অভিযান শুরু হয়েছে। পুলিশের বিশেষায়িত সবগুলো ইউনিট এ অভিযানে অংশ নিচ্ছে। নতুন পুরাতন সব মিলিয়ে প্রায় ৩ শতাধিক জঙ্গির তালিকা এখন তাদের হাতে।

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের ডিসি (উত্তর) শেখ নাজমুল আলম নতুন সময়কে বলেন, উগ্রপন্থিদের বিরুদ্ধে জোরদার অভিযান শুরু হয়েছে। যে কোনো মূল্যে এসব অপশক্তি প্রতিহত করা হবে। জনগণকে সঙ্গে নিয়েই পুলিশ উগ্রপন্থিদের মোকাবেলা করবে।

তিনি বলেন, বিভিন্ন সময় গ্রেফতার হওয়া জঙ্গিদের কাছ থেকে প্রাপ্ত তথ্য এবং আমাদের গোয়েন্দা রিপোর্টের ভিত্তিতে যেসব জঙ্গিদের নাম রয়েছে তাদেরকে গ্রেফতারে আমরা কাজ করে যাচ্ছি।

পুলিশ সূত্র জানায়, রাজধানী ঢাকা ছাড়াও এর আশপাশ, চট্রগ্রাম এবং উত্তরাঞ্চলেরকয়েকটি জেলায় অভিযান শুরু হয়েছে। গত এপ্রিল মাসে রাজধানীর বাড্ডায় হঠাৎ জঙ্গি আস্তানার সন্ধান পায় পুলিশ। কিন্তু যথাযথ প্রস্তুতি না থাকায় পুলিশের ওপর আক্রমণ করে জেএমবির ওই গ্রুপটি পালিয়ে যায়। এবার আর তেমনটি হবে না। পূর্ণ শক্তি নিয়েই রাজধানীর টার্গেট করা স্থানগুলোতে অভিযান চালানো হবে। বিশেষ করে রাজধানীর দক্ষিণখান, উত্তরখান, টঙ্গি, যাত্রাবাড়ি, মোহাম্মদপুরসহ বিভিন্ন এলাকা কাউন্টার টেরিরিজম ইউনিটের সদস্যরা গভীর নজরদারিতে রেখেছেন। এছাড়াও সিটির সদস্যরা রাজধানীর বাইরেও চট্রগ্রাম, রাজশাহী, বগুড়া, চাঁপাইনবাবগঞ্জসহ বিভিন্ন জেলায় তালিকা ধরে ধরে অভিযান পরিচালনা করছেন।

গোয়েন্দা সূত্র জানায়, জেএমবি ও আনসারুল্লাহ বাংলা টিম (এবিটি) পৃথক `সেল` তৈরি করে অপারেশন করছে। এবিটির শীর্ষ পর্যায়ে রয়েছে মেজর (চাকরিচ্যুত) জিয়াউল হক জিয়া। তিন সদস্যের একটি অপারেশনাল `কোর কমিটি` ও রয়েছে এ জঙ্গি সংগঠনের। তার প্রধান হিসেবে আছেন পলাতক মেজর জিয়া। তার সেকেন্ড ইন কমান্ড হলেন শরিফুল ওরফে সাকিব ওরফে সালেহ ওরফে আরিফ ওরফে হাদী-১। শরিফুল নিজেই আটজন লেখক-প্রকাশক ও ব্লগার হত্যাকাণ্ডে সরাসরি অংশ নেন ও পরিকল্পনায় ছিলেন। এছাড়া লালমাটিয়ায় শুদ্ধস্বরের কর্ণধার আহমেদুর রশীদ টুটুলসহ তিনজনকে হত্যাচেষ্টায় ঘটনায় তিনি জড়িত ছিলেন। অন্যদিকে জেএমবির নেতৃত্বে আছেন মাওলানা সাইদুর রহমান ও নজরুল। জেএমবি বর্তমানে দুটি ধারায় বিভক্ত। জেএমবির যেসব সদস্য কারাগারে আছেন, তারা সাইদুরপন্থি হিসেবে পরিচিত। অন্যরা নজরুলপন্থি।

জানা গেছে, জেএমবির অন্তত চারজন সামরিক কমান্ডার রয়েছেন। তার মধ্যে আলবানি ওরফে হোজ্জা ও ফারদিন এরই মধ্যে পুলিশের সঙ্গে `বন্দুকযুদ্ধে` নিহত হয়েছেন। বর্তমানে জেএমবির দু`জন সামরিক কমান্ডার বিভিন্ন অপারেশনে নেতৃত্ব দিচ্ছেন। বিশেষ করে উত্তরাঞ্চলে তারা সবচেয়ে বেশি সক্রিয়। এ দুই নিষদ্ধ সংগঠনের প্রায় ৩ সদস্যদের নাম এখন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে।

উগ্রপন্থিদের গ্রেফতার অভিযান সম্পর্কে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল সাংবাদিকদের বলেন, এ উগ্রপন্থিদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। জঙ্গিদের রেহাই দেওয়া হবে না।

রাজশাহী অঞ্চলে জঙ্গি বিরোধী অভিযান সম্পর্কে পুলিশ সুপার নিসারুল আরিফ বেলেন, উগ্রপন্থিদের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা, নজরদারি বাড়ানোসহ বিভিন্ন বিষয়ে এরই মধ্যে পুলিশ সদর দফতর থেকে দিকনির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। সেই আলোকে আমরা কাজ শুরু করেছি।

গত দেড় বছরে দেশের ১৫টি জেলায় ৪৬টি জঙ্গি হামলায় ৪৮ জন নিহত হয়েছেন। এর মধ্যে গত ৫ জুন নিহত হন পুলিশ কর্মকর্তা বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা আক্তার মিতু, একই দিন নিহত হন নাটোরে খ্রীষ্টান মুদি ব্যবসায়ী সুনিল গোমেজ এবং ৬ জুন নিহত হন ঝিনাইদহে হিন্দু পুরোহিত গোপাল গাঙ্গুলি।

এ আর/ ১১:০০ / ০৯জুন

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে