Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৬-০৯-২০১৬

সব ধরনের সেবার আবেদন অনলাইনে চালুর উদ্যোগ  

সব ধরনের সেবার আবেদন অনলাইনে চালুর উদ্যোগ

 

ঢাকা, ০৯ জুন- দুর্নীতি ও জালিয়াতে বন্ধে টেলিযোগাযোগ খাতের সব ধরনের লাইসেন্সের আবেদন অনলাইনে নেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। টেলিযোগাযোগ খাতের সেবাবিষয়ক লাইসেন্স পেতে এতদিন কাগজে-কলমে যে আবেদন করার প্রক্রিয়াটি ছিল, তা বন্ধ হতে যাচ্ছে।এর পরিবর্তে যিনি যে লাইসেন্স নিতে আগ্রহী তাকে অনলাইনে আবেদন করতে হবে বলে জানা গেছে।
এছাড়া মোবাইলফোন অপারেটরগুলোর সব ধরনের সেবার ট্যারিফ অনুমোদনও (বিভিন্ন প্যাকেজের মূল্য অনুমোদন করিয়ে নেওয়া)  অনলাইনের মাধ্যমে করতে হবে।
জানা গেছে, ডাক ও টেলিযোগাযোগের কাছে অভিযোগ এসেছে, টেলিযোগাযোগ খাতের কিছু কিছু লাইসেন্স পেতে হলে উৎকোচ দিতে হয়। সংশ্লিষ্ট বিভাগের একটি দায়িত্বশীল সূত্র বাংলা ট্রিবিউনকে জানায়, প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিমের কানেও এ অভিযোগ পৌঁছেছে। এ অভিযোগ পাওয়ার পরে তিনি কঠোর অবস্থান নিয়েছেন। মূলত এই অবস্থানের ফলেই লাইসেন্সের আবেদন প্রক্রিয়াটি অনলাইনে করা যায় কিনা—সে বিষয়টি সামনে চলে আসে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, লাইসেন্স পেতে আবেদন ফির অতিরিক্ত টাকা দিতে হয়—এই অভিযোগসহ আরও বিভিন্ন কারণে ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স বা আইএসপি লাইসেন্স প্রদান গত এক সপ্তাহের বেশি সময় ধরে বন্ধ রয়েছে। এই সময়ে কোনও ধরনের লাইসেন্সের আবেদনও গ্রহণ করা হয়নি। এখনও গ্রহণ করা হচ্ছে না। বিষয়টি নিয়ে তদন্ত হচ্ছে বলে জানা গেছে, তদন্ত প্রতিবেদন ইতিবাচক হলে আবারও লাইসেন্স দেওয়া শুরু হবে।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ জানায়, আগামীতে আইএসপি, নিক্স (এনআইএক্স–ন্যাশনাল ইন্টারনেট এক্সচেঞ্জ), ভিটিএসসহ (ভেহিক্যাল ট্র্যাকিং সিস্টেম) আরও দু’একটি সেবার লাইসেন্সের আবেদন অনলাইনে করতে হবে। দেশের মোবাইলফোন অপারেটরগুলোর কোনও প্যাকেজ চালুর আগে ট্যারিফ অনুমোদন এতদিন নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি থেকে করিয়ে নিতে হতো। এখনও নিতে হবে–তবে তার জন্য অনলাইনে আবেদন করতে হবে।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সিনিয়র সহকারী সচিব এম রায়হান আখতার বলেন, এটা চ্যালেঞ্জিং একটা কাজ হতে যাচ্ছে। পরিকল্পনাটা বাস্তবায়ন করা গেলে লাইসেন্স প্রত্যাশীদের ভোগান্তি অনেক কমবে। তিনি বলেন, এর ফলে যিনি লাইসেন্সের জন্য আবেদন করবেন, তিনি অনলাইনেই দেখতে পাবেন তার আবেদনটি ‘অ্যাপ্রুভ’ হলো কিনা। সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিকে আর টেবিলে টেবিলে ঘুরতে হবে না। স্বচ্ছতা থাকবে, কাজটি দ্রুত হবে। তিনি জানান, ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম এরইমধ্যে বিষয়টি চালুর জন্য অনুমোদন দিয়ে দিয়েছেন।

রায়হান আখতার জানান, এই প্রক্রিয়ায় ব্যক্তিকে লাইসেন্সের আবেদন অনলাইনে করতে হবে এবং সব ধরনের কাগজপত্র অনলাইনেই জমা দিতে হবে। লাইসেন্স প্রত্যাশীদের আর ডেস্কের সঙ্গে যোগাযোগ করতে হবে না। কোনও আপত্তি থাকলে অনলাইনেই তা জানাতে হবে। সবাই জানতে পারবে কী কী কাগজ চেয়েছে। তিনি উল্লেখ করেন, আবেদনের এই নিয়েমে বিটিআরসির পরিচালক পর্যন্ত এবং টেলিযোগাযোগ বিভাগে সিনিয়র সহকারী সচিব পর্যন্ত সবাই দেখতে পারবেন ফাইলের কী অবস্থা। কেউ কোনও ইনকোয়ারি দিচ্ছেন কিনা, কেউ ফাইল ফেলে রাখছেন কিনা, ইত্যাদি দেখা যাবে।

লাইসেন্স ও সব ধরনের সেবার অনুমোদন অনলাইনে আবেদন করে নিতে হলে এ খাতে দুর্নীতির যে অভিযোগ উঠেছে, তা নিরসন করা সম্ভব হবে, কাজের গতি বাড়বে এবং যোগ্যরাই লাইসেন্স পাবে বলে মনে করেন রায়হান আখতার।

এ আর/ ১০:৪৩ / ০৯জুন

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে